মেথি ভেজানো পানি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে, ওজন কমাতে, ত্বক ও চুলের যত্নে কার্যকর।

অ্যাম্বার বর্ণের বা হলুদাভ বাদামি বীজগুলি ছোট্ট ছোট্ট দানা। তেতো স্বাদের কিন্তু খুবই তীব্র ও মিষ্টি একটা গন্ধ। এই ছোট্ট মেথির দানা হলো আসলে আস্ত একটা পুষ্টির পাওয়ার হাউস। মেথির উপকারীতা এতটাই যা বলে বোঝানো মুশকিল। ভিটামিন আর মিনারেলস এ পরিপূর্ণ এই মেথি, আমাদের শরীরকে ভিতর ও বাইরে থেকে পুষ্টি যোগায়। এজন্য আপনাকে অবশ্যই এটি আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

কি ডায়াবেটিস রোগী বা কি হার্টের রোগী, অনেক স্বাস্থ্য সচেতন মানুষ এখন সকালে ঘুম থেকে উঠে ওজন কমাতে এবং মেটাবলিসম বা বিপাকক্রিয়া বাড়াতে মেথি ভেজানো জল বা Soaked Fenugreek বা  Fenugreek water  পান করে থাকে। মেথি অসংখ্য রোগ নিরাময়ে কাজ করে বলে এটি শীর্ষস্থানীয় সুপারফুডগুলির মধ্যেও জায়গা করে নিয়েছে।

এতে দ্রবণীয় ফাইবার রয়েছে যা কোলেস্টেরল বিশেষত এলডিএল হ্রাস করতে সহায়তা করে। রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে এবং ওজন হ্রাস করতে সহায়তা করে যদি সকালে খালি পেটে রাত্রে ভিজিয়ে রাখা মেথি ভেজানো জল খাওয়া হয়। তবে এটি কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে এবং অ্যাসিড রিফ্লাক্স বা অম্বল প্রতিরোধে সহায়তা করে।

আয়ুর্বেদ স্বাস্থ্য উপকারী উপাদানগুলির একটি সোনার খনি। ভেষজ-সংক্রামিত জলের শক্তি সন্দেহাতীত। মেথি দানা বীজ হল ভেষজ প্রতিকারের আয়ুর্বেদিক পুস্তকে দীর্ঘদিন অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে এবং প্রশংসিত হয়েছে। দীর্ঘক্ষণ ভিজিয়ে রেখে এবং খুব সকালে সর্ব-প্রথম জল খেয়ে ব্যবহার করা যায়।

এটি কোনো গোপনীয় সত্য নয় যে, মেথি দানা বা মেথি যুগে যুগে আমাদের রান্নাঘরের একটি অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ভারতীয় উপমহাদেশে মেথির ব্যবহার সাধারণত খাবারে আশ্চর্যজনক গন্ধের জন্য ব্যবহৃত হয়। আমাদের খাবারের প্রস্তুতিতে দুর্দান্ত স্বাদ যুক্ত করা ছাড়াও মেথির বীজগুলি আপনার স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। অনেকেই জানেন না যে, এই সাধারণভাবে ব্যবহৃত মশালিতে প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং খনিজ রয়েছে যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য দুর্দান্ত।

মেথি বা মেথির বীজ আপনার ত্বক এবং চুলের জন্যও দুর্দান্ত। আপনি যদি নিজের তরকারী এবং ভেজিগুলিতে মেথি যোগ না করেন তবে প্রতিদিন এটি গ্রহণের সহজ ও দুর্দান্ত উপায় হল মেথি জল পান করা। ঘরে মেথি বা মেথির জল সহজেই তৈরি করা যায়।

ভারতের ২০১৫ সালের এক সমীক্ষার ফলাফল বলছে, নিয়মিত ১০ গ্রাম মেথি গরম পানিতে ভিজিয়ে রেখে খেলে টাইপ টু ডায়াবেটিসের ঝুঁকি অনেকটাই কমে। ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল ফর ভিটামিন অ্যান্ড নিউট্রিশন রিসার্চে প্রকাশিত হওয়া প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মেথি ভেজানো পানি ডায়াবেটিক রোগীদের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

রান্নায় মেথি ব্যবহার করতে হলে অন্তত পক্ষে দুই থেকে তিন ঘণ্টা পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে। এতে সবচেয়ে ভালো ফল পাবেন। মেথি দানায় হাই ফাইবার থাকে, ফলে পাঁচন প্রক্রিয়া ধীর গতিতে হয়, শরীরে শর্করা শোষণের হার কমে। স্বাভাবিকভাবেই শরীর থেকে ইনসুলিন নির্গত হওয়ার হার বাড়ে।

