আনারস ব্যথা কমাতে, হজমশক্তি ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে দারুন কার্যকরী।

গাছের মধ্যস্থান থেকে উৎপত্তি হয়ে গাছের মাথায় মুকুটের মতো শোভা পায়। হালকা ধারালো কাঁটা, শক্ত পুরু আবরণ, টক মিষ্টি স্বাদ। এখন অনেকটাই সহজ হয়ে গেলো। হ্যা বন্ধুরা আনারস। পেকে গেলে রসে টইটুম্বুর হয়ে যায়। কাটার সাথে সাথে সুমিষ্ট ঘ্রাণ চারিদিকে মৌ মৌ করে। আমাদের সকলের পছন্দের ফল আনারস।

শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে মানুষের খুব পছন্দের এই ফলটি শুধুমাত্র স্বাদের জন্যই নয়, বরং তার অলৌকিক বা রহস্যময় স্বাস্থ্য সুবিধার জন্য আজও সকলের কাছে অত্যন্ত প্রিয়। ইংরেজিতে Pineapple এবং বৈজ্ঞানিক নাম: Ananas comosus. ১৪৯৩ সালে ক্রিস্টোফার কলম্বাস আনারসের সন্ধান পান গুয়াডেলুপ দ্বীপে।

একটি আনারস এক ফুট পর্যন্ত লম্বা হতে পারে এবং একটি গাছ সর্বোচ্ছ ৩০টি পর্যন্ত ফল দিতে পারে। মালয়েশিয়ার কৃষি গবেষণা ও উন্নয়ণ ইনস্টিটিউট (এমআরডিআই)-এর মাধ্যমে প্রকাশিত একটি গবেষণা অনুসারে আনারস হলো কলা এবং কমলার পরে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ গ্রীস্মমন্ডলীয় ফল।

জ্বর, ঠান্ডা ও সর্দি-কাশির সমস্যায় আনারস খুব উপকারী। আনারসে আছে প্রচুর ভিটামিন “সি”। তাই এটি সহজেই ঠান্ডা ও সর্দি-কাশি প্রতিরোধ করে। এই ফলটি এখন সারাবছর পাওয়া যায়। তবে জুন-জুলাই অর্থাৎ বর্ষাকালে আনারস বেশি পাওয়া যায়।

আনারসের পুষ্টি উপাদান

ফলটিতে ক্যালোরি কম ও পানি ৯০ শতাংশ। ফাইবারও রয়েছে প্রচুর। ফলে আনারস খেলে ওজন হ্রাস পাবে ও হজমে উন্নতি হবে। নিচে আনারসের পুষ্টি উপাদান দেওয়া হলো-

  • ক্যালোরি: ৮২.৫
  • কার্বহাইড্রেট: ২১.৬ গ্রাম
  • ফাইবার: ২.৩ গ্রাম
  • ভিটামিন “সি”: ১৩১% (RDI)
  • ম্যাঙ্গানিজ: ৭৬% (RDI)
  • ফোলেট: ৭% (RDI)
  • পটাশিয়াম: ৫% (RDI)
  • ম্যাগনেসিয়াম: ৫% (RDI)
  • আয়রন: ৩% (RDI)

আনারসের স্বাস্থ্য উপকারিতা:

আনারসে ভিটামিন “এ” এবং “কে”, ফসফরাস, কপার এবং ক্যালসিয়াম রয়েছে। এতে বিশেষত ভিটামিন “সি” এবং ম্যাঙ্গানিজ বেশি, যা প্রতিদিনের ভিটামিন “সি” এর চাহিদার ১৩১% এবং ম্যাঙ্গানিজ এর চাহিদার ৭৬% পূরণ করে। নিচে আনারসের স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করা হলো –

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে:

আনারস বহু শতাব্দী ধরে ঐতিহ্যবাহী ঔষধের একটি অংশ হয়ে উঠেছে। এতে বিভিন্ন ধরণের ভিটামিন, খনিজ এবং এনজাইম রয়েছে যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে পারে।

শিশুদের নিয়ে একটি গবেষণায়, যেসব শিশু আনারস খেয়েছিলেন তাদের ভাইরাল এবং ব্যাকটেরিয়াল সংক্রমণের ঝুঁকি উল্লেখযোগ্যভাবে কম ছিল। আনারসে ১৩১% ভিটামিন “সি” রয়েছে যা আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা মজবুত করতে সাহায্য করে।

আর্থারাইটিসের (বাতের) ব্যথা কমায়:

আনারসে ব্রোমেলাইন থাকে, যার মধ্যে ব্যথা বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে, তাই এটি আর্থ্রাইটিসযুক্ত ব্যক্তিদের ব্যথা কমাতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে যে, ব্রোমেলাইন (bromelain) রিউম্যাটয়েড (rheumatoid) আর্থ্রাইটিসের লক্ষণগুলি উপশম করতে পারে।

