জায়ফল ব্যথা কমায়, ব্রেনের জন্য ভালো ও রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণে কার্যকরী।

দেখতে সুপারির মতো খুবই মূলবান মসলা জায়ফল। এর খুবই সুন্দর সুমিষ্ট ঘ্রাণ রয়েছে। জায়ফল বিভিন্ন রান্নায় ব্যবহৃত হওয়ার পাশাপাশি অনেক ওষধি গুণাগুণও রয়েছে।

যদিও জায়ফল স্বাস্থ্য সুবিধার চেয়ে স্বাদের জন্য বেশি ব্যবহৃত হয়। এই সুগন্ধি মসলাটিতে শক্তিশালী যৌগ রয়েছে যা রোগ প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে।

জায়ফল ইংরেজিতে: Nutmeg এবং বৈজ্ঞানিক নাম: Myristica fragrans.

জায়ফলে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস, ভিটামিন, অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য, ফাইবার এবং খনিজ রয়েছে যা আমাদের শরীরকে সুস্থ্য রাখতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

জায়ফলের স্বাস্থ্য উপকারিতা

নিচে জায়ফলের স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করা হলো –

শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে:

জায়ফলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট এমন যৌগ যা দেহের কোষগুলিকে ক্ষতিকারক ফ্রি র‌্যাডিকালের ক্ষতি থেকে রক্ষা করে। ফ্রি র‌্যাডিকাল দীর্ঘস্থায়ী স্বাস্থ্য সমস্যা সাথে সম্পর্কিত, যেমন নির্দিষ্ট ক্যান্সার, হার্ট এবং নিউরোডিজেনারেটিভ রোগগুলির কারণ।

ব্যথা কমায়:

দীর্ঘস্থায়ী প্রদাহ অনেকগুলি স্বাস্থ্য সমস্যার সাথে যুক্ত যেমন হৃদরোগ, ডায়াবেটিস এবং বাতের ব্যথা। জায়ফল স্যাবিনেন, টেরপিনল এবং পিনিন সমৃদ্ধ। এগুলি অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্যযুক্ত যা শরীরে প্রদাহ হ্রাস করতে পারে।

কামনা বৃদ্ধি করে:

জায়ফল যৌনক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে পারে। এটি ক্লান্তি এবং মানসিক চাপ কমানোর পাশাপাশি যৌন শক্তি বাড়াতে সহায়তা করে। যেসব পুরুষদের বীর্য পাতলা বা শুক্রাণু কম পরিমাণে উৎপাদিত হয় সেসব পুরুষদের জন্য জায়ফল ওষুধ হিসাবে কাজ করে। আজও এটি যৌন সম্পর্কে আগ্রহ বাড়ায় এমন ওষুধ তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।

অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে:

জায়ফল ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে কারণ এতে অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল প্রভাব রয়েছে। স্ট্রেপ্টোকোকাস মিউটানস এবং অ্যাগ্রিগাটিব্যাক্টরের মতো ব্যাকটিরিয়া দাঁতের গহ্বর এবং মাড়ির রোগের কারণ হতে পারে। একটি টেস্ট-টিউব সমীক্ষায় দেখা গেছে যে জায়ফল ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে শক্তিশালী অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল প্রভাব প্রদর্শন করে।

ত্বকের জন্য:

খাবারে স্বাদ আনার পাশাপাশি জায়ফলে এমন পুষ্টিও রয়েছে যা ত্বকের সাথে সম্পর্কিত সমস্যা দূর করে। এতে উপস্থিত অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ব্রণ প্রতিরোধে অনেক সহায়তা করে। জায়ফলের ব্যবহার ত্বকের দাগ দূর করতে সহায়তা করে।

হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য:

হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য উপকৃত হতে পারে। প্রাণী গবেষণায় দেখা যায় যে উচ্চ মাত্রার জায়ফলের পরিপূরক গ্রহণের ফলে হৃদরোগের ঝুঁকির কারণগুলি যেমন উচ্চ কোলেস্টেরল এবং উচ্চ ট্রাইগ্লিসারাইড মাত্রা হ্রাস পেয়েছে।

রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণে:

রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণের উন্নতি করতে পারে। একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, উচ্চ মাত্রার জায়ফলের নির্যাস রক্তে শর্করার মাত্রা উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করে এবং অগ্ন্যাশয়ের কার্যকারিতা বৃদ্ধি করে।

ঘুমের জন্য ভালো:

সত্যি কিছু কিছু রোগের ক্ষেত্রে ঘুম দামি ওষুধের মতো কাজ করে। তাই পর্যাপ্ত ঘুম আমাদের শরীরের জন্য খুবই দরকারী। অনেকে আছে যাদের ঘুমের সমস্যা আছে। তাদের জন্য জায়ফল কার্যকরী হতে পারে।

আয়ুর্বেদের মতে রাতের খাওয়ার আগে এক গ্লাস উষ্ণ গরম দুধে এক চিমটি জায়ফলের গুড়ি মিশিয়ে খেতে পারেন।

ব্রেনের জন্য ভালো:

জায়ফল একটি আফ্রোডিসিয়াক (aphrodisiac), মস্তিষ্কের স্নায়ুকে উদ্দীপিত করে। গ্রীক এবং রোমানরা সাধারণত জায়ফল মস্তিষ্কের টনিক হিসাবে ব্যবহার করতো। এটি হতাশা এবং উদ্বেগের চিকিৎসায় কার্যকর হিসাবে পরিচিত কারণ জায়ফলের তেল ক্লান্তি এবং মানসিক চাপ কমায়।

মুখের দুর্গন্ধ দূর করে:

জায়ফলের তেলে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে তাই এটি মুখ থেকে ব্যাকটিরিয়া দূর করতে সহায়তা করে যা মুখের দুর্গন্ধের কারণ। জায়ফল সাধারণত আয়ুর্বেদিক টুথপেস্ট এ ব্যবহৃত হয়। পাশাপাশি জায়ফল দাঁতের ব্যথা কমাতে সহায়তা করে।

সতর্কতা:

আপনি যদি জটিল কোনো রোগে আক্রান্ত হন বা অন্য কোনো কারণে রেগুলার কোনো মেডিকেল কোর্স-এর মধ্য দিয়ে যান তাহলে অবশ্যই খাওয়ার আগে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন।

রেফারেন্স: