দুধের সর ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে দেয় ও ত্বক আর্দ্র রাখে।

ত্বকের যত্নে দুধের সর অনেক উপকারী। প্রাচীনকাল থেকেই সৌন্দর্যচর্চার উপকরণ হিসেবে দুধ এবং দুধের সর শীর্ষে অবস্থান করছে। ইতিহাস থেকে জানা যায়, দুধের সর দিয়ে নিয়মিত ত্বকের পরিচর্যা করতেন মিশরের মহারানী।

দুধের সর ত্বককে ভেতর থেকে পরিষ্কার করে থাকে। যার ফলে সানট্যান ও কালচে দাগ সহজেই দূর হয়ে যায়। এছাড়াও দুধের সর ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে থাকে সঙ্গে আর্দ্রতাও যোগায়। বয়সের ছাপ দূর করতে অবশ্যই নিয়মিত দুধের সর ব্যবহার করতে পারেন। এতে থাকা প্রোটিন ত্বকের দাগ সৃষ্টিকারী মৃত কোষ দূর করে নতুন কোষ গঠনে সহায়তা করে।

আসুন এবার জেনে নেওয়া যাক, ত্বক উজ্জ্বল করতে দুধের সরের কয়েকটি ব্যবহার সম্পর্কে-

ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে দেয়:

ত্বককে উজ্জ্বল করতে দুধের সর খুবই উপকারী। দুধের সরের সঙ্গে এক চামচ মধু, এক চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিন। তারপর এই মিশ্রনটি মুখে লাগিয়ে ১০ থেকে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। ১০ থেকে ১৫ রেখে মুখটা ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত করতে পারলে ত্বক উজ্জ্বল হয়ে উঠবে।

ত্বকের ব্রণ কমিয়ে দেয়:

ত্বকের ব্রণ কমাতে দুধের সর খুবই কার্যকরী। এজন্য দুই চামচ দুধের সরের সঙ্গে এক চামচ মধু এবং অল্প পরিমাণে গরম পানি মিশিয়ে একটা পেস্ট তৈরি করুন। তারপর সেই পেস্টটা মুখে এবং গলায় লাগিয়ে কিছু সময় অপেক্ষা করতে হবে। এরপর মুখটা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।

ত্বক আর্দ্র রাখে:

যাদের সারা বছরই ত্বক শুষ্ক থাকে তারা দুধের সর মুখে লাগাতে ভুলবেন না। কারণ, দুধের সর হল প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার, যা ত্বকের হারিয়ে যাওয়া আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে। পাশাপাশি স্কিন সেলের নানা ক্ষতও দূর করে। ফলে ত্বক সুন্দর হয়ে ওঠে। এক চামচ দুধের সরের সঙ্গে সমপরিমাণ মধু মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। সময় হলে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে। সপ্তাহে অন্তত দুইবার এইভাবে ত্বকের যত্ন নিতে হবে।

ট্যান দূর করে:

ত্বকের হারিয়ে যাওয়া সৌন্দর্য ফিরিয়ে আনতে নিয়মিত মুখে লাগাতে শুরু করুন দুধের সর। দুই চামচ দুধের সরের সঙ্গে এক চামচ বেসন মিশিয়ে একটা পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। তারপর তা সারা মুখে লাগিয়ে সার্কুলার মোশনে অন্তত ৫ মিনিট ম্যাসাজ করতে হবে। এরপর দশ মিনিট অপেক্ষা। ১০ মিনিট পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিতে হবে।

ত্বককে পরিষ্কার করে:

সারাদিন ধরে বাহিরের ধূলো-বালি আমাদের ত্বকে লেগে মারাত্মক ক্ষতি করে। তাই দিনের শেষে দুধের সরকে কাজে লাগিয়ে ত্বককে পরিষ্কার করতে পারেন। আসলে দুধের সর স্কিনের ভিতরে লুকিয়ে থাকে ক্ষতিকর উপাদানগুলোকে বের করে দেয়। ফলে ত্বকের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটতে সময় লাগে না।

ত্বকে বয়সের ছাপ পড়তে দেয় না:

ত্বকে বয়সের ছাপ কমাতে মুখে লাগাতে শুরু করতে পারেন দুধের সর। এতে উপস্থিত প্রোটিন, ভিটামিন এবং উপকারী ফ্যাট ত্বকের ভিতরে যাওয়া মাত্র কোলাজেনের উৎপাদন বাড়িয়ে দেয়। ফলে নিমেষে উধাও হয়ে যায় ত্বকে উপস্থিত বলিরেখা। সঙ্গে ত্বকের ইলাস্টিসিটিরও উন্নতি ঘটে, যে কারণে ত্বকের বয়স কম মনে হয়। পাশাপাশি বাড়ে উজ্জ্বলতা।

ত্বকে মৃত কোষের আবরণ সরিয়ে দেয়:

ত্বকের জমে থাকা মৃত কোষের কারণে ত্বকের সৌন্দর্য্য নষ্ট হয়ে যায়। তাই ত্বকের পরিচর্যায় দুধের সরকে কাজে লাগাতে ভুলবেন না। এক্ষেত্রে, অল্প পরিমাণ পানি নিয়ে তাতে এক চিমটি লবণ দিয়ে ভাল করে ফুটিয়ে নিতে হবে। তারপর তাতে দুধের সর মিশিয়ে ২০ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। তারপর সেই মিশ্রনটি মুখে লাগিয়ে ভাল করে ম্যাসাজ করলেই ফল পাওয়া যাবে।

Share