অস্টিওআর্থারাইটিসে আক্রান্ত রোগীদের এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, ব্রোমেলাইন সমৃদ্ধ আনারস, আর্থারাইটিস (বাতের) এর ওষুধের মতো কার্যকরভাবে ব্যথা উপশম করতে সহায়তা করতে পারে।

রোগ প্রতিরোধক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বিদ্যমান:

আনারসে প্রচুর পরিমানে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট আমাদের শরীরের অক্সিডেটিভ স্ট্রেস এর সাথে লড়াই করতে সহায়তা করে। দেহে প্রচুর পরিমাণে ফ্রি র‌্যাডিকালের উপস্থিতি মানে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস।

এই ফ্রি র‌্যাডিকালগুলি দেহের কোষগুলির ক্ষতির কারণ হয় যা দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা, দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা এবং অনেক ক্ষতিকারক রোগের জন্য দায়ী। আনারস ফ্ল্যাভোনয়েডস এবং ফেনলিক অ্যাসিড নামক অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ যা আমাদের দেহের ফ্রি র‌্যাডিকালগুলির বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে।

হজমশক্তি বৃদ্ধি করে:

আনারস আমাদের হজমশক্তি বৃদ্ধি করতে বেশ কার্যকরী। কারণ আনারসে “ব্রোমেলিন” নামক একটি হজম এনজাইম রয়েছে। যা আমাদের হজমশক্তিকে উন্নত করতে সাহায্য করে। বদহজম বা হজমজনিত যে কোনো সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে।

সার্জারির ব্যথা কমাতে পারে:

যেকোনো সার্জারির ব্যথা কমাতে আনারস বেশ কার্যকরী। কারণ, এটি মূলত আনারসে থাকা ব্রোমেলাইনের ব্যথানাশক বৈশিষ্ট্যের কারণে। বেশ কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে যে ব্রোমেলাইন প্রদাহ, ফোলাভাব, ক্ষত এবং ব্যথা হ্রাস করতে পারে।

উদাহরণস্বরূপ, একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে দাঁতের সার্জারির আগে যারা ব্রোমেলেন সেবন করেছিলেন তাদের ব্যথা উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে এবং যারা না করেন তাদের চেয়ে কম ব্যথা অনুভব করেছেন।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে:

বেশ কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে যে আনারসে থাকা যৌগগুলি ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে। এই যৌগগুলির মধ্যে অন্যতম একটি হল “ব্রোমেলাইন”। টেস্ট-টিউব সমীক্ষায় দেখা গেছে যে “ব্রোমেলাইন” ক্যান্সারের সাথে লড়াই করতে পারে।

ব্রোমেলাইন ত্বকের ক্যান্সার, পিত্তনালী ক্যান্সার, গ্যাস্ট্রিক সিস্টেম, স্তন ক্যান্সার এবং কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারে।

ফোলা কমায়:

আনারসকে অন্য ফল থেকে আলাদা বৈশিষ্ঠ্য এনে দিয়েছে ব্রোমেলিন নামক এনজাইমটি। এছাড়া এতে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন ভিটামিন “সি”। ম্যাঙ্গানিজের পরিমাণও বেশি। এই উপাদানগুলি ফোলা বা ব্যাথা কমাতে খুবই কার্যকর।

হাড়ের ক্ষয়রোধ করে:

স্বতন্ত্র একটি উপাদান যেটা আনারসে বেশি পরিমানে পাওয়া যাই, সেটা কি? সেটি হলো ম্যাঙ্গানিজ। আনারসে বিদ্যমান ম্যাঙ্গানিজ, ভিটামিন “কে” ও ক্যালসিয়াম হাড়ের বৃদ্ধি ঘটায় ও হাড়ের ক্ষয় প্রতিরোধ করে।

সতর্কতাঃ

  • গর্ভাবস্থায় আনারস না খাওয়াই ভালো। গর্ভপাত হতে পারে। এ বিষয়ে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
  • দুধ ও আনারস একসঙ্গে খাবেন না। বিষক্রিয়া হতে পারে।
  • আনারস খেয়ে কারো এলার্জি জনিত সমস্যা হলে খাবেন না। অল্প খাবেন। আস্তে আস্তে শরীর মানিয়ে নিবে।

এছাড়া আপনি যদি জটিল কোনো রোগে আক্রান্ত হন বা অন্য কোনো কারণে রেগুলার কোনো মেডিকেল কোর্স-এর মধ্য দিয়ে যান তাহলে আনারস খাওয়ার আগে অবশ্যই আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন।

উৎস: হেলথলাইন

Share