আখরোট ঘুমের জন্য ভালো, ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে ও বয়সের ছাপ কমায়।

শক্ত খোলসে ঢাকা খুবই সুস্বাদু এই বাদামটি দেখতে মস্তিষ্কের মতো। যাকে আমরা আখরোট (walnut) হিসাবে চিনি। এর বৈজ্ঞানিক নাম: Juglans. এ বাদাম ফাইবার, আন্টিঅক্সিডেন্ট, ওমেগা-3 ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা নিয়মিত আখরোট খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। কারণ আখরোট এর ভেতরে থাকা নানাবিধ উপাদান মানুষের শরীরের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে বিশেষভাবে উপকারী। হাজার-হাজার বছর আগে থেকে মানুষ তাঁদের প্রতিদিনের ডায়েটে আখরোটকে স্থান দিয়েছেন। এর জন্ম হল ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে এবং মধ্য এশিয়ায়।

আখরোটের স্বাস্থ্য উপকারিতা

আখরোটের স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করা হলো –

ওমেগা-3 এর উৎস:

আখরোটে অন্য বাদামের তুলনায় ওমেগা-3 ফ্যাট উল্লেখযোগ্যহারে বেশি থাকে। প্রতি আউন্স আখরোটে ২.৫ গ্রাম ওমেগা-3 ফ্যাটি এসিড থাকে। এই বাদামে থাকা ওমেগা-3 ফ্যাটি এসিডকে আলফা-লিনোলেনিক এসিড বলা হয়। পর্যবেক্ষণ গবেষণায় দেখা গেছে যে ওমেগা-3 ফ্যাটি এসিড হার্টের অসুখ হওয়ার কারণে মৃত্যুর ঝুঁকি ১০% হ্রাস করতে পারে।

কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়:

দীর্ঘদিন ধরে উচ্চ “খারাপ” কোলেস্টেরল LDL এবং উচ্চ ট্রাইগ্লিসারাইড হার্টের রোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। কিন্তু আপনি যদি নিয়মিত আখরোট খান তাহলে কোলেস্টেরলের মাত্রা হ্রাস করতে সহায়তা করবে।

উদাহরণস্বরূপ, ১৯৪ জন প্রাপ্ত বয়স্কদের এক সাম্প্রতিক গবেষণায়, আট সপ্তাহের জন্য প্রতিদিন ৪৩ গ্রাম আখরোট খেতে দেওয়া হয়েছিল এতে মোট কোলেস্টেরল ৫% হ্রাস, LDL কোলেস্টেরল ৫% হ্রাস পেয়েছিল এবং ট্রিগ্লিসারাইডে ৫% হ্রাস পেয়েছিল।

প্রদাহ কমায়:

প্রদাহ হলে হার্টের রোগ, টাইপ-2 ডায়াবেটিস, আলঝাইমার রোগ এবং ক্যান্সার সহ অনেকগুলি রোগের কারণে হয় এবং অক্সিডেটিভ স্ট্রেসের কারণেও হতে পারে।

আখরোটে থাকা পলিফেনল অক্সিডেটিভ স্ট্রেস এবং প্রদাহের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে। এছাড়া এতে থাকা ওমেগা -3 ফ্যাটি এসিড, ম্যাগনেসিয়াম এবং অ্যামিনো অ্যাসিড প্রদাহ হ্রাস করতে পারে।

অন্ত্রের জন্য ভালো:

আমাদের অন্ত্রে কিছু উপকারী ব্যাকটিরিয়ায় থাকে। যেগুলো নানা কাজে আমাদের শরীরকে সাহায্য করে। আখরোট এই উপকারী ব্যাকটিরিয়াদের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং এদের সংখ্যা কমে যেতে দেয়না। ১৯৪ জন স্বাস্থ্যকর প্রাপ্ত বয়স্করা আট সপ্তাহ ধরে প্রতিদিন ৪৩ গ্রাম আখরোট খায়, এতে তাদের অন্ত্রে উপকারী ব্যাকটিরিয়ায় বৃদ্ধি পেয়েছিল।

কিছু ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে:

টেস্ট-টিউব, প্রাণী এবং মানব পর্যবেক্ষণ সমীক্ষায় পরামর্শ দেওয়া হয় যে আখরোট বাদাম স্তন ক্যান্সারের, প্রস্টেট ক্যান্সারের এবং কোলোরেক্টাল ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে। আগেই বলেছি আখরোট পলিফেনল এলাজিটানিন (ellagitannins০) সমৃদ্ধ। কিছু কিছু অন্ত্রের ব্যাকটিরিয়ায় এলাজিটানিন কে ইউরোলিথিন (urolithins) নামক যৌগতে রূপান্তর করে। ইউরোলিথিন হরমোনজনিত ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করতে সাহায্য করে, বিশেষত স্তন এবং প্রস্টেট ক্যান্সার।

ওজন নিয়ন্ত্রণ নিয়ন্ত্রণ:

আখরোট আপনার ক্ষুধা নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করতে পারে। ১০ স্থূল লোকের একটি গবেষণায়, পাঁচ দিনের জন্য প্রতিবারে ৪৮ গ্রাম আখরোট খেতে দেওয়া হয় এতে তাদের ক্ষুধা হ্রাস পায়। আখরোট অল্প খেলেই পেট ভরে যায় তাই এটি আপনার খিদেও নিয়ন্ত্রণে রাখবে।

