কাঁচা হলুদ ত্বক উজ্জ্বল করে, কোলেস্টেরোল কমায় ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

আমাদের আজকের এই পোস্টের মহানায়ক হলেন কারকিউমিন(curcumin) নামের একটি যৌগ। বিশ্বব্যাপী বিজ্ঞানীদের দৃষ্টি আকর্ষণকারী সর্বাধিক সক্রিয় যৌগটি হলো কারকিউমিন।আর হলুদে এই যৌগটি থাকার কারণে আমরা হলুদের উপকারীতাগুলো পেয়ে থাকি। আসলে হলুদের ইন্ট্রোডাকশন বা পরিচয়ের বিশেষ দরকার নেই কারণ আমাদের বাঙালিদের জীবনে প্রতিদিনের রান্নায় যেমন হলুদ দরকার তেমনি  বাঙালি আচার-অনুষ্ঠানে ও ত্বকের যত্ন বা রূপচর্চায় হলুদ লাগবেই।আপনার মসলার মন্ত্রিসভায় হলুদ একটি গুরুত্বপূর্ণ অবস্থান দখল করে আছে।তরকারিতে তো বটেই, দুধ কিংবা চা, কফির সঙ্গেও যোগ করা হয় এই মশলা। এতে কেবল স্বাদই বাড়ে না,  খাবারের পুষ্টিগুণও বাড়ে।

বাংলাদেশ,ভারত তথা এই ভারতীয় উপমহাদেশের মানুষের সাথে কাঁচা হলুদের প্রেমের সম্পর্ক গভীর ও অনেক ভালোবাসার।হবেই বা না কেন? কারণ এটি অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট, অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টি-ভাইরাল, অ্যান্টি-ফাঙ্গাল, অ্যান্টি-কারসিনোজেনিক এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্যের জন্য পরিচিত। ধরে নিলাম, হলুদের এতো গুন নাই বা যা বলেছি অনেক বলেছি। হলুদের গুনাগুন এর থেকেও কম। আমরা হলুদ ব্যবহার করবো না। এটা কি সম্ভব? মোটেও সম্ভব না। রান্নায় রং আনতে হলুদের কোনো বিকল্প নেই। হলুদ ছাড়া আমরা একটা দিনও চলতে পারি না। হলুদ বাঙালি আচার-অনুষ্ঠানে, রন্ধনশিল্পে এমন ভাবে মিশে রয়েছে, এ যেনো জন্ম-জন্মান্তরের বন্ধন। এ বাঁধন ছিন্ন হবার নয়।

হলুদ বা হলদি এর বৈজ্ঞানিক নামঃ Curcuma longa এবং ইংরেজিতে বলা হয় Turmeric। আদা(ginger)-এর আত্নীয় হলুদ একটি গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ।আয়ুর্বেদে, প্রাচীন প্রাকৃতিক নিরাময় হিসাবে বহু শতাব্দী ধরে হলুদ ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

এছাড়া এটি আয়ুর্বেদিক ঔষুধ, ক্রিম, লোশন, পেস্ট এবং মলমেও ব্যবহার করা হচ্ছে। একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, হলুদ আমাদের দেহ এবং মস্তিষ্কের জন্য অনেক বেশি উপকারী।হলুদকে অনেক শুভ বলে মনে করা হয় কারণ বিয়ের শুরুটা গায়ে হলুদ দিয়ে হয়। শুধুমাত্র বিভিন্ন ধরণের সামাজিক সংস্কারে হলুদ ব্যবহারের জন্যই নয়, পাশাপাশি তার শক্তিশালী এবং আধ্যাত্মিক গুণাবলীর জন্যও হলুদকে অত্যন্ত মূল্যবান বলে মনে করা হয়।

হলুদ খাওয়ার নিয়ম:

কালো গোল মরিচের গুঁড়ার সঙ্গে হলুদ মিশিয়ে খেলে এর উপকারিতা অনেকাংশে বেড়ে যায়। তাই চেষ্টা করুন কাঁচা হলুদের সঙ্গে গোল মরিচ মিশিয়ে খেতে। গোলমরিচ গুঁড়ো কাঁচা হলুদ তথা কারকিউমিন শোষণ বাড়িয়ে দেয়।