মেথি ভেজানো জলের উপকারিতা বা স্বাস্থ্যসুবিধাঃ

মশলা, খাবার, পথ্য। থ্রি ইন ওয়ান। কী এই থ্রি ইন ওয়ান? শাক হোক বা বীজ, ম্যাজিকের একটাই নাম। মেথি। সকালে খালি পেটে একগ্লাস মেথির জল বা রান্নায় মেথি। এই ক্ষুদ্র, অ্যাম্বার বর্ণের বীজগুলি শরীর এবং বৈশিষ্ট্যগুলির জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টিকর উপাদানগুলি দিয়ে সজ্জিত যেগুলি বিভিন্ন সাধারণ অসুস্থতা মোকাবেলায় সহায়তা করে।মেথির জল এমন একটি জিনিস যা যে কেউ গ্রহণ করতে পারে। এটি ওজন কমাতে সহায়তা করে যা আপনার লিভার, কিডনি এবং বিপাকের জন্য ভাল।

ওজন কমানো:

অনেক লোকই জানেন না যে মেথি কেবল ওজন হ্রাস করতেই দক্ষ নয়, এটি অনেক পুষ্টির এক দুর্দান্ত উৎস। সকালে মেথি জল খাওয়া বিপাক বাড়ানোর জন্য দুর্দান্ত। এর ব্যবহার শরীরে তাপ উৎপন্ন করে এবং ওজন পরিচালনা ও হ্রাস করতে সহায়তা করে। আপনি যদি ওজন হ্রাস করতে চান তবে মেথি বীজ আপনার উত্তর।

হজমের উপকারিতা:

মেথির জল একটি দুর্দান্ত অ্যান্টাসিড। এর নিয়মিত ব্যবহার পাচনতন্ত্রকে শক্তিশালী করতে এবং গ্যাস্ট্রাইটিস এবং ফোলাভাবের সাথে জড়িত সমস্যাগুলি পরীক্ষা করতে সহায়তা করতে পারে। শীতের মাসগুলিতে খাওয়ার সময় এটি সবচেয়ে উপকারী।

মেথি বা মেথি জল আপনার শরীর থেকে ক্ষতিকারক টক্সিনগুলি বের করে দিতে সহায়তা করে এবং এটি আপনার অন্ত্রের গতিপথ উন্নত করতে সহায়তা করে। এটি আপনাকে হজমের সমস্যার বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে। এটি হজমের অন্যান্য সমস্যার মধ্যে কোষ্ঠকাঠিন্য, বদহজম প্রতিরোধ করে।

স্তন্যদুগ্ধ বাড়ায়:

দুধ উৎপাদনে সহায়তার কারণে মেথি ভেজানো জল বা মেথির পানি দুধ খাওয়ানো মায়েদের পক্ষে দুর্দান্ত। মেথি দানা সবসময়ই এমন উপাদানগুলির মধ্যে অন্যতম যা ছোট অনুপাতে ব্যবহৃত হয় তবে বিভিন্ন অবস্থার চিকিৎসার জন্য এটি দুর্দান্ত।গর্ভবতী মহিলাদের পাশাপাশি নার্সিং মায়েদের ক্ষেত্রেও মেথির বীজ খুব উপকারী, তাই এগুলি বিশেষত নতুন মায়েদের পুনরুদ্ধার বাড়ানোর জন্য ব্যবহার করা হয়। সাধারণত ভেষজ-আক্রান্ত তরল, উষ্ণ জল জরায়ুটিকে তার গর্ভাবস্থার পূর্বের অবস্থায় ফিরে পেতে সহায়তা করে।

ডায়াবেটিসের মহৌষধ:

রক্তের শর্করার নিয়ন্ত্রণ ও মেথি এই দুটি শব্দ যেনো সমার্থক হয়ে উঠেছে। মেথি রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণের জন্য দুর্দান্ত। এটি ইনসুলিন নিঃসরণে আরও প্রতিক্রিয়াশীল এবং সংবেদনশীল করে তোলে। এ কারণেই এটি ডায়াবেটিস রোগীদের দ্বারা বেশি ব্যবহৃত হয়।

মেথির বীজে অ্যামিনো অ্যাসিড যৌগগুলি অগ্ন্যাশয়ে ইনসুলিন নিঃসরণ বাড়ায় যা দেহে রক্তে শর্করার মাত্রা হ্রাস করতে সহায়তা করে।

আপনার কি রক্তে চিনি বাড়ছে? ডায়াবেটিসের জন্য মিষ্টি বন্ধ? ওজন বেড়ে দিনদিন বুড়িয়ে যাচ্ছেন? হাতের নাগালেই মুশকিল আসান। রোজ সকালে খালি পেটে একগ্লাস মেথির জল।স্বাদ যতই তেতো হোক, ডায়াবেটিসের যম মেথি। রক্তে চিনি কমাতে এখনই মেথি ভেজানো জল খাওয়া শুরু করুন।

