গরম আবহাওয়া কি করোনাভাইরাস এর মহামারী কমাতে পারবে?

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ইতিমধ্যে করোনাভাইরাস 2019 (COVID-19) কে মহামারী হিসেবে ঘোষণা করেছে। করোনাভাইরাস একটি সংক্রামক ভাইরাস যা বিশ্বের শতাধিক দেশে এরই মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে। সবার স্বাস্থ্য সচেতনতা করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে খুবই জরুরী।

করোনাভাইরাস ও গরম আবহাওয়া

করোনাভাইরাস দ্বারা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ অঞ্চলগুলির মধ্যে – চীনের উহান (যেখানে প্রথম ভাইরাসটি সনাক্ত করা হয়েছিল), ইরান, ইতালি এবং দক্ষিণ কোরিয়া – এই অঞ্চলগুলির মধ্যে একই রকমের তুলনামূলক ঠান্ডা তাপমাত্রা এবং একই ধরনের আপেক্ষিক আর্দ্রতা রয়েছে।

অপরদিকে সিঙ্গাপুরে ১০০ টিরও বেশি করোনাভাইরাস রোগীর বিষয় জানা গেছে যদিও সেখানে এখন গরম আবহাওয়া বিরাজমান। অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল এবং আর্জেন্টিনা গ্রীষ্মের মাঝামাঝি সময়ে থাকলেও করোনাভাইরাস রোগী পাওয়া গেছে।

হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুল অনুসারে – আবহাওয়া উষ্ণ হয়ে গেলে করোনাভাইরাস এর বিস্তার কমবে কিনা এখনো নিশ্চিত নয়। তবে ভাইরাস, যেমন সাধারণ সর্দি বা ফ্লু, এগুলো শীতকালে বেশি ছড়িয়ে পড়ে।

করোনাভাইরাস ও মৃত্যুর ঝুঁকি

করোনভাইরাস সংক্রমণের সাথে মৃত্যুর ঝুঁকি খুবই কম। এখন পর্যন্ত পাওয়া ডেটা এনালাইসিস করে দেখা যায় যে, মহামারী করোনভাইরাস সংক্রমণের সাথে মৃত্যুর ঝুঁকি ৩% থেকে ৪% এর কাছাকাছি।

করোনাভাইরাসে ঝুঁকি কাদের বেশি?

বয়স্ক ব্যক্তিরা এবং যারা দীর্ঘস্থায়ী ব্রঙ্কাইটিস, এম্ফিসেমা, হার্ট ফেইলিওর বা ডায়াবেটিসের মতো স্বাস্থ্য সমস্যায় ভোগেন তাদের গুরুতর অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

করোনাভাইরাস ও মাস্ক পরার নীতি

বারবার কাশি বা হাঁচি হচ্ছে এমন শ্বাস প্রশ্বাসের লক্ষণগুলি থাকলে, বিশেষজ্ঞরা অন্যদের সুরক্ষার জন্য একটি মাস্ক পরার পরামর্শ দেন। এটি ফ্লু সহ যেকোন ধরণের ভাইরাস সংক্রামিত ব্যক্তির তিন থেকে ছয় ফিটের মধ্যে থাকা অন্য কাউকে রক্ষা করতে পারে। তবে এমন লক্ষণগুলি না থাকলে সবার মাস্ক পরতে হবে এমন নয়।

করোনাভাইরাসের কি কোনও ভ্যাকসিন পাওয়া যায়?

হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুল অনুসারে – করোনাভাইরাসের কোনও ভ্যাকসিন পাওয়া যায় না, যদিও বিজ্ঞানীরা খুব শীঘ্রই একটি ভ্যাকসিনের উপর মানুষের পরীক্ষা শুরু করবেন। তবে, কার্যকর কোনও ভ্যাকসিন পেতে সময় লাগতে পারে।

সূত্র: CNN, হার্ভার্ড মেডিকেল

Share