গরম দুধে হলুদ মিশিয়ে খেতে পারেন। এটি অত্যন্ত উপকারী। কারণ এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি আরও অনেক স্বাস্থ্য সুবিধা দেয়। বিশেষ করে শ্বাসনালীর সংক্রমণে আক্রান্তদের হলুদ দুধ খাওয়া উচিত, যাকে গোল্ডেন মিল্কও বলা হয়। কাঁচি হালদি ব্যবহারের সর্বোত্তম উপায় হল এটি গরম পানিতে মিশ্রিত করা বা আদা এবং দারচিনি গুঁড়োর সাথে দুধে সিদ্ধ করা-অতিরিক্ত স্বাস্থ্য সুবিধা পেতে।

কাঁচা হলুদ না শুকিয়ে গুঁড়ো করা হলুদ আপনার পক্ষে ভাল?

হলুদ রোদে শুকিয়ে গুঁড়ো করলে পুষ্টির তারতম্য খুব বেশি না হলেও রান্নায় ব্যবহার করা অর্থাৎ গরম পানিতে দীর্ঘক্ষণ ফুটালে পুষ্টির অনেকটাই তারতম্য ঘটে। এটি যৌক্তিক যে, কোনও উদ্ভিজ্জ ফল বা মশলার তাজা রূপটি তার শুকনো, প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং গুঁড়ো ফর্মের চেয়ে বেশি পুষ্টি বজায় রাখে এবং এটি হলুদের ক্ষেত্রেও আলাদা নয়।

কাঁচা হলুদের উপকারিতা বা স্বাস্থ্যসুবিধা নিচে আলোচনা করা হলো:

আয়ুর্বেদের জন্মলগ্ন থেকেই হলুদের সঙ্গে এই শাস্ত্রের নাড়ির সম্পর্ক। হাজার বছর আগেও তৎকালীন আয়ুর্বেদ বিশেষজ্ঞরা জানতেন প্রকৃতিক এ উপাদানটি হল পুষ্টিকর উপাদানের একটি পাওয়ার হাইজ, যাকে ঠিক উপায়ে যদি কাজে লাগানো যায়, তাহলে শরীরকে নিয়ে আর কোনো চিন্তাই থাকবে না।

হলুদে বিটা ক্যারোটিন, অ্যাসকরবিক অ্যাসিড, ক্যালসিয়াম, ফাইবার, আয়রণ, নিয়াসিন, পটাসিয়াম, দস্তা, ফ্ল্যাভোনয়েডস এবং অন্যান্য পুষ্টি সহ অসংখ্য পুষ্টি রয়েছে। হলুদ আমাদের বিভিন্ন রোগ যেমন: আর্থারাইটিস, ক্যান্সার, আলঝাইমার ডিজিজ, ডায়াবেটিস, একাধিক স্ক্লেরোসিস, অ্যাথেরোস্ক্লেরোসিস, এইচআইভি/এইডস, যৌন সংক্রমণজনিত রোগগুলি (হেপাটাইটিস-সি, যৌনাঙ্গে হার্পিস), জ্বালাময়ী অন্ত্র সিন্ড্রোম, বদহজম, ব্যথা, ব্রণ, মূত্রনালীর সংক্রমণ, কিডনি সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে।

এটি ব্যথা উপশম করতে পারে:

