মা হতে চাইলে যে অভ্যাসগুলো আপনার ত্যাগ করা উচিত।

সদ্য বিবাহিত দম্পতি। অথবা সুখে শান্তিতে দাম্পত্য জীবন পার করেছেন দু-চার বছর। সকলের মনের সুপ্ত বাসনা বা প্রধান টার্গেট বাবা-মা হওয়া। কিন্তু সন্তান জন্মদানের আগে নারী বা পুরুষের নিজেদের তৈরি করার বিষয়টিও খুব গুরুত্বপূর্ণ।

এক্ষেত্রে মাকেই বাবার থেকে বেশি সচেতন ও নিজের যত্ন নিতে হয়। কারণ তার শরীরে বেড়ে ওঠে পরিবারের ভবিষৎ তথা দেশের ভবিষৎ। মা হতে চাইলে সাধারণ জীবন-যাপনে বেশ কিছু পরিবর্তন জরুরি।

মাতৃত্ব দুর্বলদের জন্য নয়। আমরা সবাই তা জানি। এটি একটি কঠিন কাজ, তবে সবচেয়ে কঠিন নয়। যে সমস্যাটি লক্ষণীয় তা হল কিছু মায়ের কিছু খারাপ অভ্যাস রয়েছে যা তাদের ভাঙতে হবে। কেউ নিখুঁত নয় তাই জীবনের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে নিজেকে কিছুটা সংশোধন করে ধীরে ধীরে সঠিক পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

সুতরাং, মা যদি জানেন যে, আপনি এই কয়েকটি অভ্যাসের সাথে লড়াই করছেন, আশা করি আপনি পরামর্শগুলো গ্রহণ করবেন এবং নিজেকে কিছুটা বদলে ফেলার জন্য কাজ করবেন।কিছু গবেষণায় উঠে এসছে কয়েকটি জিনিস বা অভ্যাস যা বদলালেই মা হওয়ার ক্ষমতা বেড়ে যাই কয়েকগুন।

নিচের বদঅভ্যাসগুলো ত্যাগ করুন:

মদ্যপান করা:

কেউ যদি বিভিন্ন ধরনের মাদক বা অ্যালকোহলে নেশাগ্রস্থ থাকেন তাহলে এটি স্বাভাবিক জীবনেও ত্যাগ করা জরুরি। মা হওয়ার ক্ষেত্রে এটি আরও জরুরি। কারণ, ফার্টিলিটির ক্ষেত্রে সমস্যা তৈরি করে মদ ও বিভিন্ন প্রকারের নেশা জাতীয় দ্রব্য।

ধূমপান করা:

অনেক নারীরা সিগারেট খান। মা হতে চাইলে এটি ত্যাগ করা অত্যন্ত জরুরি। সিগারেট খেলে পুরুষদের স্পার্মে সমস্যা হতে পারে এবং নারীর ক্ষেত্রে গর্ভধারণের ক্ষমতা হ্রাস পেতে পারে।

ব্যায়াম না করা:

ব্যায়াম বা শারীরিক পরিশ্রম না করার ফলে দিন দিন আপনি মোটা হয়ে যাচ্ছেন। আপনি হয়তো মনে করছেন আমি তো বুঝে শুনে খাবার খাচ্ছি। কিন্তু শরীরের ওজন কমছে না কেন? ব্যায়াম বা কায়িক পরিশ্রম না করলে শুধু খাবার কন্ট্রোল করে শরীর কমানো সম্ভব নয়। স্থূল বা মোটা শরীরে বাচ্চা ধারণ করা যে কোনো মায়ের জন্য অত্যন্ত্য ঝুঁকিপূর্ণ। মৃত্যুও হতে পারে।

ক্যাফেইন গ্রহণ:

চা, কফি খাওয়া কমাতে হবে। শরীরে ক্যাফেইন নেওয়া চলবে না।

সর্বদা চঞ্চল বা অস্থির হয়ে থাকা:

সর্বদা চঞ্চল ও অস্থির থাকলে এর প্রভাব আপনার অনাগত সন্তানের উপর পড়তে পারে।

কদাকার চলন ভঙ্গি:

কদাকার চলন ভঙ্গি আপনাকে অনেক বেশি ভোগাতে পারে। এটা আপনি না বুঝলেও আয়ত্বে আনুন এবং ভদ্রতা, শালীনতা বজায় রাখুন।

পুষ্টিকর খাবার না খাওয়া:

আজকাল অনেকেরই বাইরের খাবারের প্রতি আগ্রহ বেশি। বাইরের বলতে হোটেল, রেস্টুরেন্ট, বেকারি, ক্যাফেটেরিয়া থেকে আনা খাবার। ফাস্টফুডের প্রতিও অনেকটা ঝুকে পড়েছে। প্রথমেই আপনাকে নিজের ডায়েট চার্ট বদলাতে হবে। ফলমূল, সবুজ শাকসবজি, দুধ, ডিম্, মাংস অর্থাৎ ফাইবার, ভিটামিনস, মিনারেল ও অ্যন্টিঅক্সিডেন্ট যুক্ত খাবার খান বেশি করে খেতে হবে। ফল, সবজির সঙ্গে ডিম ও মাছ খাদ্য তালিকায় অবশ্যই রাখুন। এতে শুধু আপনার শরীর ভাল থাকবে না, গর্ভবতী হওয়ার জন্য শরীরে পরিবর্তন ঘটবে। যা অনেক বেশি সম্ভবনাময় করে তুলবে।

পর্যাপ্ত না ঘুমানো:

অনেকেরই ঘুমানোর টাইমের কোনো ঠিক নেই। কোনোদিন রাত দশটা, তো কোনোদিন বারোটা, তো কোনোদিন রাত দুটো। নির্দিষ্ট টাইমে ঘুমাতে যেতে হবে। ঘুমানোর আগে অনেকক্ষণ ধরে টিভি দেখবেন না বা টিভির দিকে তাকিয়ে থাকবেন না।

সূত্রঃ

www.imom.com, www.rush.edu

 

 

 

Share