অ্যান্টিবায়োটিক কি? ডাক্তার কেন অ্যান্টিবায়োটিক ঔষুধ দেন?

অ্যান্টিবায়োটিক শব্দটির সাথে আমরা কম বেশি সবাই পরিচিত। অ্যান্টিবায়োটিক শব্দের অর্থ “জীবনের বিরুদ্ধে”। শরীরে জীবাণু মারার যেকোনো ঔষুধকেই বলা যায় অ্যান্টিবায়োটিক।

অ্যান্টিবায়োটিক কি?

অ্যান্টিবায়োটিক এমন ওষুধ যা ব্যাকটেরিয়াগুলির বৃদ্ধি হ্রাস করে বা মেরে ফেলে। অ্যান্টিবায়োটিক অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়ালস নামেও পরিচিত।

অনেক ধরনের শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ রয়েছে এবং এটি ব্যাকটিরিয়াজনিত রোগের চিকিত্সার জন্য ব্যবহৃত হয়।

ভাইরাল সংক্রমণের ফলে যেসব রোগ হয় যেমন সর্দি, ফ্লু বা কাশি ইত্যাদির চিকিত্সায় অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করতে পারে না।

অ্যান্টিবায়োটিক আবিষ্কারের সুবিধা?

বিজ্ঞানীরা ১৯২০ এর দশকে প্রথম অ্যান্টিবায়োটিক আবিষ্কার করার আগে, গলায় ব্যাকটিরিয়ার ছোট সংক্রমণের ফলেও অনেক মানুষ মারা যেত। যেকোনো ধরণের সার্জারিও ঝুঁকিপূর্ণ ছিল।

তবে ১৯৪০ এর দশকে অ্যান্টিবায়োটিক সহজলভ্য হওয়ার পরে, মানুষের আয়ু বৃদ্ধি পায়, সার্জারিগুলিও নিরাপদ হয়ে যায় এবং যেগুলো মানুষের জন্য মারাত্মক সংক্রমণ ছিল সেগুলো থেকে মানুষ বেঁচে যায়।

ডাক্তার কেন অ্যান্টিবায়োটিক দেন?

আমাদের শরীরে বাস করা বেশিরভাগ ব্যাকটিরিয়া ক্ষতিকর নয়। এমনকি কিছু ব্যাকটিরিয়া শরীরের জন্য ভালো। তবুও, ব্যাকটিরিয়া আমাদের যেকোনো অঙ্গে সংক্রামিত করতে পারে।

ব্যাকটিরিয়ার সাধারণ সংক্রমণ এমনিতেই ভালো হয়ে যায় আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার মাধ্যমে। তবে ব্যাকটিরিয়ার গুরুতর সংক্রমণে আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয়ে যায় তখন অ্যান্টিবায়োটিকগুলি খুবই কার্যকরী।

ডাক্তার যদি বুজতে পারেন যে, রোগীর গুরুতর অসুস্থতা ব্যাকটিরিয়ার সংক্রমণে তাহলে সে অ্যান্টিবায়োটিক ঔষুধ দেন। রোগীর সংক্রমণ ভাইরাল না ব্যাকটেরিয়াল তা সর্বদা সুস্পষ্ট নয়। এজন্য কখনও কখনও চিকিত্সার প্রয়োজন সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে ডাক্তার বিভিন্ন পরীক্ষা করেন।

কিছু অ্যান্টিবায়োটিক বিভিন্ন ধরণের ব্যাকটেরিয়ায় বিরুদ্ধে কাজ করে। তাদের “ব্রড স্পেকট্রাম” অ্যান্টিবায়োটিক বলা হয়। কিছু অ্যান্টিবায়োটিক কেবল নির্দিষ্ট ব্যাকটিরিয়াকে লক্ষ্য করে। তাদের “সংকীর্ণ স্পেকট্রাম” অ্যান্টিবায়োটিক বলা হয়। এজন্য অ্যান্টিবায়োটিক অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী নেওয়া উচিত।

অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে চিকিৎসা

অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা করা যেতে পারে। নিচে কয়েকটি উল্লেখ করা হলো –

  • কান এবং সাইনাস সংক্রমণ
  • দাঁতের সংক্রমণ
  • ত্বকের সংক্রমণ
  • মেনিনজাইটিস (মস্তিষ্ক এবং মেরুদণ্ডের ফোলা)
  • গলায় ব্যাকটিরিয়া সংক্রমণ
  • মূত্রাশয় এবং কিডনি সংক্রমণ
  • ব্যাকটিরিয়া নিউমোনিয়াস
  • হুপিং কাশি

অ্যান্টিবায়োটিকের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া:

যেহেতু আমাদের অন্ত্রটি ব্যাকটিরিয়ায় পূর্ণ – ভাল এবং খারাপ উভয়ই – অ্যান্টিবায়োটিকগুলি সংক্রমণের চিকিৎসা করার সময় প্রায়শই আমাদের পাচনতন্ত্রকে প্রভাবিত করে। সাধারণ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলির মধ্যে রয়েছে:

  • বমি
  • বমি বমি ভাব
  • অতিসার
  • ফুলে যাওয়া বা বদহজম
  • পেটে ব্যথা
  • ক্ষুদা না লাগা
  • চুলকানি বা ত্বকে ফুসকুড়ি
  • কাশি
  • শ্বাসকষ্ট

অ্যান্টিবায়োটিকের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া গুরুতর হলে অবশ্যই অবিলম্বে আপনার ডাক্তারকে জানান।

অ্যান্টিবায়োটিকের অতিরিক্ত বা ভুল ব্যবহারে কি হয়?

মানুষ যদি অ্যান্টিবায়োটিকগুলি অতিরিক্ত ব্যবহার করে বা সেগুলি ভুলভাবে ব্যবহার করে তবে ব্যাকটিরিয়া প্রতিরোধী নাও হতে পারে। এর অর্থ অ্যান্টিবায়োটিক সেই ধরণের ব্যাকটিরিয়ার বিরুদ্ধে কম কার্যকরী হয়, কারণ সংক্রমিত ব্যাকটিরিয়াম তার প্রতিরক্ষা ব্যাবস্থা উন্নত করতে পারে।

Share