সুস্বাদু ফল চেরি ঘুম বৃদ্ধি করে, ত্বক ও হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

রূপে গুণে অনন্যা সুন্দরী স্বাদেও অতুলনীয় চেরি। জাপানের ফল হয়েও বর্তমানে আমাদের দেশে চেরির অনেক কদর রয়েছে। কালচে লাল রঙের এই চেরি খেতে এতটাই  সুস্বাদু যে একবার খেলে বার বার খেতে ইচ্ছে করে। চেরি শুধু সুন্দর ফলই নয়, পুষ্টিগুণেও কিন্তু চেরি অনন্য। চেরি ফল ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য অনেক উপকারি একটা ফল। এই ফল ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। ইংরেজিতে Cherry এবং বৈজ্ঞানিক নাম Prunus avium.

চেরিতে ভিটামিন “সি” এবং পটাসিয়াম রয়েছে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য এবং ত্বকের স্বাস্থ্য বজায় রাখার জন্য ভিটামিন “সি” অপরিহার্য। পেশী সংকোচন, স্নায়ু ফাংশন, রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ এর জন্য পটাসিয়াম প্রয়োজন। এছাড়া চেরি ফাইবারের একটি ভাল উৎস। ফাইবার অন্ত্রের উপকারী ব্যাকটিরিয়া বৃদ্ধি করে এবং অন্ত্রের গতিবিধি ঠিক রাখে।

ডাক্তাররা সাধারণত যেসব ফলের গ্লাইসেমিক সূচক ৫৫-এর নিচে, সেসব ফল ডায়াবেটিস রোগীদের খেতে পরামর্শ দেন। চেরির GI ২২। ফরাসিতে একটি জনপ্রিয় প্রবাদ আছে, তা হলো ‘কেকের ওপর চেরি’, অর্থাৎ এমনিই কেক আবার তার সঙ্গে যোগ হয়েছে চেরি! এ যেন ‘সোনায় সোহাগা’।

চেরির পুষ্টিগুণ

নিচে চেরির পুষ্টি উপাদান দেওয়া হলো –

                                                                                                     

  • ক্যালরি: ৯৭ গ্রাম
  • কার্বোহাইড্রেট: ২৫ গ্রাম 
  • প্রোটিন: ২ গ্রাম
  • ভিটামিন “সি”: ১৮% (DV)
  • পটাশিয়াম: ১০% (DV)

চেরির স্বাস্থ্য উপকারিতা

নিচে চেরির স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করা হলো –

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি যৌগ সমৃদ্ধ:

চেরিতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট রয়েছে। উচ্চ অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কমায় যা একাধিক দীর্ঘস্থায়ী রোগের জন্য দায়ী। চেরিতে পলিফেনল এর পরিমাণ বেশি। পলিফেনল হার্টের রোগ, ডায়াবেটিস, মানসিক অবক্ষয় এবং নির্দিষ্ট ক্যান্সার সহ অনেক দীর্ঘস্থায়ী রোগের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দিতে পারে।

পেশীর ব্যথা কমায়:

গবেষণা দেখায় যে চেরিতে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট যৌগগুলি ব্যামের কারণে হওয়া পেশী ব্যথা উপশম করতে সহায়তা করে। ২৭ ধৈর্যশীল রানারদের একটি সমীক্ষায় প্রমাণিত হয়েছে যে, যারা ম্যারাথন দৌড়ায় তারা প্রতিদিন ৪৮০ মিলিগ্রাম চেরি গুঁড়ো খাওয়ার ফলে পেশী ব্যথা কম অনুভব করেছিলেন।

হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো:

যেকোন পুষ্টিকর ফল খাওয়া হার্টের জন্য ভালো। অনেক গবেষণায় দেখা যায় যে ফল সমৃদ্ধ ডায়েট হার্টের রোগের ঝুঁকি কমাতে পারে। চেরি বিশেষত উপকারী, কারণ চেরি পটাসিয়াম এবং পলিফেনল অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ। অ্যান্থোসায়ানিনস, ফ্ল্যাভোনোলস এবং ক্যাটচিন সহ শক্তিশালী পলিফেনল অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলিতে সমৃদ্ধ, যা সেলুলার ক্ষতির বিরুদ্ধে সুরক্ষা এবং প্রদাহ হ্রাস থেকে হার্টকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করতে পারে।

বাতের ব্যথা কমায়:

সুস্বাদু ফল চেরি বাতের ব্যথা হ্রাস করতে পারে কারণ এতে শক্তিশালী অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি প্রভাব রয়েছে। অনেক গবেষণায় দেখা গেছে যে চেরি প্রদাহজনক প্রোটিনগুলি দমন করে জারণ চাপ এবং প্রদাহ হ্রাস করতে সহায়তা করে, যা বাতের সাথে সম্পর্কিত লক্ষণগুলি হ্রাস করতে সহায়তা করে। এছাড়াও, চেরি দেহে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা হ্রাস করতে পারে, যা বাতের রোগীদের জন্য উপকারী।

ঘুমের মান উন্নত করে:

চেরি খেলে ঘুম বৃদ্ধি পাই। চেরিতে মেলাটোনিন এমন একটি উপাদান যা আপনার ঘুমের মান উন্নত করতে সহায়তা করে। ২০ জনের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে যারা ৭ দিনের জন্য চেরির জুস পান করেছিলেন তাদের মেলাটোনিনের মাত্রা, ঘুমের সময়কাল এবং ঘুমের মান উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছিল।

পিএইচ ভারসাম্য বজায় রাখে:

চেরি প্রকৃতির ক্ষারযুক্ত। যখনই শরীরের অম্লীয় উপাদান বৃদ্ধি পাই, তখন চেরি পিএইচ এর মাত্রা ঠিক রাখে।

অ্যান্টি-এজিং প্রোপার্টি:

চেরি অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলিতে সমৃদ্ধ এবং আমরা জানি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ফ্রি র‌্যাডিক্যাল এর সাথে লড়াই করে যা ত্বকের জন্য ভালো। চেরি ত্বক থেকে দাগ দূর করতে সহায়তা করতে পারে। চেরি, এক চিমটি হলুদ এবং এক চা চামচ মধু মিশিয়ে নিন। তারপর পেস্ট করে ১০-১৫ মিনিটের জন্য মুখে লাগিয়ে রাখুন তারপরে ধুয়ে ফেলুন।

রেফারেন্স: