অ্যালঝাইমার বা ডিমেনশিয়া রোগে না ভুগতে আগে থেকেই এই খাবারগুলি খান।

ডিমেনশিয়া এবং আলঝাইমার রোগ খাদ্য ও পুষ্টির অভাব, জেনেটিক, পরিবেশগত এবং জীবনযাত্রার ধরণের সংমিশ্রণের কারণে ঘটে বলে বিভিন্ন গবেষণায় উঠে এসেছে। উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, ডায়াবেটিস এবং স্থূলতার মতো স্বাস্থ্য সমস্যার কারণেও স্মৃতিশক্তি হ্রাস পেতে পারে।

ভাল পুষ্টি অনুশীলন অর্থাৎ ডায়েটে পুষ্টিকর খাবার রাখা এবং প্রচুর স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া আপনার বয়স বাড়ার সাথে সাথে ডিমেনশিয়া এবং আলঝাইমার রোগের ঝুঁকি হ্রাস করতে সহায়তা করে।

সমীক্ষা বলছে, আয়ু বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে স্মৃতিশক্তি হারিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা গত কয়েক দশকে মারাত্মক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে সারা বিশ্বে প্রায় ৪৭ মিনিয়ন মানুষ অ্যালঝাইমার বা ডিমেনশিয়ার মতো স্মৃতিশক্তি লোপ পাওয়ার মতো রোগে ভুগছে।

বাংলাদেশেও সংখ্যাটা নেহাত কম নয়। কারণ আমাদের দেশেও মানুষের গড় আয়ু বাড়ছে। আর তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে অ্যালঝাইমার বা ডিমেনশিয়ার মতো রোগও।

প্রসঙ্গত, অ্যালঝাইমার হল এমন রোগ যাতে ব্রেন টিস্যুগুলি ধীরে ধীরে শুকিয়ে যেতে শুরু করে। ফলে সময় যত এগতে থাকে, তত স্মৃতিশক্তি লোপ পেতে শুরু করে। এক সময় গিয়ে তো নিজের পরিচয়টুকুও মনে রাখতে পারেন না রোগী। আর সবশেষে নিজেকে ভুলে গিয়ে জীবনের শেষ চ্যাপ্টারটা  কখন যে শেষ হয়ে যায়, তা রোগী জেনে উঠতেও পারেন না।

আপনিও কি চান নিজের সব থেকে বড় সম্পদ, স্মৃতিশক্তিকে হারিয়ে ফেলে ভয়ঙ্কর এক শেষ জীবন পেতে? উত্তর যদি না হয়, তাহলে এখন থেকেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিন।

এখন প্রশ্ন হল, কিভাবে মেমরিকে মেরামত করতে পারবেন, যাতে ফাঁক গোলে কোনও মধুর স্মৃতি পালিয়ে যেতে না পারে? এক্ষেত্রে কতগুলি খাবার দারুন উপকারে আসে। একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে কিছু খাবার আছে যেগুলি কম বয়স থেকেই নিয়মিত খেতে শুরু করলে ব্রেন পাওয়ার এতটাই বাড়ে যে স্মৃতিশক্তি লোপ পাওয়া আশঙ্কা একেবারে কমে আসে। প্রসঙ্গত, যে যে খাবারগুলি এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে, সেগুলি হল…

সবুজ পাতাওয়ালা তাজা শাকসবজি:

পালংশাক, কুমড়ো শাক, লাউশাক, ক্যাল, কলার্ড গ্রিন, সুইস চার্ড এবং রোমেনের মতো গাঢ় সবুজ শাকগুলিতে ফোলেট এবং বি 9 এর মতো প্রয়োজনীয় বি ভিটামিনগুলি দ্বারা পূর্ণ যা ডিপ্রেশন হ্রাস করতে সহায়তা করতে পারে, পাশাপাশি জ্ঞানকে বাড়িয়ে তোলে। মস্তিষ্ক-বর্ধনকারী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন কে বেশি থাকে। প্রতিদিন এক কাপ খাওয়ার চেষ্টা করুন।

জাম বা বেরি জাতীয় ফল:

জামে অ্যান্থোসায়ানিন নামে একটি ফ্ল্যাভোনয়েড থাকে যা ফ্রি র‌্যাডিক্যাল দ্বারা পরিচালিত মস্তিষ্কের ক্ষতির অগ্রগতি থামিয়ে দেয়।  রাস্পবেরি, ব্লুবেরি, ব্ল্যাকবেরি এবং চেরি সবগুলিতে ফ্ল্যাভোনয়েড, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন রয়েছে যা প্রদাহ হ্রাস করতে সহায়তা করে এবং আপনাকে মস্তিষ্কের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে সহায়তা করে। সপ্তাহে তিনবার যেকোন বেরি ১/২ কাপ খাওয়ার চেষ্টা করুন।

আঙুর বা আঙুরের রস:

এতে থাকা কেভারেটল নামক একটি উপাদান মস্তিষ্কের খেয়াল রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই তো বেশি মাত্রায় এই ফলের রসটি খাওয়া শুরু করলে ব্রেন পাওয়ার কমে যাওয়ার আশঙ্কা তো কমেই। সেই সঙ্গে কোনো ধরনের ব্রেন ডিজিজে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনাও আর থাকে না। এবার বুঝেছেন তো কী কারণে নিয়মিত এক গ্লাস করে আঙুরের রস খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন নিউরোলজিস্টরা।

ব্রাহ্মি শাক:

এই শাকটিতে থাকা নিউরোপ্রটেকটিভ এজেন্ট স্মৃতি শক্তি বাড়ানোর পাশাপাশি ডিপ্রেশন এবং অ্যাংজাইটি কমাতেও দারুন কাজে আসে। তাই তো যারা কাজের চাপে বা অন্য কোনো কারণে বেজায় মানসিক চাপের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছেন, তারা এই শাকটি খাওয়া শুরু করতে পারেন। দেখবেন উপকার মিলবে।

 মশলা:

কালোজিরা, জিরা এবং দারুচিনি জাতীয় মসলায় যেমন রয়েছে দুর্দান্ত স্বাদ তেমনি এগুলিতে প্রচুর পরিমাণে পলিফেনল থাকে – এমন যৌগিক যা স্মৃতি এবং মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যের জন্য অসংখ্য সুবিধা দেয়। এই মাসলাগুলিতে জ্ঞানীয় দুর্বলতা এবং আলঝাইমার প্রতিরোধ করতে  এবং প্রদাহ হ্রাস করার ক্ষমতা রয়েছে।

এক চামচ মধুর সঙ্গে এক চিমটে দারুচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে খেতে পারেন। এটা মস্তৃস্কের জন্য ভালো। এছাড়া এক-থেকে দুই চামচ মধুর সাথে হাফ চামচ কালোজিরা মিশিয়ে খাওয়া শুরু করুন। তাহলেও স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পায়।

বাদাম:

আনসলেটড বাদামে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং স্বাস্থ্যকর ফ্যাট বেশি থাকে। ওমেগা -3 ফ্যাটি অ্যাসিড, মস্তিষ্ক-প্রতিরক্ষামূলক পুষ্টিতে আখরোট বিশেষত বেশি। প্রতিদিন ১/৪ কাপ বাদাম বা দুই টেবিল চামচ বাদামের জন্য লক্ষ্য করুন।

এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড। এই দুটি উপাদান স্মৃতিশক্তির উন্নতি ঘটানোর পাশাপাশি সার্বিকভাবে ব্রেন পাওয়ার বাড়াতেও বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। এক্ষেত্রে ৫-১০ টা বাদাম এক গ্লাস পানিতে সারা রাত ভিজিয়ে রাখার পর সকালে উঠে বাদামটা বেটে নিন। তারপর এক গ্লাস গরম দুধের সঙ্গে সেই বাদামের পেস্টটা ফুটিয়ে নিয়ে খেয়ে ফেলুন। এই পানীয়টি টানা ৩০-৪০ দিন যদি খেতে পারেন তাহলে পরিবর্তনটা নিজেই বুঝতে পারবেন।

হলুদ:

বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে হলুদের ভেতরে থাকা কার্কিউমিন নামক উপাদানটি স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর পাশাপাশি অ্যালঝেইমার্সের মতো ব্রেন ডিজিজের হাত থেকে বাঁচাতেও বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই স্মৃতিলোপের মতো ভয়ঙ্কর রোগের শিকার হতে যদি না চান, তাহলে এখন থেকেই প্রতিদিন সকালে অল্প করে কাঁচা হলুদ খাওয়া শুরু করুন। দেখবেন দারুন উপকার পাবেন।

মাছ:

সমস্ত ধরণের মাছের আয়োডিন এবং আয়রন জ্ঞানীয় ফাংশন বজায় রাখতে সহায়তা করে বলে মনে করা হয়। ইলিশ মাছ, রূপচাঁদা মাছ এর মতো সামুদ্রিক ফ্যাটি ফিশেও মস্তিষ্ক-বর্ধনকারী ওমেগা -3 ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে।

 বীজ:

সূর্যমুখী বীজ, স্কোয়াশের বীজ এবং কুমড়োর বীজের মধ্যে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন ই, জিঙ্ক, ওমেগা -3, এবং কোলাইন জাতীয় পুষ্টি থাকে যা স্মৃতিশক্তি ধরে রাখে।  এই বীজগুলি নিজেই উদ্যোগ নিয়ে ব্রেকফাস্টের ডায়েটে রাখুন, সালাদগুলিতে ছিটিয়ে দিন। নিয়মিত খান। উপকার পাবেন।

