কেওড়া জল ও গোলাপ জলের পার্থক্য এবং সাদৃশ্য কি? বিশদভাবে জানুন।

গোলাপ জল গোলাপ ফুল থেকে আর  কেওড়া জল pandanus নামক সাদা পুরুষ ফুল থেকে উৎপন্ন হয়। গোলাপ জল ও কেওড়া জল দেখতে প্রায় একই রকম। উভয়‌ই ব্যবহৃত হয় খাবারকে সুস্বাদু করতে। খাবারকে সুবাসিত করতে। গোলাপ ফুলের নির্যাস ও পানদানাস ফুলের নির্যাস-উভয়ের মাতাল করা গন্ধ ও সেই সাথে ঔষধি গুনাগুন।

উভয়ের ব্যবহার এক‌ই, যেসব খাবারে যে কারণে গোলাপ জল দেয়া হয়, ঠিক এক‌ই কারণে কেওড়া জল‌ও দেওয়া হয়। চলুন জেনে নেয়া যাক, গোলাপ জল ও কেওড়া জলের সাদৃশ্য ও বৈসাদৃশ্য সম্পর্কে।

Rosaceae পরিবারের একটি ফুল হলো গোলাপ। এটি Rosa গণ বা মহাজাতি ভুক্ত বহুবর্ষজীবী ফুলের গাছ।বাংলায় গোলাপ জল, ইংরেজিতে রোজ  ওয়াটার বলা হয়। এই বিশেষ ফুলটি বিভিন্ন ভাষায় আরও অনেক নাম আছে।

হিন্দিতে গুলাব কা ফুল, স্প্যানিশ ভাষায় Rosa নামে পরিচিত। সবথেকে বেশি সংখ্যক মানুষের মুখের ভাষা অর্থাৎ মান্দারিন ভাষায় গোলাপকে বলা হয় মাইগুয়ে। রাশিয়ান ভাষায় Posa এবং জাপানি ভাষায় Rosu নাম ডাকা হয়।

গোলাপজল কি?

বাষ্প দিয়ে গোলাপের পাপড়ি বিচ্ছুরিত করে গোলাপজল তৈরি করা হয়। গোলাপজল সুগন্ধযুক্ত, এবং এটি কখনও কখনও রাসায়নিক আতরগুলির বিকল্প হিসাবে একটি হালকা প্রাকৃতিক সুবাস হিসাবে ব্যবহৃত হয়। গোলাপ জল প্রস্তুত করা হয় গোলাপ ফুলের পাপড়ির নির্যাস থেকে। এছাড়া পাতন প্রক্রিয়ায় গোলাপ তেল থেকেও গোলাপ জল তৈরী করা হয়।

গোলাপজল আপনার তৈলাক্ত, শুকনো বা অসমান ত্বকে অন্য এক মাত্রা যোগ করে।গোলাপ আয়ুর্বেদিক সৌন্দর্য যত্নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এবং হাজার হাজার বছর থেকে, মহিলারা গোলাপ জল আকারে এটি তাদের প্রতিদিনের সৌন্দর্য চর্চায় ব্যবহার করে।

মধ্যযুগ সহ কয়েক হাজার বছর ধরে গোলাপজল ব্যবহৃত হচ্ছে। এটি সৌন্দর্য পণ্য এবং খাবার ও পানীয় উভয় পণ্যে ঐতিহ্যগতভাবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। এটি কেবল ইরান বা ভারত নয়, গোটা বিশ্বজুড়ে নারীদের একটি সৌন্দর্য পণ্য হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

অনেক প্রাচীন কাল থেকেই রূপচর্চায় প্রসাধনী হিসেবে গোলাপ জল ব্যবহৃত হয়ে আসছে। তাছাড়া খাবারকে সুবাসিত করতে ও ঔষধ প্রস্তুত করতে গোলাপ জল ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

বিভিন্ন সুপার মার্কেটে গোলাপ জল কিনতে পাওয়া যায়। তবে বেশিরভাগ সময়ই এগুলো কৃত্রিম ভাবে প্রস্তুত করা হয়, এর মানে এতে বিভিন্ন ক্যামিকাল ও প্রিজারভেটিভ দেওয়া হয়। তাই সবচেয়ে ভালো হয় যদি ঘরেই এই গোলাপ জল তৈরি করে নেওয়া যায়।

গোলাপজল কি ত্বককে উজ্জ্বল করে?

