লেবু, আদা ও মধু দিয়ে তৈরি চা সর্দি কাশি কমায়, বিপাকক্রিয়া বাড়ায় ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

একটি চা বা পানীয় যদি আপনার সকালের মুহুর্তগুলিকে স্বাদে বিস্ফোরিত করে আনন্দের সাগরে ভাসাতে পারে। জাগতিক দুঃখ কষ্টকে কিছু সময়ের জন্য দূরে সরিয়ে রাখতে পারে তাহলে হয়তো মন্দ হয় না।

সকালে ঘুম থেকে উঠে লেবুজল, লেবুজল ও মধু আবার কেউ লেবু, আদা ও মধু এই তিন এর মিশ্রণের জল খেয়ে থাকেন। সাধারণত সর্দি কাশি বা ঘরোয়া বিভিন্ন সমস্যায় আমরা এগুলো খেয়ে থাকি।

সকালে ঘুম থেকে উঠে আমরা অনেকেই চা খেয়ে থাকি। সেই চা যদি তৈরি হয় দুধ চিনির পরিবর্তে লেবু, আদা ও মধু দিয়ে তাহলে হয়তো সোনায় সোহাগ। লেবু, আদা এবং মধু চা জীবনের অন্যতম সাধারণ বিষয়, তবে এই তিনটি উপাদানের মিশ্রণ সম্পর্কে বিশেষ কিছু রয়েছে।

তারা একসাথে চূড়ান্ত প্রতিকার গঠন করে। এই চা এর অনেক উপকারী বৈশিষ্ট্য রয়েছে, আপনি বিশ্বাস করবেন না। সুতরাং আমি আপনাকে এটি করার ভালটি বলব এবং রেসিপিটি দেব।

 লেবু, আদা এবং মধু চায়ের উপকারিতা বা স্বাস্থ্যসুবিধা :

ঠাণ্ডা এবং ফ্লুর লক্ষণগুলি  উপশম করে:

জ্বর, সর্দি-কাশি দূর করতে আদা, লেবু, ও মধু সংমিশ্রনের চায়ের কোনো তুলনা হয় না। জ্বর জ্বর ভাব, গলাব্যথা, সর্দি দূর করতে সাহায্য করে। কাশির জন্য আদার রসের সাথে মধু মিশিয়ে খেলে উপকার হয়। গলায় জমে থাকা কফ দূরে করতেও আদা কার্যকরী।

কফ সমস্যা দেখা দিলে আদা কুচি করে ২ কাপ পানিতে ফুটিয়ে নিন। কিছুক্ষণ ফুটিয়ে ছেঁকে নিয়ে সাথে ১ টেবিল চামচ মধু ও ও সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে খেয়ে নিন। সর্দি-কাশি থেকে রক্ষা পাবেন।

প্রতিরোধ ব্যবস্থা শক্তিশালী করে:

মধু, লেবু এবং আদা চা।  তিন এর জুড়ি। ভিটামিন “সি”-এর চমৎকার উৎস লেবু আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেবে হাজার গুণ।

মধুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল গুণগুলি হজম ব্যবস্থা উন্নত করতে এবং প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে। এর অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টগুলি শরীর থেকে ফ্রি র‌্যাডিকালগুলি অপসারণের জন্যও খুব কার্যকর।

লেবু জাতীয় ফল বা সাইট্রাস ফল ভিটামিন “সি”-এর চমৎকার উৎস। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে ভিটামিন “সি” এর কোন বিকল্প হয় না। তাই সুস্থ্য থাকতে, বিভিন্ন ভাইরাস ব্যাকটেরিয়ার সাথে লড়তে প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় ভিটামিন “সি” রাখা ভালো।

মাথা ব্যথা থেকে মুক্তি দেয়:

যারা মাথা ব্যথার সমস্যার সাথে ভুগছেন তাদের জন্য একটি ঘরোয়া টোটকা হচ্ছে আদা, লেবু ও মধু দিয়ে তৈরি করা গরম গরম এক কাপ চা।  যখন অতিরিক্ত মাথা ব্যাথা শুরু হয় তখন এই তিন মিশ্রনের চা   মাথাব্যথা থেকে মুক্তি দিতে পারে।

হজমের সমস্যাগুলিতে সহায়তা করে:

হজমের সমস্যা দূর করতে প্রতিদিন সকালে মধু খাওয়ার অভ্যাস করতে পারেন। মধু পেটের অম্লভাব কমিয়ে হজম প্রক্রিয়ায় সহায়তা করে। হজমের সমস্যা দূর করার জন্য সকালে খালি পেটে এক চামচ মধু কিন্তু খুবই উপকারী।

আদা, লেবু ও মধু দিয়ে বানানো চা হজমজনিত সমস্যাগুলি প্রশমিত করতে পারে। হজমশক্তি উন্নতি করতে এবং খাবারের শোষণ বৃদ্ধিতে কার্যকর আদা চা। এছাড়া বমি বমি ভাব দূর করতে এটি বিশেষ ভাবে সহায়তা করে থাকে। যাদের হজমের সমস্যা রয়েছে তারা প্রতিদিন আদা চা খাওয়ার অভ্যাস করুন।