ব্যথা আমাদের নিত্যসঙ্গী। অনেক রকমের ব্যথা নিয়ে আমাদের দিন পার করতে হয়। মাংসপেশির ব্যথা, বাত ব্যথা, জয়েন্টের ব্যথা, দাঁতের মাড়িতে ব্যথা, মাসিকের পেটে ব্যথা। ব্যথা ছাড়া কোনো কথা নেই। বিশ্বাস করুন বা না করুন, আপনি যদি প্রদাহের বিরুদ্ধে লড়াই করে থাকেন তবে আপনি প্রাকৃতিক এই উপাদানটি ব্যবহার করে দেখতে পারেন। দীর্ঘদিন ধরে ব্যথার ওষুধ খেলে কিডনিসহ শরীরের অন্যান্য অঙ্গের মারাত্মক ক্ষতি হয়ে থাকে। গবেষকেরা ব্যথা নিরাময়ের জন্য অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি হিসাবে হলুদের সাথে তাদের নিজস্ব উপাখ্যানের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেছেন।
ওবেসিটির কারণে আর্থ্রাইটিস (জয়েন্টে ব্যথা) পশ্চিমা দেশগুলিতে একটি সাধারণ সমস্যা। হলুদে থাকা কারকুমিন একটি শক্তিশালী অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি যৌগ। গবেষণায় প্রমাণিত কারকুমিন বাতের (জয়েন্টে ব্যথা) ব্যথা কমাতে সহায়তা করে।রিউমাটয়েড (rheumatoid) আর্থ্রাইটিসযুক্ত ব্যক্তিদের একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, কারকুমিন একটি অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি (ব্যথা নাশক) ঔষুধ এর থেকে বেশি কার্যকর ছিল।

এটি লিভারের কার্যকারিতা উন্নত করে:

লিভারকে চাঙ্গা এবং কর্মক্ষম রাখতে হলুদের কোনো বিকল্প নেই। কারণ এর মধ্যে থাকা কারকুমিন নামক উপাদানটি লিভারের কর্মক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। জন্ডিসে গায়ের রঙ ফ্যাকাশে হয়ে আসছে বুঝতে পারলে হলুদের রসের সাথে চিনি বা মধু মিশিয়ে খেতে পারেন। লিভারের যেকোনো সমস্যায় দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিন এবং ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ঔষুধ খান।

কার্কিউমিন ফ্যাটি লিভারের মতো লিভারের অসুস্থতার চিকিত্সায় সহায়তা করে। কারকিউমিন আছে বলেই লিভারের রোগে হলুদ খেতে বলে। কাঁচা হলুদের রস ৫ ফোঁটা থেকে শুরু করে বয়স অনুপাতে এক চাচামচ পর্যন্ত চিনি বা মধু মিশিয়ে খেলে লিভারের সমস্যায় উপকার পাওয়া যায়।

এটি ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করতে সহায়তা করতে পারে:

হলুদে রয়েছে কারককিউমিন (Curcumin) যা ক্যান্সার চিকিৎসায় একটি কার্যকরী ঔষুধ। এটি ক্যান্সারের বৃদ্ধি, বিকাশ এবং ছড়িয়ে পড়া হ্রাস করতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে যে, এটি ক্যান্সারজনিত কোষগুলির মৃত্যুতে অবদান রাখে এবং টিউমারগুলিতে নতুন রক্তনালীর বৃদ্ধি এবং ক্যান্সারের বিস্তার হ্রাস করতে পারে। একাধিক গবেষণায় ইঙ্গিত দেওয়া হয় যে কারকুমিন পরীক্ষাগারে ক্যান্সারজনিত কোষগুলির বৃদ্ধি হ্রাস করতে পারে এবং টিউমারগুলির বৃদ্ধিতে বাধা দিতে পারে।এটি অগ্ন্যাশয় ক্যান্সার, প্রোস্টেট ক্যান্সার এবং একাধিক মেলোমা বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষামূলক প্রভাব রয়েছে।হলুদ ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে সহায়তা করতে পারে।

আলঝেইমার (স্মৃতিশক্তি কমে যাওয়া) চিকিৎসায়:

হলুদে বসতি গেড়েছে শক্তিশালী যৌগ কারকিউমিন। এই কারকিউমিন আলঝাইমার রোগ প্রতিরোধে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।আলঝেইমার একটি নিউরোডিজেনারেটিভ রোগ যা মানুষের স্মৃতিশক্তি কমে যাওয়ার অন্যতম কারণ। দুর্ভাগ্যবসত আলঝেইমার এর কোনও ভাল চিকিৎসা নেয়। তাই এটি প্রথম থেকেই এটিকে প্রতিরোধ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আলঝেইমার(এক ধরনের বার্ধক্যজনিত স্নায়বিক অবক্ষয়মূলক রোগ), পার্কিনসন(এক প্রকারের নিউরো-ডিজেনারাটিভ বা স্নায়বিক রোগ), Pseudodementia (সুডো ডিমেনশিয়া)- where mental cognition can be temporarily decreased-মস্তৃষ্কের এই রোগগুলি খুব মারাত্মক।