হ্যাঁ করে। ত্বকের রং উজ্জ্বল করতে গোলাপজল ব্যবহার করা যেতে পারে। আপনার যদি কিছুটা অসম ত্বক থাকে তবে এটি আপনার জন্য দুর্দান্ত কাজ করবে। গোলাপজল আপনার ত্বকের পিএইচ ভারসাম্য পুনরুদ্ধার করে।

কেওড়া জল কি?

কেওড়া জল পান্ডানাস ফুলের বাষ্প পাতন প্রক্রিয়া দ্বারা প্রস্তুত করা হয়, যা একটি মিষ্টি গন্ধযুক্ত তেলও দেয়।এটি সাধারণত দক্ষিণ এশীয় খাবারে স্বাদযুক্ত এজেন্ট হিসাবে ব্যবহৃত হয়। এটি গোলাপ জলের মতো স্বচ্ছ তরল।

কেওড়া জলকে ইংরেজিতে Screw Pine Water বা Pandanus Water বলে।কেওড়া জল পানদানাস (Pandanus) নামক একটি ফুলের নির্যাস। এটি দেখতে স্বচ্ছ তরল, ঠিক গোলাপ জলের মতো দেখতে।

আন্দামান দ্বীপপুঞ্জ, ফিলিপাইন, ভারত ও ইন্দোনেশিয়া, পাপুয়া নিউ গিনি এবং উত্তর অস্ট্রেলিয়া এবং পুরো প্রশান্ত মহাসাগরের সমুদ্র সৈকত এবং হাওয়াই সহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াতে স্ক্রু পাইন বা pandanus ট্রি বা palm জাতীয় এই গাছগুলি ব্যাপকভাবে জন্মে।

Pandanaceae-পরিবারের এই উদ্ভিদটির বৈজ্ঞানিক নাম Pandanus odoratissimus Linn. or Pandanus odorifer .

এটি সাধারণত ছাতা গাছ বা স্ক্রু পাইন গাছ (ইংরেজি ভাষায়), পান্ডানাস (ফরাসী ভাষায়) কেতকি (সংস্কৃত ভাষায়), কেউরা, কেওদা, কেতকি, গাগান্ধুল, পুষ্প-চামার, পাংশুকা (হিন্দিতে), কিউরা, কেভারা, জাম্বালা , জাম্বুল, পানশুকা, কেতকী (উর্দু), তামিল ভাষায় “কাইথাই” বা “থাজাই” নামে পরিচিত।

বোতলজাত করে কেওড়া জল বিক্রি করা হয়। যেকোনো গ্রোসারি শপ বা মুদির দোকানে কেওড়া জল রাখে।কেওড়া জল রুম টেম্পারেচারে এক বছর ভালো থাকে। আর যদি রেফ্রিজারেট করা হয় তাহলে ৩-৪ বছর পর্যন্ত সংরক্ষন করা যায়।

মাংস, পানীয় আর ডেজার্ট বা মিষ্টি খাবারে ব্যবহার অর্থাৎ খাবারকে সুবাসিত করার পাশাপাশি রূপচর্চায় গোলাপ জলের মতো কেওড়া জলও ব্যবহৃত হয়। গোলাপ জলের মতো কেওড়া জলের ঔষধি গুণও রয়েছে।বিভিন্ন গ্ৰোসারী শপ বা মুদির দোকানে কেওড়া জল বোতলজাত করে বিক্রি করা হয়।

এটি ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে এবং মেন্টাল রিলাক্সেশনে সাহায্য করে থাকে।শুষ্ক ত্বকের রূপচর্চায়‌ও কেওড়া জল ব্যবহার করা যায়।

অবশ্যই আপনারা গোলাপ জল ও কেওড়া জলের মধ্যে কোথায় কোথায় মিল আছে এবং এর পার্থক্য ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন।

কেওড়া জল কি ত্বককে উজ্জ্বল করে?

হ্যা, কেওড়া জল ত্বককে উজ্জ্বল করে। কেওড়া জল শুস্ক ত্বককে সাথে সাথে আদ্র করে।আপনার ত্বককে আলোকিত করতে এবং এটিকে নরম করতে সহায়তা করে।কেওড়া জল হল একটি প্রাকৃতিক টোনার, যা মুখের ছিদ্রগুলি খুলে দেয় এবং ত্বকের গভীর স্তরগুলিতে মিশ্রিত পুষ্টি সমৃদ্ধ জৈব উপাদানের অনায়াসে শোষণের অনুমতি দেয়। সুতরাং, এটি তরতাজা এবং তরুনরূপের চেহারা দিয়ে ভেতর থেকে নিস্তেজ এবং ডুবে যাওয়া ত্বককে পুনরুজ্জীবিত করে।