টাইপ 2 ডায়াবেটিস ঝুঁকি হ্রাস করতে সহায়তা করে:

পর্যবেক্ষণ সমীক্ষায় পরামর্শ দেওয়া হয় যে আখরোট টাইপ-2 ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে পারে ওজন কমানোর মাধ্যমে। অতিরিক্ত ওজন আপনার রক্তে শর্করার এবং ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে। টাইপ-2 ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ১০০ জনের একটি নিয়ন্ত্রিত গবেষণায়, ৩ মাস ধরে এক টেবিল চামচ আখরোট তেল গ্রহণ করার ফলে রক্তাক্ত শর্করার ৮% হ্রাস পায়।

উচ্চ রক্তচাপ কমায়:

উচ্চ রক্তচাপ হার্টের রোগ এবং স্ট্রোকের জন্য একটি বড় ঝুঁকির কারণ। কিছু গবেষণা পরামর্শ দেয় যে আখরোট বাদাম খাওয়া রক্তচাপকে হ্রাস করতে পারে। হার্টের রোগের ঝুঁকিতে রয়েছে এমন ৭৫০০ প্রাপ্তবয়স্কদের চার বছরের গবেষণায় প্রতিদিন আখরোট খাওয়ানো হয়েছিল। সমীক্ষা শেষে দেখা গেছে, তাদের মধ্যে ডায়াস্টলিক রক্তচাপ হ্রাস পেয়েছিল।

বয়সের ছাপ কমায়:

আখরোট আপনার ত্বকের যৌবনকে, ত্বকের লাবন্যকে ধরে রাখতে সাহায্য করে অর্থাৎ বয়সের ছাপ কমায়। ৫০ বছরেরও বেশি বয়স্ক মহিলাদের ১৮ বছরের বেশি পর্যবেক্ষণে এক গবেষণায় বিজ্ঞানীরা দেখেছেন যে আখরোটযুক্ত স্বাস্থ্যকর ডায়েটে তাদের শারীরিক দুর্বলতার ঝুঁকি ১৩% কম ছিল। ক্যালোরি বেশি থাকলেও, আখরোটে প্রয়োজনীয় ভিটামিন, খনিজ, ফাইবার, স্বাস্থ্যকর ফ্যাট রয়েছে যা আপনার বয়সের ছাপ কমাতে সহায়তা করতে পারে।

মস্তিষ্কের জন্য ভালো:

মস্তিষ্কের বিকাশের জন্য বাদাম অত্যন্ত কার্যকরী। তাই আলাদা করে আখরোটের ভূমিকা এক্ষেত্রে বর্ণনা করার দরকার নেই। তবে শুধু বুদ্ধির বিকাশ নয়, মানসিক অবসাদ এবং বয়সের সাথে সাথে মানুষ সব কিছু ভুলে যেতে শুরু করে সেটা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে রাখে।

একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে আখরোটে থাকা পুষ্টি, পলিঅনস্যাচুরেটেড ফ্যাট, পলিফেনলস এবং ভিটামিন “ই” সহ আপনার মস্তিষ্কের জারণ ক্ষয় এবং প্রদাহ হ্রাস করতে সহায়তা করতে পারে যা মস্তিষ্কের জন্য ভালো।

পুরুষের জন্য ভালো:

প্রসেসড খাবারে থাকা অতিরিক্ত চিনি, ফ্যাট শুক্রাণুর পরিমাণ হ্রাস করে। আখরোট শুক্রাণু স্বাস্থ্য এবং পুরুষের উর্বরতা সমর্থন করতে পারে। ১১৭ জন সুস্থ্য যুবকেরা তিন মাস ধরে তাদের ডায়েটে ৭৫ গ্রাম আখরোট রাখেন, বাদাম না খাওয়ার পুরুষদের তুলনায় তাদের শুক্রাণুর আকৃতি, প্রাণশক্তি এবং গতিশীলতা উন্নত হয়েছিল।

ঘুমের জন্য ভালো:

যে খাবারগুলো ভালো ঘুম আনে সেই খাবারগুলোর তালিকার সর্বপ্রথমে আখরোটের অবস্থান। কি আছে এই আখরোটে যে ভালো ঘুম আনতে এতো সহায়ক। এটি ট্রিপটোফেন-এর চমৎকার উৎস। ট্রিপটোফেন (Tryptophan) হলো একটি অ্যামিনো এসিড যেটা ঘুম বৃদ্ধি করে থাকে। ট্রিপটোফেন, সেরোটোনিন ও মেলাটোনিন নামক রস শরীরে সরবরাহ করে অর্থাৎ হরমোন উৎপাদন করে দেহঘড়িকে সচল রাখে ভালো ঘুম দিয়ে ও কর্মচঞ্চল রেখে।

সতর্কতা:

আপনি যদি জটিল কোনো রোগে আক্রান্ত হন বা অন্য কোনো কারণে রেগুলার কোনো মেডিকেল কোর্স-এর মধ্য দিয়ে যান তাহলে অবশ্যই খাওয়ার আগে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন।

রেফারেন্স:

Share