আমলকি:

২০০৭ সালে জার্নাল অব ফিজিওলজি অ্যান্ড বিহেবিয়ারে প্রকাশিত এক রিপোর্ট অনুসারে আমলকিতে থাকা ভিটামিন সি অ্যালঝাইমার রোগকে দূরে রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। সেই সঙ্গে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উন্নতি ঘটিয়ে নানাবিধ রোগকে দূরে রাখতেও সাহায্য করে থাকে। এক কথায় ব্রেনের পাশাপাশি যদি শরীরের খেয়াল রাখতে চান, তাহলে আমলকি খেতে ভুলবেন না যেন!

ডালিম:

একাধিক গবেষণায় গেছে এই ফলটিতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরের পাশাপাশি মস্তিষ্ককে নানাসব ক্ষতিকর উপাদান থেকে বাঁচাতে এবং সার্বিকভাবে এদের কর্মক্ষমতা বাড়াতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই কম বয়সেই যদি স্মৃতিলোপের খপ্পরে পরতে না চান, তাহলে এখন থেকেই প্রতিদিন এই ফলটি খাওয়া শুরু করুন। দেখবেন দারুন উপাকার পাবেন।

ক্রুসীফেরাস সবজি:

ব্রোকোলি, ফুলকপি এবং ব্রাসেলস স্প্রাউটগুলিতে ভিটামিন কে এবং গ্লুকোসিনোলেটস বেশি, যার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রভাব রয়েছে। আপনার ডায়েটে সপ্তাহে কমপক্ষে তিন / 2 কাপ পরিবেশন অন্তর্ভুক্ত করুন।

ওমেগা -৩:

অলিভ অয়েল, ফ্ল্যাক্স বীজ এবং টুনা, স্যামন এবং ম্যাকেরেলের মতো ফ্যাটযুক্ত মাছগুলি ডিএইচএর সাথে ওমেগা -3 ফ্যাটি অ্যাসিডের উচ্চ খাবারের উদাহরণ যা আপনার মস্তিষ্ককে সুস্থ রাখতে সহায়তা করে। অনেক গবেষণায় প্রমাণিত হয় যে ওমেগা -3 ডিমেনশিয়া প্রতিরোধ এবং প্রতিরোধে কার্যকর এবং মস্তিষ্কের সুস্বাস্থ্য অর্জনের জন্য 200 মিলিগ্রাম ডিএইচএ প্রতিদিন গ্রহণের পরামর্শ দেয়। তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ডিএইচএর গড় দৈনিক গ্রহণের পরিমাণ প্রায় 80 মিলিগ্রাম। বেশি পরিমাণে ওমেগা -3 এস সেবন করার জন্য সচেতন প্রচেষ্টা করুন বা আপনার ডাক্তারকে নিরাপদ, কার্যকর ডিএইচএ পরিপূরকের পরামর্শ দিতে বলুন।

মটরশুটি:

মটরশুটি, মসুর এবং ছোলা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস, ফাইবার, ভিটামিন এবং খনিজগুলির সংমিশ্রণের কারণে সম্ভবত। সপ্তাহে কমপক্ষে দু’বার লাল মাংসের প্রতিস্থাপন হিসাবে আপনার ডায়েটে 1/2 কাপ অন্তর্ভুক্ত করুন।

পুরো শস্য:

ওট, ব্রাউন রাইস এবং গমের মতো ফাইবার সমৃদ্ধ গোটা শস্য খেতে হবে।

পোল্ট্রি:

লাল বা প্রক্রিয়াজাত মাংসের না খেয়ে মুরগির মাংস খান।

কম ফ্যাটযুক্ত দুগ্ধ ও টক দই:

কম ফ্যাটযুক্ত দুধ অর্থাৎ পাতলা দুধ খাওয়া ভালো। টক দই অন্ত্রবান্ধব ব্যাকটেরিয়াতে পূর্ণ।

জলপাই তেল বা তিলের তেল বা সরিষার তেল:

রান্নার জন্য এবং সালাদ ড্রেসিংয়ে এটি আপনার প্রধান তেল হিসাবে ব্যবহার করুন। এটিতে মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং ভিটামিন ই ও  অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে।

সূত্রঃ

https://healthcareassociates.com/7-foods-that-can-fight-dementia-and-alzheimers-disease/

https://www.mayoclinic.org/diseases-conditions/alzheimers-disease/in-depth/15-simple-diet-tweaks-cut-alzheimers-risk/art-20342112