হার্টের জন্য ভালো:

বিশ্বে মৃত্যুর এক নম্বর কারণ হল হার্টের রোগ। হার্টের রোগ অবিশ্বাস্যরকম জটিল এবং বিভিন্ন কারণে এটি হতে পারে। হলুদে থাকা কারকুমিন হৃদরোগের অন্যতম কারণ এন্ডোথেলিয়াল ডিসফাংশন প্রক্রিয়াটি ভালো করে হার্টের রোগ নিরাময়ে ভূমিকা রাখে।

একটি গবেষণায় এলোমেলোভাবে ১২১ জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল, যারা করোনারি আর্টারি বাইপাস সার্জারি করছিলেন, তাদের সার্জারির কয়েকদিন আগে এবং পরে প্রতিদিন ৪ গ্রাম কারকুমিন দেওয়া হয়। হাসপাতালে হার্ট অ্যাটাক হওয়ার ঝুঁকি কারকুমিন গ্রুপের ৬৫% হ্রাস পেয়েছিল।

আপনার হজমে সহায়তা করতে পারে:

একাধিক স্টাডিতে দেখা গেছে নিয়মিত হলুদ খাওয়া শুরু করলে হজমে সহায়ক পাচক রসের ক্ষরণ বেড়ে যায়। ফলে বদহজমের আশঙ্কা যেমন কমে। সেই সঙ্গে গ্যাস-অম্বল এবং অ্যাসিড রিফ্লাক্সের মতো সমস্যা কমাতেও বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

এটি হজম নিরাময় এজেন্ট হিসাবে আয়ুর্বেদিক ওষুধে ব্যবহৃত হয়। এখন পশ্চিমা দেশগুলোতে bile movement-এর বিভিন্ন সমস্যায় হলুদের ব্যবহার দিন দিন বেড়ে চলেছে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে:

উজ্জ্বল কমলা বর্ণযুক্ত কাঁচা হলুদকে Golden spice বা সোনার মসলা বা ভারতীয় স্যাফরন বলা হয়ে থাকে। শুধু দেখতে রঙিন সেজন্য নয় রঙিন ফল, সবজি বা মসলাতে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট উচ্চ মাত্রায় থাকে। হলুদেও  অতিমাত্রায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। হালকা গরম দুধ, পানি বা চায়ের সাথে কাঁচা হলুদ খেলে তা ঠাণ্ডা ও ফ্লু প্রতিরোধে সহায়তা করে। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এমন পদার্থ যা আপনার কোষগুলিকে ফ্রি র‌্যাডিকালগুলির বিরুদ্ধে রক্ষা করতে পারে যা হৃদরোগ, ক্যান্সার এবং অন্যান্য রোগে ভূমিকা রাখতে পারে।

ওজন নিয়ন্ত্রণ করে:

বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত হলুদ খাওয়া শুরু করলে শরীরে বিশেষ কিছু উপাদানের মাত্রা বাড়তে শুরু করে। এর ফলে হজম ক্ষমতার উন্নতি ঘটে। আর একবার মেটাবলিজম রেট বেড়ে গেলে স্বাভাবিকভাবেই ওজন হ্রাসের প্রক্রিয়াও ত্বরান্বিত হয়।হলুদে কার্কিউমিন নামে একটি উপাদান থাকে, যা শরীরে উপস্থিত ফ্যাট সেলেদের গলানোর মধ্যে দিয়ে অতিরিক্ত ওজন কমিয়ে ফেলতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

শরীর থেকে টক্সিক উপাদান বের করে:

শরীর ডিটক্সিফাই করতে হলুদ বিশেষ ভূমিকা পালন করে। এ প্রকৃতিক উপাদানটির মধ্যে থাকা কার্কিউমিন, রক্তে উপস্থিত ক্ষতিকর টক্সিক উপাদান বের করে দেয়। ফলে ব্লাড ভেসেলের ক্ষতির আশঙ্কা হ্রাস পায়।

হাঁচি-কাশি কমায়:

কাচ্চি হালদিতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা কোষকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে এবং সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে। হলুদের লাইপোপলিস্যাকারাইড দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। এর অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল, অ্যান্টিভাইরাল ও অ্যান্টিফাঙ্গাল হওয়ায় ঠান্ডা, সর্দি, কাশি হওয়ার প্রবণতাকে কমায়। সর্দি-কাশি কমাতে হলুদের রস বা এক টুকরো কাঁচা হলুদের সাথে মধু মাখিয়ে তা মুখের মধ্যে রেখে আস্তে আস্তে খেতে পারেন। সেটা করতে না পারলে এক গ্লাস গরম দুধের মধ্যে হলুদের গুড়ি, সামান্য ঘি বা মাখন এবং গোলমরিচ গুঁড়ি মিশিয়ে খান। কাশি ও গলা ব্যথা দূর করবে।

ত্বকের সৌন্দর্য বাড়ায় ও ব্রণ কমায়:

এটির মধ্যে এন্টিসেপ্টিক এবং এন্টিব্যাক্টেরিয়াল উপাদান থাকে যেটি ব্রণ দূর করতে সাহায্য করে। এটি শুধু ব্রণই দূর করে না, তার সাথে ব্রণের দাগ কমিয়ে দিয়ে মুখের উজ্বলতা বাড়িয়ে তোলে। কাঁচা হলুদ বাটা, চন্দন গুঁড়া, লেবুর রস এক সাথে মিশিয়ে ১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে উষ্ণ গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এছাড়া ব্রণের উপর কাঁচা হলুদ বেটে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। ব্রণ তাড়াতাড়ি দূর হবে।

বলিরেখা দূর করতে:

হলুদ ত্বকের বলিরেখা দূর করতে সাহায্য করে। ২/৩ চিমটি হলুদ গুঁড়া, চালের গুঁড়া, টমেটো রস, কাঁচা দুধের সাথে মিশিয়ে ১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন। তারপর উষ্ণ গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। ত্বকের বয়েসের ছাপ দূর করে ত্বক ফর্সা করে তুলবে।

এছাড়া চোখের নীচে কালো দাগ দূর করতে হলুদ গুঁড়ার সাথে মাখন মিশিয়ে চোখের নীচে ২০ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। পরে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে চোখ ধুয়ে ফেলুন। এটি চোখের নীচে বলিরেখা সহ কালো দাগও দূর করবে।

হলুদে কতটা কারকুমিন থাকে?

লক্ষণীয় জিনিস হল curcuminoids শুধুমাত্র হলুদের একটি ছোট অংশ নিয়ে গঠিত। সুতরাং, অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ইফেক্টটি পেতে, একজনকে প্রতিদিন 500 থেকে 1000 মিলিগ্রাম কার্কিউমিন পাওয়া দরকার। এক তাজা চা চামচ হলুদের প্রায় 200 মিলিগ্রাম কার্কিউমিন রয়েছে।

সতর্কতাঃ

উচ্চ মাত্রায় হলুদ রক্তে শর্করার বা রক্তচাপকে কমিয়ে দিতে পারে, যার অর্থ হল ডায়াবেটিস বা রক্তচাপের ওষুধ খাওয়া লোকদের হলুদের পরিপূরক গ্রহণের সময় সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত।

যা কিছু খাবেন পরিমাণমতো খাবেন। আপনার শরীরের অবস্থা বুঝে খাবেন। অতিরিক্ত কোনো কিছুই ভালো নয়। আপনি যদি কোনো জটিল রোগে আক্রান্ত হন বা নিয়মিত কোনো মেডিকেল কোর্স-এর ভেতর দিয়ে যান তাহলে খাওয়ার আগে অবশ্যই আপনার ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী খাবেন।

 

 

Share