আলসার প্রতিরোধের উপায়।

আলসার হল আপনার শরীরের যে কোন অংশে, ভিতরে বা বাইরে ঘা। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে পেটের ভিতর আলসার পাওয়া যায় এবং এগুলি সাধারণত H. pylori নামে একটি ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সৃষ্ট হয়, যা পেটের আস্তরণকে জ্বালিয়ে দিতে পারে। আলসার নন-স্টেরয়েডাল অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি ড্রাগস (এনএসএআইডি) বা জোলিঞ্জার-এলিসন সিনড্রোমের কারণেও হতে পারে। একটি স্বাস্থ্যকর জীবনধারা বজায় রেখে, আপনি আপনার পেটকে আলসার তৈরিতে বাধা দিতে সাহায্য করতে পারেন।

আলসার প্রতিরোধের কয়েকটি উপায়

পানি পান করুণ:

আলসার প্রতিরোধে সবসময় বিশুদ্ধ পানি পান করুন। যেসব এলাকায় পানি সাধারণত ব্যাকটেরিয়া বহন করে সেখানে পানি পান করবেন না। বিশুদ্ধ বা স্বাস্থকর পানি পান না করার করণে পেটে আলসার হয়ে থাকে। দীর্ঘদিন ধরে লবণাক্ত পানি পান করার কারণেও পেটে আলসার হয়। তাই পানি পান করলে বিশুদ্ধ পানি পান করতে হবে।

হাত ভালভাবে ধুন:

সাবান দিয়ে ভালোভাবে হাত ধুতে হবে। এটি ব্যাকটেরিয়া পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। বাথরুম ব্যবহারের পর, খাবার খাওয়ার আগে ও পরে এবং বাইরে থেকে এলে ভালোভাবে হাত ধুয়ে নিন।

অ্যালকোহল থেকে বিরত থাকুন:

অ্যালকোহল পেটের শ্লৈষ্মিক আবরণকে পরিত্যাগ করতে পারে এবং এর অ্যাসিডের উৎপাদন বৃদ্ধি করতে পারে, যা আপনাকে আলসারের জন্য আরও সংবেদনশীল করে তুলতে পারে। অধিক মাত্রায় অ্যালকোহল পান করলে পেটের ভিতর ঘাঁ হয়ে থাকে। এর পাশাপাশি লিভার দূর্বল হয়ে যায়। তাই আলসার প্রতিরোধে একদমই অ্যালকোহল সেবন করা যাবে না।

ধূমপান ত্যাগ করতে হবে:

ধূমপান মানেই বিষপান। সিগারেট এবং অন্যান্য তামাকজাত দ্রব্য আলসারের ঝুঁকি বাড়ায়। ধূমপান করলে শরীরের উপর অনেক খারাপ প্রভাব পড়ে। ধূমপানের কারণে ক্ষুধা শক্তি কমে যায়। গলায় ও পেটের ভিতর ঘা সৃষ্টি হয়। তাই আলসার প্রতিরোধ করতে ধূমপান থেকে বিরত থাকতে হবে।

কফি কম পান করতে হবে:

কফিতে থাকে অধিক পরিমাণে ক্যাফিন উপাদান। ক্যাফিন আপনার পেটে অ্যাসিডের পরিমাণ বাড়ায়, যা আলসার হতে পারে। আপনি প্রতিদিন যে ক্যাফিনযুক্ত কফি পান করেন তা সীমিত করার চেষ্টা করুন এবং ক্যাফিনযুক্ত সোডা এবং এনার্জি ড্রিঙ্ক এড়িয়ে চলুন।

ব্যায়াম করুন:

মানসিক চাপ কমাতে নিয়মিত ব্যায়াম করুন, আরাম করুন এবং ঘুমান। স্ট্রেস একটি বিদ্যমান আলসারকে বিরক্ত করার চেয়ে বেশি জ্বালাতন করে। যদি আপনি আলসার প্রতিরোধ করতে চান, আপনার স্ট্রেসের মাত্রা কমিয়ে দিলে আপনার শরীর সুস্থ থাকবে। সপ্তাহে কমপক্ষে ২ ঘন্টা ব্যায়াম করা মানসিক চাপের মাত্রা কমাতে সাহায্য করতে পারে।

আলসার প্রতিরোধক খাবার খান:

আলসার প্রতিরোধে সাহায্য করে এমন খাবার খান। তাদের মধ্যে সক্রিয় খাবার যেমন দই, বাটার মিল্ক, ব্রকলি, পেঁপে এবং ফুলকপির মতো সবজি অন্তর্ভুক্ত। আলসার প্রতিরোধ করার সময় আপনার অন্ত্রের ভাল ব্যাকটেরিয়াকে সাহায্য করে এসব খাবার।