প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক কোনগুলি?

অ্যান্টিবায়োটিক শব্দটির সাথে আমরা কম বেশি সবাই পরিচিত। অ্যান্টিবায়োটিক শব্দের অর্থ “জীবনের বিরুদ্ধে”। শরীরে জীবাণু মারার যেকোনো ঔষুধকেই বলা যায় অ্যান্টিবায়োটিক। অ্যান্টিবায়োটিক এমন ওষুধ যা ব্যাকটেরিয়াগুলির বৃদ্ধি হ্রাস করে বা মেরে ফেলে। অ্যান্টিবায়োটিক অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়ালস নামেও পরিচিত। অনেক ধরনের শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ রয়েছে এবং এটি ব্যাকটিরিয়াজনিত রোগের চিকিত্সার জন্য ব্যবহৃত হয়।

ভাইরাল সংক্রমণের ফলে যেসব রোগ হয় যেমন সর্দি, ফ্লু বা কাশি ইত্যাদির চিকিৎসায় অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করতে পারে না। তবে ১৯৪০ এর দশকে অ্যান্টিবায়োটিক সহজলভ্য হওয়ার পরে, মানুষের আয়ু বৃদ্ধি পায়, সার্জারিগুলিও নিরাপদ হয়ে যায় এবং যেগুলো মানুষের জন্য মারাত্মক সংক্রমণ ছিল সেগুলো থেকে মানুষ বেঁচে যায়।

ব্যাকটিরিয়ার সাধারণ সংক্রমণ এমনিতেই ভালো হয়ে যায় আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার মাধ্যমে। তবে ব্যাকটিরিয়ার গুরুতর সংক্রমণে আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয়ে যায় তখন অ্যান্টিবায়োটিকগুলি খুবই কার্যকরী।

ডাক্তার যদি বুজতে পারেন যে, রোগীর গুরুতর অসুস্থতা ব্যাকটিরিয়ার সংক্রমণে তাহলে সে অ্যান্টিবায়োটিক ঔষুধ দেন। রোগীর সংক্রমণ ভাইরাল না ব্যাকটেরিয়াল তা সর্বদা সুস্পষ্ট নয়। এজন্য কখনও কখনও চিকিৎসার প্রয়োজন সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে ডাক্তার বিভিন্ন পরীক্ষা করেন।

কিছু অ্যান্টিবায়োটিক বিভিন্ন ধরণের ব্যাকটেরিয়ায় বিরুদ্ধে কাজ করে। তাদের “ব্রড স্পেকট্রাম” অ্যান্টিবায়োটিক বলা হয়। কিছু অ্যান্টিবায়োটিক কেবল নির্দিষ্ট ব্যাকটিরিয়াকে লক্ষ্য করে। তাদের “সংকীর্ণ স্পেকট্রাম” অ্যান্টিবায়োটিক বলা হয়। এজন্য অ্যান্টিবায়োটিক অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী নেওয়া উচিত।

প্রকৃতিতেই এমন কিছু উপাদান রয়েছে, যেগুলো অ্যান্টিবায়োটিকের মতো উপকারী। সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে, ক্ষত সারাতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিকের জুড়ি মেলা ভার। নিচে প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিকগুলি দেওয়া হলো –

মধু:

মধু প্রাচীনতম অ্যান্টিবায়োটিকগুলির মধ্যে অন্যতম, এটি প্রাচীন কাল থেকে বিভিন্ন আয়ুর্বেদিক ঔষধে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। মিশরীয়রা প্রায়শই মধু প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক এবং ত্বকের সুরক্ষক হিসাবে ব্যবহার করত। মধুতে হাইড্রোজেন পারক্সাইড ট্রাস্টেড সোর্স রয়েছে যা এর কিছু অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্যের জন্য দায়ী। এতে উচ্চ পরিমাণে সুগার রয়েছে, যা নির্দিষ্ট ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি বন্ধ করতে সহায়তা করতে পারে।