ক্ষত সারাতে কাজ করে:

মধুর প্রাচীন কাল থেকে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্টের কারণে ক্ষত এবং পোড়া নিরাময়ের জন্য ব্যবহৃত হয়ে আসছে। মধু এবং ক্ষতের যত্ন নিয়ে ২৬ টি গবেষণার পর্যালোচনাতে দেখা গেছে যে, ক্ষত নিরাময়ে মধু সবচেয়ে বেশি কার্যকর ছিল। একটি গবেষণায়, মধু ডায়াবেটিস রোগীদের আলসার ৯৭% নিরাময় করেছে।

সাইট্রাস ফল ভিটামিন “সি” এর একটি দুর্দান্ত উৎস যা প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করে এবং আপনার ত্বককে মসৃণ এবং স্থিতিস্থাপক রাখে। এছাড়া সাইট্রাস ফল ভিটামিন “বি”, পটাসিয়াম, ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম এবং কপার রয়েছে। অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রভাব সহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য সুবিধা রয়েছে।

ডিটক্সিফাইস করে:

লেবুগুলি প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি এবং পটাসিয়াম উভয়ই প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং আপনার দেহকে অসুস্থতাজনিত ফ্রি র‌্যাডিক্যালসকে ডিটক্সাইয়েটে সহায়তা করে। এমনকি যদি আপনি এই চাটি না করেন তবে আপনার গ্লাস জলে এবং একটি লেবুর কিল দিয়ে আপনার দিন শুরু করুন।

আদা হজমে সহায়তা করে, আপনার বিপাকটিকে কিক-স্টার্ট করে এবং কার্যকর ডিটক্সিফায়ার। অতিরিক্তভাবে, এর প্রদাহ বিরোধী বৈশিষ্ট্যগুলি ফ্লু এবং সাধারণ সর্দি থেকে লড়াই করতে সহায়তা করে।

আপনি যখন তিনটি একত্রিত করেন, আপনার একটি শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা রয়েছে যা কয়েক মিনিটের মধ্যে প্রস্তুত এবং দুর্দান্ত স্বাদ।

ত্বকের জন্য দুর্দান্ত:

লেবুর অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট, ভিটামিন “সি” আমাদের স্কিনের জন্য ভালো। এটি সূর্য এবং দূষণের কারণে ত্বকের ক্ষয়ক্ষতির বিরুদ্ধে লড়াই করতে, চামড়া কুঁচকে যাওয়া হ্রাস করতে এবং ত্বকের সামগ্রিক গঠনে উন্নতি করতে পারে। ভিটামিন “সি” ত্বকের কোলাজেন গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

সাইট্রাস ফলে উচ্চ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সামগ্রী থাকার কারণে, অকাল বার্ধক্যতা দূর করতে পারে। এতে উচ্চমাত্রায় ভিটামিন “সি” রয়েছে যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসাবে কাজ করে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ত্বকের ক্ষতিকর ফ্রি রেডিকেল প্রতিরোধ করে। এর ফলে ত্বকে বলিরেখা হতে দেয় না, বয়সের ছাপ প্রতিরোধ করে এবং ত্বকের তারুণ্য ধরে রাখতে সাহায্য করে।

মাসিকের বাধা থেকে মুক্তি দেয়:

মাসিক ব্যথা বা ঋতুস্রাবের সময় হওয়া পেটে ব্যথা কমাতে এই তিন মিশ্রনের চা খুবই কার্যকরী। আদাতো এক্ষেত্রে একেবারে ওস্তাদ।

কিডনি পাথর প্রতিরোধ করে:

লেবু আয়রনের শোষণ বৃদ্ধি করে উচ্চ রক্তচাপ এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়। এছাড়া লেবুতে আমাদের কিডনিতে পাথর হওয়া রোধ করতে পারে। মা এবং শিশুদের জন্য ফোলেট খুবই গুরত্বপূর্ণ। লেবু প্রাকৃতিকভাবে ফোলেটের চমৎকার একটি উৎস।

লেবু কিডনি পাথর প্রতিরোধে বেশ কর্যকরী। কারণ, সাইট্রিক এসিডের লবণ সাইট্রেট ক্যালসিয়ামের সাথে যুক্ত হয়ে ‘ক্যালসিয়াম অক্সালেট’ পাথর গঠনে বাধা দেয়। লেবুর মধ্যে থাকা সাইট্রিক এসিড কিডনি পাথর প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। অনেক সময় কিডনিতে জমে থাকা পাথর ভাঙ্গতে সাহায্য করে।

গবেষণায় দেখা গেছে যে, প্রতিদিন আধা কাপ বা দুটি লেবুর রস পান করলে মূত্রের সাইট্রেট বৃদ্ধি করে এবং কিডনির পাথরের ঝুঁকি হ্রাস পায়।

লেবু, আদা এবং মধু চা সম্ভবত আপনার তৈরি করা সহজ জিনিসগুলির মধ্যে একটি।

 

সূত্রঃ

https://www.dailycal.org/2019/11/05/ultimate-remedy-lemon-ginger-honey-tea/

Share