চিচিঙ্গা রক্ত পরিষ্কার করে, হজমকারক, ত্বকের বন্ধু ও খুশকি দূর করে।

আমাদের দেশে বর্ষাকালে অতি পরিচিত ও সুস্বাদু চিচিঙ্গা বা Snake gourd বাজারে প্রচুর পরিমানে দেখা যায়। আপনি আপনার ডায়েটে চিচিঙ্গা অন্তর্ভুক্ত না করলে এখনই করুন? এবং আপনি কি জানেন যে, এটি আপনাকে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে এবং জ্বর থেকে মুক্তি পেতে সহায়তা করতে পারে?

শুধু এই দুটি নয়, সুপার-এই সবজিটি আরো অন্যান্য স্বাস্থ্য বেনিফিট সরবরাহ করে। হালকা সাদা স্ট্রাইপের সাথে স্বতন্ত্রভাবে দীর্ঘায়িত ও কুণ্ডলী পাকানো বা গুটানো চেহারার কারণে এই জাতীয় নাম দেওয়া হয়েছে।

চিচিঙ্গা হিন্দিতে চিচিন্দা বা পাদওয়াল, তেলেগুতে পটলকায়া, বাংলায় চিচিঙ্গা, তামিলের পুডালঙ্কাই এবং মালায়ালামের পদাবলঙ্গা নামে পরিচিত।

তরকারির গুরুত্বপূর্ণ একটি পদ এটি। ছোট ছোট করে কেটে নারকেল দিয়ে চিচিঙ্গা ঘন্ট। আমিষভোজীদের জন্য চিচিঙ্গা দিয়ে চিংড়ি মাছের ঝোল। গরম ভাতে একদম জমে যাবে। চিচিঙ্গার আরো কিছু প্রচলিত বা স্থানীয় নাম রয়েছে। যেমন-রেখা, খুশি, কইডা, স্ন্যাক গার্ড, সার্পেন্ট গার্ড, পাদোয়াল, টমেটো গার্ড ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

স্নেক গার্ড বা চিচিঙ্গা হলো শসা এবং স্কোয়াশ পরিবারের অন্তর্ভুক্ত অর্থাৎ cucurbitaceae পরিবারের। Trichosanthes cucumerina- এর বৈজ্ঞানিক নাম। নগন্য ক্যালরি এবং কোলেস্টেরল ছাড়াও প্রোটিন এবং প্রচুর পানি থাকে যা দেহকে প্রাকৃতিক শীতল প্রভাব সরবরাহ করে।

চিচিঙ্গা বা Snake gourd-এর স্বাস্থ্য উপকারিতা:

এটি একটি ন্যাচারাল এন্টিবায়োটিক তরকারি, এতে আছে বিভিন্ন ধরনের এন্টি-ইনফ্লামেটরি উপাদান। এছাড়া রয়েছে ডায়েটরি ফাইবার এবং নানা ধরনের মেডিসিনাল কম্পাউন্ড।

ওজন হ্রাসকে ত্বরান্বিত করে:

চিচিঙ্গায় ক্যালরির পরিমাণ কম এবং প্রয়োজনীয় পুষ্টিগুণ বেশি, নিয়মিত ওজন কমানোর জন্য ডায়েট অনুসরণ করে এমন ব্যক্তিরা বিশেষত ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের ক্ষেত্রে নিয়মিত গ্রহণ করতে পারেন। চিচিঙ্গা এমন ডায়েটরি ফাইবার সরবরাহ করে যা পেটে সহজেই ক্ষিধের আকাঙ্ক্ষা হ্রাস করে এবং দ্রুত গতিতে মেদ হ্রাসে সহায়তা করে।

কিডনি ডিটক্সাইফাই করে:

চিচিঙ্গা কিডনির মধ্যে তরল নিঃসরণকে উৎসাহ দেয়, তাৎক্ষণিক ভাবে জমে থাকা টক্সিনগুলি থেকে মুক্তি দেয় এবং একই সাথে দেহের অভ্যন্তরীণ অঙ্গগুলির যথাযথ হাইড্রেশনের গ্যারান্টি দেয়। চিচিঙ্গার রস কিডনি এবং মূত্রাশয়ের নিয়মিত কাজগুলিকে ভালো রাখে।

ডায়াবেটিক চিকিৎসায়:

চিচিঙ্গা ডায়াবেটিসের প্রভাব কমাতে ব্যবহৃত হয়। চাইনিজ থেরাপিতে ডায়াবেটিসের চিকিৎসার জন্য চিচিঙ্গা নিয়মিত অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এই সবজিটি কম ক্যালোরিযুক্ত খাবার। এটি একটি আদর্শ খাদ্য যা ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে। স্নেক গার্ড-এ পাওয়া পুষ্টি টাইপ-২ ডায়াবেটিস এর লোকদের জন্য সহায়ক।

টক্সিন নির্মূল করুন:

চিচিঙ্গার রস শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ দূর করতে সহায়তা করে। এটি হজম প্রক্রিয়াতে সহায়তা করে। পুরো উপকার পেতে প্রতিদিন সকালে ১ থেকে ২ চা চামচ চিচিঙ্গার রস খান।

এটি শারীরিক তরল তৈরিতে সাহায্য করে যা ডিহাইড্রেশন এবং শুষ্কতা রোধ করতে সাহায্য করে এবং মূত্রাশয় ও কিডনির স্বাভাবিক ক্রিয়ায় সহায়তা করে। চিচিঙ্গার বীজ এবং এই গাছের পাতাও উপকারী।

চুলের স্বাস্থ্য:

অ্যালোপেসিয়া একটি মাথার ত্বকের সমস্যা। মাথার এক এক জায়গায় চুল থাকে না। ছোট ছোট গোল গোল গর্তের মতো দেখায়। চিচিঙ্গার ভিটামিন এবং খনিজগুলির বিশেষত উচ্চ মাত্রায় ক্যারোটিন রয়েছে, যা চুল এবং ত্বকের স্বাস্থ্যের জন্য সহায়ক হতে পারে।

স্নেক গার্ড-এ প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এবং খনিজ থাকে যা চুলের স্ট্র্যান্ডগুলিতে পুষ্টি এবং শক্তি সরবরাহ করে। আপনি লম্বা এবং শক্তিশালী চুল অর্জন করতে চাইলে স্নেক গার্ড একটি আদর্শ বিকল্প।

ত্বকের যত্ন:

এটি শসা পরিবারের একটি সবজি এবং এটি ত্বকের জন্য দুর্দান্ত ময়েশ্চারাইজার হিসাবে কাজ করে কারণ এটি শরীর এবং চোখকে শীতল প্রভাব সরবরাহ করে। শসার মতো, চিচিঙ্গা ত্বকের বর্ণকে উজ্জ্বল করতে ব্যবহৃত হয়। এটি কার্যকরভাবে চোখের লাল ভাব হ্রাস করে এবং চোখের চারদিকে ফোলাভাব কমায়।

শ্বসন প্রক্রিয়া শক্তিশালী করে:

চিচিঙ্গা ফুসফুসের কার্যকারিতাকে বৃদ্ধি করে এবং হাঁপানির মতো শ্বাসকষ্টকে প্রতিরোধ দেয়। এটি শ্বাস নালীর বাধা রোধ করে এবং শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তি দেয়।

অতিরিক্ত খুশকি নিয়ন্ত্রণে:

চিচিঙ্গায় প্রচুর পরিমাণে রাসায়নিক রয়েছে যা মাথার ত্বকে খুশকির তীব্রতা হ্রাস করতে পারে। এটি চুলের শিকড়গুলিকে পুষ্ট করে এবং ছত্রাকের কণা দূর করে।

হজমে সহায়ক:

চিচিঙ্গায় একটি উল্লেখযোগ্য পরিমানে ফাইবার রয়েছে, যা কোষ্ঠকাঠিন্য, পেটের ক্র্যাম্পিংয়ের ঘটনা প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে। তদুপরি, এর জলীয় অংশ ও ফাইবার অন্ত্রের গতিবিধি নিয়ন্ত্রণ ঠিক রাখে, ফলে অন্ত্রে যেকোন অস্বস্তি হ্রাস করে।

সতর্কতাঃ

যা কিছু খাবেন পরিমাণমতো খাবেন। আপনার শরীরের অবস্থা বুঝে খাবেন। অতিরিক্ত কোনো কিছুই ভালো নয়। আপনি যদি কোনো জটিল রোগে আক্রান্ত হন বা নিয়মিত কোনো মেডিকেল কোর্স-এর ভেতর দিয়ে যান তাহলে খাওয়ার আগে অবশ্যই আপনার ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী খাবেন।

সূত্রঃ netmedscom, healthbenefitstimes.com

Share