দুটোর মধ্যে উৎসের অনেক পার্থক্য আছে, আবার ব্যাবহারে অনেক মিল রয়েছে। প্রথমে কেওড়া জল সম্বন্ধে জেনে নেয়া যাকঃ

কেওড়া জল/ Pandanus Water/Kewda Water–

  • কেওড়া জলকে ইংরেজিতে Kewra essence(কেওড়া সারাংশ) বা Kevda water(কেভদা জল) বলা হয়। এটি একটি সুগন্ধযুক্ত ভারতীয় ফুলের জল। পান্ডানাস টেক্টরিয়াসের ফুল থেকে উত্তোলিত গোলাপ জলের মতো ঐতিহ্যে ভরপুর। কেওড়া জল দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াতে পান্ডান পাতার নির্যাস হিসাবে বেশি পরিচিত।রোজ কিংবা অরেঞ্জ এসেন্সের বিকল্প।
  • মানষিক প্রশান্তি আনে:এটি খাবারের সুগন্ধ তৈরি করতে কেবল একটি দুর্দান্ত স্বাদের এজেন্ট হিসাবে কাজ করে না, এটি স্বাদও বাড়ায়।কেওড়া জল স্ট্রেস এবং উদ্বেগ উপশম করতে পারে, এইভাবে হতাশা, ডায়াবেটিস এবং হজম সিস্টেমের সমস্যা বা এমনকি কার্ডিওভাসকুলার সমস্যা এর মতো চাপ-উদ্দীপনাজনিত রোগ প্রতিরোধেও কার্যকর।এটি স্ক্রু পাইনের ফুলের পাতন থেকে পাওয়া যায় যা এটির আনন্দদায়ক এবং স্নিগ্ধ, শীতল গন্ধ দেয়।এই জল স্ট্রেস এবং হতাশা হ্রাস করে শরীরকে শিথিল করতে সহায়তা করে।
  • কেওড়া জল মাংস, পানীয় এবং মুখরোচক ডেজার্ট তৈরইরিতে ব্যবহার হয়। তাছাড়া সাদা ভাত বা বিরিয়ানিতে ফ্লোরাল ফ্লেভার হিসাবে ব্যবহৃত হয়। বিশেষ করে মোঘলাই কুইজিনে বেশী ইউজ করা হয়।
  • কেওড়া জল রুম টেম্পারেচারে এক বছর ভালো থাকে। আর যদি রেফ্রিজারেট করা হয় তাহলে ৩-৪ বছর পর্যন্ত সংরক্ষন করা যায়।
  • ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে:কেওড়ার পানির স্বাস্থ্য উপকারিতার কথা বলতে গেলে যে কথাটি প্রথমে বলতে হয় সেটি হলো এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ঠ্য।  কেওড়া জলে উদার পরিমাণে উদ্ভিদ-ভিত্তিক রাসায়নিকগুলি রয়েছে যেমন: ফেনলস, ট্যানিনস, গ্লাইকোসাইডস, আইসোফ্লাভোনস, ক্যারোটিনয়েডস যা ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে।

গোলাপজল/ Rose Water:

  • অ্যান্টি-এজিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে:গোলাপজল প্রায়শই সৌন্দর্যের পণ্যগুলিতে পাওয়া যায় যা ত্বকের টানটান ভাব বজায় রাখে। ত্বকের বুড়িয়ে যাওয়া প্রতিরোধ করে। এর কারণ এটির প্রকৃতপক্ষে অ্যান্টি-এজিং বৈশিষ্ট রয়েছে। ত্বকের দাগ, ত্বকের পড়া প্রতিরোধ করে। নিয়মিত  প্রয়োগ করুন, এটি আস্তে আস্তে কাজ করে।
  • কেওড়া জল সাধারণত যেসব খাবারে ইউজ করা হয়, গোলাপ জলও সেই একই ধরনের খাবারে ব্যবহার করা হয়।
  • গোলাপ জল বিভিন্ন ভিটামিন স্টোর, সুপার মার্কেট বা গ্রোসারি শপে কিনতে পাওয়া যায়। তবে অনেক সময় সেগুলি আর্টিফিশিয়াল প্রিজারভেটিভ ও ক্যামিকেল দিয়ে তৈরি করা হয়। সবচেয়ে ভালো হয় যদি আপনি নিজেই গোলাপ জল তৈরি করে নিতে পারেন।
  • অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে:গোলাপের পাপড়ি এবং গোলাপ তেলে বেশ কয়েকটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা কোষকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে। একটি গবেষণায় পাওয়া গেছে যে, এই অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টগুলির সম্ভাব্য লিপিড পারক্সিডেশনে বাধা দেয়।
Share