হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা কি? হোমিওপ্যাথিক ও অ্যালোপ্যাথিক ঔষধ কি একসাথে খাওয়া যায়?

হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা পদ্ধতি যা ২০০ বছরেরও বেশি আগে জার্মানিতে জার্মান চিকিৎসক স্যামুয়েল হ্যানিম্যান উদ্ভাবিত ১৭৯৬ সালের একটি চিকিৎসা। এই চিকিৎসার মূলনীতি হচ্ছে কোনো একজন সুস্থ ব্যক্তির শরীরে যে ওষুধ প্রয়োগ করলে তার মধ্যে যে লক্ষণ দেখা দেয়, ওই একই ওষুধ সেই লক্ষণের ন্যায় অসুখে আক্রান্ত ব্যক্তির উপরে প্রয়োগ করলে তা অসুস্থ ব্যক্তির জন্য অসুখের লক্ষণ নিরাময়ের কাজ করে। হ্যানিম্যানের এই তত্ত্বের ভিত্তিতে গড়ে উঠেছে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা।

হোমিওপ্যাথিক ও অ্যালোপ্যাথিক ঔষধ কি একসাথে খাওয়া যায় কিনা তা নিচে আলোচনা করা হলো:

যদি হোমিও ডাক্তার ক্লাসিক্যাল ট্রিটমেন্ট দিয়ে থাকেন তাহলে হোমিওপ্যাথিকের সাথে এলোপ্যাথিক ঔষধ খাওয়া যাবে না। আমাদের মনে রাখা দরকার যে এলোপ্যাথিক ঔষধ এমনিতেই আমাদের জন্য ক্ষতিকর।

সেগুলি মানব দেহের যেমন উপকার করে তেমন ক্ষতিও করে থাকে। অনেক সময় দেখা যায় কিছু এলোপ্যাথিক ঔষধ নিষিদ্ধ করা হচ্ছে কারন এসব ঔষধ আরো জটিল এবং দুরারোগ্য রোগ সৃষ্টি করছে। এছাড়া ৫০% রোগের কোন স্থায়ী এলোপ্যাথিক চিকিৎসা নেই যেগুলো হোমিও চিকিৎসায় ভালো হয়।

হোমিওপ্যাথিক ঔষধ ও এলোপ্যাথিক ঔষধ একসাথে খাওয়া যাবে না৷ এটি হোমিওপ্যাথিক মেটরিয়া মেডিকার ( হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসার বই) এর কথা৷ কাজেই দুইটা ঔষধ একসাথে খাওয়া যাবেনা। যদি আপনি একসাথে দুইটা খান তহলে হোমিওপ্যাথিক ঔষধ কাজ করবে না।

বিঃ দ্রঃ ঔষধ খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

রেফারেন্স: