কাঁচা টমেটো বয়স বা তারুণ্য ধরে রাখে, দৃষ্টিশক্তি ও হার্ট- এর উন্নতি ঘটায়।

কাঁচা টমেটো বা সবুজ টমেটো লাল রঙের টমেটোর মতো প্রাণবন্ত দেখাচ্ছে না তো কি হয়েছে, এগুলি প্রায় একই রকম পুষ্টি সরবরাহ করে।

শীতের সকালে গরম ভাতে কাঁচা টমেটো ভর্তা বা কুচো বা গুড়া মাছ দিয়ে কাঁচা টমেটো চর্চড়ি বা কাঁচা টমেটো দিয়ে রান্না করা এক বাটি মাছের ঝোল, কি আর বলবো। একবারে জমে যাবে। আলাদা স্বাদ যোগ করবে আপনার খাবারের আইটেমে।

অনেকেই বলে থাকেন শীতকাল মানে ভূরিভোজ। শীতের ঠান্ডায় খাবার খাবো কব্জি ডুবিয়ে। নতুন সবজি, ফলমূল, নতুন ধান, নতুন বা নলেন গুড় সব মিলিয়ে জমজমাট জবরদস্ত।

শীতে তাপমাত্রা অত্যধিক কমে যাওয়ায় ক্ষতিকর ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়াদের সংখ্যা দ্বিগুণ হারে বেড়ে যায়। বছরের এই সময় নানাবিধ রোগের প্রকোপ বেড়ে যায়। তাই শীতকালে সাবধানে থাকা প্রয়োজন। শীতে সুস্থ্য থাকতে নিয়মিত টমেটো খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

Tomato (টমেটো)-শব্দটি এসেছে স্প্যানিশ শব্দ Tomate থেকে। টমেটোর পরিবার: সোলানেসি (solanaceae), Genus: Solanum, Species: S. Lycopersicum – ফলটির বৈজ্ঞানিক নাম Solanum Lycopersicum.

বাংলায় টমেটো, ইংরেজিতে Tomato, চীনা ভাষায় ফানছিয়ে, ইটালিয়ান Pomodoro, ডাচ Tomaat, French তোমাত, জাপানিজ ও কোরিয়ান তোমাতো এবং Turkish ভাষায় domates নামে পরিচিত।

কাঁচা টমেটোর উপকারিতা :

উদ্ভিদ বিজ্ঞানের দৃষ্টিতে টমেটো একটি ফল হলেও, সবজি হিসেবেই সারা বিশ্বে টমেটো পরিচিত। কাঁচা টমেটোর স্বাস্থ্য উপকারিতা নিচে আলোচনা করা হলো –

চোখের স্বাস্থ্যের জন্য বিটা ক্যারোটিন:

একটি মাঝারি সবুজ টমেটো অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বিটা ক্যারোটিন সমৃদ্ধ। এক কাপ কাঁচা টমেটো বিটা ক্যারোটিনের 1000 IU-এর বেশি সরবরাহ করে যা প্রতিদিনের প্রস্তাবিত ভিটামিন-A গ্রহণের 10 শতাংশের সমান।

বিটা ক্যারোটিনের মতো একটি ভিটামিন ক্যান্সার এবং বয়সের সাথে সম্পর্কিত ম্যাকুলার অবক্ষয় রোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারে যা অন্ধত্বের প্রধান কারণ।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার জন্য:

শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার জন্য সবুজ টমেটো ভিটামিন-সি সরবরাহ করে। একটি মাঝারি কাঁচা টমেটো অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের প্রায় ২৯ মিলিগ্রাম বা প্রতিদিনের প্রয়োজনের প্রায় ৪৮ শতাংশ সরবরাহ করে। এটি রান্না করা পালং শাকের পরিমাণের চেয়ে বেশি।

ভিটামিন সি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এবং কার্ডিওভাসকুলার রোগের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দিতে পারে। ভিটামিন সি দেহকে উদ্ভিদ-ভিত্তিক খাবারগুলি থেকে আয়রন শোষণে সাহায্য ক্যরে।

পানিশুন্যতা দূর করে:

টমেটোতে ৯৪ শতাংশ পানি থাকে যা আপনি যখন ব্যায়ামের কারণে বেশি পরিমাণে ঘামেন তখন খুব ভাল কাজ করে আপনার শরীরে। পানি সমৃদ্ধ খাবারগুলি কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে রক্ষা করে বা হ্রাস করে হজম ক্রিয়ায় সহায়তা করে এবং আপনার ক্ষুধা এবং ওজনকে স্বাস্থ্যকর স্থানে রাখতে সহায়তা করে।

হৃদরোগ নিয়ন্ত্রণে:

টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে লাইকোপিন, ভিটামিন সি এবং ভিটামিন ই ও বিটা ক্যারোটিন রয়েছে, এগুলি সবই হার্টের স্বাস্থ্য ভালো রাখে। লাইকোপেন রক্তনালীগুলির দেয়াল শক্তিশালী করতে এবং রক্ত থেকে কোলেস্টেরল অপসারণে সহায়তা করে।

রক্ত জমাট বাঁধার জন্য ভিটামিন K:

ভিটামিন K সাধারণ রক্ত জমাট বাঁধার বিষয়ে নিশ্চিত হতে সহায়তা করে এবং আপনার দেহের হাড়ের শক্তি এবং ঘনত্ব বজায় রাখতে সহায়তা করতে পারে। একটি মাঝারি সবুজ টমেটো প্রায় 12.5 মাইক্রোগ্রাম সরবরাহ করে এবং আমাদের প্রতিদিনের প্রস্তাবিত পরিমাণ 90 মাইক্রোগ্রাম।

শিরার রোগের জন্য ভালো:

ভ্যারিকোস ভেইন হল রক্তনালীর একটি সাধারণ রোগ। ত্বকের নীচে জন্মানো ফোলা ও প্যাঁচানো শিরাকে ভ্যারিকোস ভেইন বলে। এই রোগ শরীরের যেকোনও অংশেই দেখা দিতে পারে। তবে, সাধারণত পায়ে ভ্যারিকোস ভেইন দেখা দেয়।

রক্ত প্রবাহকালে কোনও কারণে যদি শিরার রক্ত নিয়ন্ত্রণকারী ভাল্ব ঠিকমতো কাজ না করে কিংবা গাত্রগুলি দুর্বল হয়ে পড়ে, তখন রক্ত পিছনের দিকে প্রবাহিত হতে শুরু করে। রক্ত হৃদপিণ্ডে ভ্রমণের পরিবর্তে শিরাগুলিতে সঞ্চারিত হতে থাকে। ফলস্বরূপ, রক্তনালিগুলি ফুলে ওঠে এবং প্রসারিত হয়। একেই ‘ভ্যারিকোস ভেইন’ বলে।

 

বয়স বা তারুণ্য ধরে রাখে:

সবুজ টমেটো সেবন অকাল বয়স্কতা রোধ করতে সহায়তা করে। 100 গ্রাম টমেটো 23.4 মিলিগ্রাম ভিটামিন সি সরবরাহ করা হয়। ভিটামিন সি ত্বকের কোষগুলিকে পুনরুত্থিত করে যা মুখেরচামড়া কুঁচকিয়ে যাওয়া রোধ করতে সহায়তা করে। সবুজ টমেটো ত্বকের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সহায়ক।

এটিতে ভিটামিন এ, পটাসিয়াম এবং ভিটামিন সি রয়েছে যা ত্বকের সতেজতা বজায় রাখার জন্য খ্যাত এবং ত্বককে আরও উজ্জ্বল করে। এটি ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা বজায় রাখে যাতে এটি কুঁচকে না যায়।

সতর্কতাঃ

যা কিছু খাবেন পরিমাণমতো করবেন। আপনার শরীরের অবস্থা বুঝে করবেন। অতিরিক্ত কোনো কিছুই ভালো নয়। আপনি যদি কোনো জটিল রোগে আক্রান্ত হন বা নিয়মিত কোনো চিকিৎসকের তত্বাবধানে থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করলে বা বিভিন্ন ওষুধ গ্রহণ করলে অবশ্যাই আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী খাবেন।

সূত্রঃ

Healthbenefitstimes.com

Share