ডিমের সাদা অংশ নাকি ডিমের কুসুম, কোনটা বেশি স্বাস্থ্যকর।

ডিমকে পৃথিবীর অন্যতম স্বাস্থ্যকর খাবার বলা হয়। সব বয়সের মানুষের পুষ্টি চাহিদা পূরণ করতে পারে ডিম। ডিমের সাদা অংশটুকু উচ্চ মানের জৈব আমিষ, আর কুসুমে স্নেহ পদার্থ, লৌহ ও ভিটামিন থাকে। শিশুর দৈহিক বৃদ্ধি, হাড় গড়নে ও মেধার বিকাশে ডিম খুবই কার্যকরী। এই জন্যই ডিমকে “প্রকৃতির মাল্টিভিটামিন” হিসাবে অভিহিত করা হয়।

ভাবুন যে ডিম আমাদের শরীরের জন্য এতো উপকারী সেই ডিমের কোন অংশ খারাপ হতে পারে। তবে কিছু কিছু লোকের জন্য ডিম খাওয়ার নিয়ম থাকতে পারে। হার্ভার্ড স্কুল অব পাবলিক হেলথের মতে, রোজ একটি ডিম খেলে তা হার্টের রোগের ঝুঁকি বাড়ায় না, তবে ডায়াবেটিস বা কোলেস্টেরল বেশি থাকলে সপ্তাহে এক থেকে তিনটির বেশি ডিম কুসুমসহ না খাওয়া ভালো।

ডিমের পুষ্টি উপাদান

ডিমের স্বাস্থ্য উপকারিতার কথা বিবেচনা করার সময়ও এর পুষ্টি উপাদান উল্লেখ করা দরকার। ডিম উচ্চ মানের প্রোটিনের পাশাপাশি একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন এবং খনিজ এর উৎস। নিচে কয়েকটি পুষ্টি উপাদান দেওয়া হলো –

  • ভিটামিন “এ”: ৬%
  • ফোলেট: ৫%
  • ভিটামিন বি 5: ৭%
  • ভিটামিন বি 12: ৯%
  • ভিটামিন বি 2: ১৫%
  • ফসফরাস: ৯%
  • সেলেনিয়াম: ২২%

এখন বেশিরভাগ ডাক্তারই স্বাস্থ্যকর খাবারের তালিকায় ডিম রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন। তারা বলছেন, বেশিরভাগ পুষ্টিকর উপাদান প্রাকৃতিকভাবে যেসব খাবারে সবচেয়ে বেশি পাওয়া যায় তার মধ্যে অন্যতম হল ডিম।

ডিমের সাদা অংশ প্রোটিন সরবরাহ করে আর কুসুমে ডিমের প্রায় সমস্ত ফ্যাট, ভিটামিন এবং খনিজ থাকে। গবেষণা পরামর্শ দেয় যে পুরো ডিম খাওয়ার ভালো ডিমের সাদা অংশের চেয়ে। এর পরও দ্বিধায় ভুগলে চিকিৎসক বা পুষ্টিবিদের কাছে জেনে নিতে পারেন

ডিম কখনও কখনও অস্বাস্থ্যকর হিসাবে কেন বিবেচিত হয়?

ডিমের সাদা অংশ, যা বেশিরভাগ প্রোটিন থাকে এবং ডিমের কুসুম বা হলুদ অংশে সব ধরণের পুষ্টি থাকে। আগে ডিম অস্বাস্থ্যকর হিসাবে বিবেচিত হত কারণ হল কুসুমের কোলেস্টেরল বেশি।

এটি সত্য যে ডিমে কোলেস্টেরলের বেশি। দুটি বড় ডিমে প্রায় ৪২২ মিলিগ্রাম কোলেস্টেরল থাকে। দৈনিক কোলেস্টেরলের গ্রহণের পরিমাণ ৩০০ মিলিগ্রাম। তবে হার্টের রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য কোলেস্টেরলের গ্রহণের পরিমাণ আরও কম। তাইতো ডিম কখনও কখনও অস্বাস্থ্যকর হিসাবে কেন বিবেচিত হয়।