চুল পড়া কমায় ও খুশকি দূর করে।

আপনি মেথি গুঁড়ো করে নারকেল তেলে দিন। বেশি পরিমান গুঁড়ো যদি অল্প পরিমান তেলে দেন তাহলে আপনি বুঝতে পারবেন এর সুবাসের তীব্রতা। আপনি আরো কয়েক বার তেল অ্যাড করতে পারবেন এবং বছর পার হয়ে গেলেও এর গন্ধ অটুট থাকে।শুধু কি গন্ধ এবার শুনুন পুষ্টির কথা।

আমরা আগেই জেনেছি মেথি পুষ্টির ভান্ডার যা চুলের বৃদ্ধিতেও সহায়তা করে। মেথির পানি খাওয়া চুলের বৃদ্ধিকে উৎসাহ দেয়, চুলের পরিমাণ বাড়ায় এবং চুলের সমস্যা যেমন খুশকি, রুক্ষতা উপসাগরীয় স্থানে অর্থাৎ দূরে রাখে। মেথিতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন ও নিকোটিনিক এসিড রয়েছে যা চুলকে ভেতর থেকে পুষ্টি যোগায় এবং চুলকে মজবুত করে।

মেথি ভেজানো জল প্রতিদিন পান করলে পেটের যাবতীয় পীড়াজনিত ও পরিপাকজনিত সমস্যা দূর হয়। দেহের অতিরিক্ত ওজনও কমে। মেথি ভেজানো পানি তিন ভাগের দুই ভাগ খাওয়ার পর বাকী পানিটুকু একটি স্প্রে বোতলে নিয়ে নিন। এবার মাথার ত্বকে এবং চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত এই পানি স্প্রে করুন। এবার আঙুলের ডগার সাহায্যে সারা মাথা ৭-১০ মিনিট ম্যাসাজ করুন। ১ ঘন্টা অপেক্ষা করে চুল ধুয়ে ফেলুন। চাইলে সারারাত এটা মাথায় রাখা যেতে পারে। চুল পড়া কমাতে এবং চুলের ভিত্তিকে মজবুত করতে এর জুড়ি নেই।

খুশকি হল শুকনো মাথার ত্বকের মৃত কোষগুলির ফলে চুলের একটি সাধারণ সমস্যা। এই ঝামেলা মোকাবেলা করার জন্য প্রাচীন কাল থেকেই মেথি ব্যবহার হয়ে আসছে। মেথি মাথার পুষ্টি যোগায়।

চুলের বৃদ্ধি এবং নতুন চুল গজাতে:

মেথিতে প্রচুর পরিমাণে লেসিথিন রয়েছে যা চুলের গোড়ায় পুষ্টি যোগায় এবং চুলের বৃদ্ধিতে ও চুল গজাতে কার্যকরী।

মেথির ব্যবহার কিডনিতে পাথর নিরাময়ে সহায়তা করে। মেথি মহৌষধ। মেথির রসে সাপোনিস ও ডায়োজেনিন নামের যৌগ আছে।মানুষের শরীরে হরমোনের পরিমাণ বাড়ায়। প্রতিদিন পরিমিত মেথি ভেজানো জল খেলে পুরুষের যৌনক্ষমতা বাড়ে।

মেথিতে রয়েছে প্রচুর প্রোটিন, ফাইবার, আয়রন, পটাসিয়াম, ভিটামিন সি ও নিয়াসিন। এই পুষ্টি উপাদানগুলি ত্বককে রাখে সতেজ, টানটান বার্ধক্য দূরে ঠেলে তারুণ্যকে দীর্ঘস্থায়ী করে।

যাদের দুর্বল প্রতিরোধ ক্ষমতা এবং সর্দি, কাশি এবং ফ্লু সম্পর্কিত সমস্যা রয়েছে তাদের মেথির পানির ব্যবহার শরীরে তাপ উৎপন্ন করার জন্য দুর্দান্ত; এটি শরীরকে প্রাণবন্ততা এবং প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে।

সতর্কতাঃ

৬ মাসের বেশি মেথি খাওয়া চলবে না। কারণ, বেশি মেথি খেলে কিছু সাইড এফেক্ট হতে পারে। ডায়ারিয়া, গ্যাস বা পেটের গন্ডগোল। অন্তঃসত্ত্বা মহিলা ও শিশুদের মেথি না খাওয়াই ভাল।

মেথি খাওয়ার আগে প্রথমে ডাক্তারের পরামর্শ নিতেই হবে। তবে শুধু মেথি খেলেই হবে না। নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে।

সূত্রঃ

ndtv, herzindagi.com, timesofindia.indiatimes.com