অতিরিক্তভাবে, মধুতে কম পিএইচ স্তর থাকে। অ্যান্টিবায়োটিক হিসাবে মধু সরাসরি ক্ষত বা সংক্রামিত স্থানে প্রয়োগ করুন। মধু ব্যাকটিরিয়া নিহত করতে এবং নিরাময় করতে সহায়তা করতে পারে। ১ বছরের কম বয়সী শিশুকে কখনও মধু দেওয়া উচিত নয়।

রসুন:

রসুনের অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল, অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিভাইরাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। রসুনের মধ্যে সালফার উপাদান রয়েছে। এটি অ্যালাসিন নামে পরিচিত। এটি প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিকের কাজ করে। অ্যালিসিন এর অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল ক্ষমতা রয়েছে। এটি MRS (Multidrug Resistance Strains) ব্যাকটিরিয়ার বিরুদ্ধে অত্যন্ত কার্যকর। রসুন অ্যাথলিটের (athlete’s) পায়ের ছত্রাকজনিত সংক্রমণের চিকিৎসা করতে সক্ষম।

আপনি রক্ত পাতলা করার ওষুধ খাচ্ছেন তবে রসুনকে অ্যান্টিবায়োটিক হিসাবে ব্যবহার করার আগে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

আদা:

বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায় আদাকে প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক হিসাবেও স্বীকৃতি দেয়। আদা, সংক্রমণ হওয়ার ঝুঁকি কমাতে সহায়তা করে। বিভিন্ন ধরণের ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধিকে বাধা দিতে পারে। এটি মাড়ির রোগের সাথে সংযুক্ত মৌখিক ব্যাকটেরিয়াগুলির বিরুদ্ধে খুব কার্যকর। আদার দেহের যেকোনো ইনফেকশনকে প্রতিহত করে।

একটি গবেষণায় দেখা গেছে, আদা রেসপিরেটরি সেংশাল ভাইরাস (RSV virus) প্রতিহত করে ঠান্ডা লাগা থেকে সৃষ্ট শ্বাসনালির সংক্রমণ ও ঠান্ডাজনিত লক্ষণগুলোকে প্রতিরোধ করে।

চা গাছের তেল:

চা গাছের তেল মনোোটার্পিনের মতো যৌগগুলিতে সমৃদ্ধ যা ব্যাকটিরিয়ার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে করতে খুব কার্যকর। এই যৌগটিতে হার্পিস ভাইরাস এর ক্রিয়াকলাপগুলি প্রতিরোধ করার ক্ষমতা এবং এই ধরণের মারাত্মক সংক্রমণ থেকে দেহকে সুরক্ষিত রাখতে সহায়তা করে।

দারুচিনি:

দারুচিনি একটি সুপরিচিত ঔষধি মসলা। এতে অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা বিশ্বজুড়ে ঔষধ চিকিৎসায় ব্যাপকভাবে ব্যবহার করা হয়। দারুচিনি ব্যাকটিরিয়া এবং ছত্রাকের সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে। এর অন্যতম সক্রিয় উপাদান সিনামালডিহাইড যা বিভিন্ন ধরণের সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করতে পারে।

হলুদ:

হলুদ একটি ভারতীয় মশলা যা অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্যের জন্য পরিচিত। হলুদে উপস্থিতি কার্কুমিনকে প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক বলা যেতেই পারে। কার্কুমিনে শক্তিশালী অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এছাড়া হলুদের থাকা লাইপোপলিস্যাকারাইড দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়।

নিমপাতা:

নিমের মধ্যে রয়েছে অ্যান্টিবায়োটিক উপাদান। এটি ব্রণ তৈরির ব্যাকটেরিয়াগুলোর সঙ্গে লড়াই করে, মুখগহ্বরের সংক্রমণের সঙ্গে লড়াই করে, ক্ষয় ও মাড়ির রোগ প্রতিরোধ করে।

রেফারেন্স:

Share