ডিম কীভাবে রক্তের কোলেস্টেরলকে প্রভাবিত করে

ডায়েটরি কোলেস্টেরল রক্তের কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়িয়ে তুলবে, তবে এটি সাধারণত শরীরে সে ৱকম প্রভাব ফেলে না। আসলে লিভার কোলেস্টেরল উৎপাদন করে প্রচুর পরিমাণে, কারণ কোলেস্টেরল আপনার কোষগুলির জন্য একটি প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান।

আপনি যখন ডিমের মতো উচ্চ পরিমাণে কোলেস্টেরল জাতীয় খাবার খান, তখন আপনার লিভার কোলেস্টেরল উৎপাদন কমাতে শুরু করে। আর আপনি যখন আপনার ডায়েট থেকে কম কোলেস্টেরল গ্রহণ করেন, তখন আপনার লিভার বেশি কোলেস্টেরল উৎপাদন করে। একারণে, যখন তারা খাবার থেকে বেশি পরিমাণে কোলেস্টেরল পাই তখন রক্তের কোলেস্টেরলের মাত্রা উল্লেখযোগ্যভাবে পরিবর্তিত হয় না।

এছাড়াও, আমাদের মনে রাখা উচিত যে কোলেস্টেরল কোনও “খারাপ” পদার্থ নয়। এটি আসলে শরীরের বিভিন্ন প্রক্রিয়াতে জড়িত, যেমন: ভিটামিন “ডি” উৎপাদন ইস্ট্রোজেন, প্রোজেস্টেরন এবং টেস্টোস্টেরনের মতো স্টেরয়েড হরমোনের উৎপাদন করতে সাহায্য করে। পিত্ত অ্যাসিড উৎপাদনে, যা ফ্যাট হজমে সহায়তা করে।

ডিম কি হার্টের রোগের ঝুঁকি বৃদ্ধি করে?

গবেষণায় দেখা যায় যে, প্রতিদিন ১-২ টি ডিম খাওয়া কোলেস্টেরলের মাত্রা বা হার্টের রোগের ঝুঁকি পরিবর্তন করে বলে মনে হয় না। কম কার্ব ডায়েটের অংশ হিসাবে ডিম খেলে টাইপ-2 ডায়াবেটিসযুক্ত লোকদের হার্টের রোগের ঝুঁকি কমে।

এছাড়াও, ডিম ওমেগা-3 সমৃদ্ধ ফলে ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা হ্রাস করতে সহায়তা করে। ৩২ জন হার্টের রোগের একটি গবেষণায় দেখা গেছে ১২ সপ্তাহ ধরে প্রতিদিন ২ টি ডিম খাওয়ার পরে হার্টের স্বাস্থ্যের উপর কোনও নেতিবাচক প্রভাব পড়েনি।

ডিম কি ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বৃদ্ধি করে?

নিয়ন্ত্রিত অধ্যয়নগুলি দেখায় যে ডিম ইনসুলিন সংবেদনশীলতা উন্নত করতে পারে এবং প্রি-ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে হার্টের রোগের ঝুঁকির কারণ হ্রাস করতে পারে।

প্রাপ্তবয়স্কদের সাথে জড়িত দুটি সমীক্ষার পর্যালোচনাতে দেখা গেছে যে, যেসব লোকেরা প্রতি সপ্তাহে ১টি ডিমের চেয়ে কম ডিম খেয়েছেন তাদের তুলনায় যারা প্রতি সপ্তাহে কমপক্ষে ১টি ডিম খেয়েছেন তাদের টাইপ 2 ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনা কম ছিল।

ডিম ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বৃদ্ধি করে না ও রক্তের কোলেস্টেরলকেও প্রভাবিত করে না। এজন্যই বেশিরভাগ মানুষের জন্যই ডিম খুবই স্বাস্থ্যকর। সবার মধ্যে ডিম কোলেস্টেরলের মাত্রা খুব বেশি বাড়ায় না।

ডিম আমাদের শরীরে HDL (ভালো কোলেস্টেরল) বৃদ্ধি করে। যাদের শরীরে HDL উচ্চ মাত্রাই রয়েছে তাদের হার্টের রোগ, স্ট্রোক এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যার ঝুঁকি কম থাকে। যাইহোক কিছু লোকের জন্য ডিমের পরিমাণ সীমিত করার প্রয়োজন হতে পারে।

রেফারেন্স:
Share