স্বার্থপর মানুষ চেনার উপায়।

স্বার্থপর মানুষ সবসময় নিজের দিকটাই বড় করে দেখে। অন্যের স্বার্থ তাদের কাছে তুচ্ছ। এদেরকে সমাজে স্বার্থপর মানুষ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। প্রথম দেখাতে সব মানুষকে চেনা যায় না।

নিজের স্বার্থকে বড় করে দেখেন এমন মানুষ অনেক আছে। এ ধরণের স্বার্থপর মানুষ আমাদের ক্ষতির কারণ হতে পারে। এমন মানুষের জন্য জীবন বিবর্ণ হতে পারে। তাদের চেনার কিছু উপায় আছে। সে সব উপায় জানা থাকলে স্বার্থপরদের এড়িয়ে নিজের অবস্থান ঠিক রেখা সম্ভব।

স্বার্থপর মানুষ চেনার উপায় নিচে আলোচনা করা হলো:

সন্তুষ্টির অভাব:

স্বার্থপর মানুষগুলোর জীবন যতই ভালো কাটুক না কেন তারা খুশি হতে পারেনা। তাদের চাহিদা থাকে প্রচুর তাদের চাহিদার কোনো সীমা থাকে না জীবনে যতই প্রাপ্তি আসুক না কেন। তারা সবসময়ই কিছু না কিছু অর্জনের চেষ্ট করে। জীবনে সফল হওয়ার চেষ্টা থাকা ভালো। তবে নিজের যা আছে সেটুকুর মূল্যায়ন না করা ঠিক নয়, সেগুলোর জন্য কৃতজ্ঞ না হওয়া ভালো নয়।

সবসময় তারাই ভুক্তভোগী:

তারা সবসময় ভুক্তভোগী হওয়ার অভিনয় করে থাকে। সবসময় নিজেদের ভুক্তভোগী মনে করে চিন্তাধারায় স্বার্থপর মানুষগুলো। তারাই যেন সব চেয়ে কষ্টে আছে। আপনি যদি কিছু তে অভিযোগ করেন তাহলে তারা এমন কিছু উদাহরণ তুলে ধরবে যেখানে তাদের পরিস্থিতি আরও খারাপ।

আর আপনি যদি তাদের সহানুভূতি বা সমাধানের পথ দেখান তাতে তারা আগ্রহ দেখাবে না।

হিংসাপরায়ন:

এই স্বার্থপর মানুষগুলো অন্যেকে প্রাপ্তি লাভ করতে দেখলে তখন তা নিজের জন্য আশা করা শুরু করে। তবে সেটা অনুপ্রেরণার দৃষ্টিতে না। তারা সবসময় অন্যের সঙ্গে নিজের জীবনকে তুলনা করে।

অন্যের কি কি আছে যা আমার নেই এই হিংসায় নিমজ্জিত থাকে তারা সবসময়। তবে আমার কাছে কি আছে যা অন্যের কাছে নেই এটা বিচার করে না।

নিজের প্রয়োজন বেশি গুরুত্বপূর্ণ:

স্বার্থপর মানুষগুলো তখনই কারও সঙ্গে যোগাযোগ করে যখন কারো কাছ থেকে তার কিছু একটা প্রয়োজন হয়। এমনকি প্রয়োজন ছাড়া কারো খোঁজ নেওয়ার প্রয়োজন মনে করে না। তাদের ধারণা এমন হয় যে আপনাকে সবসময়ই তারা পাশে পাবে।

ব্যর্থতার দিক এড়িয়ে যাবে:

জীবনে অনেক ব্যর্থতার দিক থাকে কিন্তু স্বার্থপর মানুষগুলো নিজের ব্যর্থতার দিকগুলো এড়িয়ে যাবে। এমনকি যখন তার কাছের বন্ধু বিপদে বা খারাপ পরিস্থিতিতে থাকবে তখন সে তাদের এড়িয়ে চলবে। এরা সম্পর্কের ক্ষেত্রে অন্যকে সন্দেহের চোখে দেখে। এরকম ভাবে সম্পর্ক নষ্ট করলে তাদের অন্য কেউ আর তাকে বিশ্বাস করে না।

তাদের চাওয়ার শেষ নেই:

বেশিরভাগ মানুষই অন্যের কাছ থেকে কিছু চাইতে কুন্ঠাবোধ করে থাকে। তবে স্বার্থপর মানুষগুলোর এই সমস্যা থাকে না। খুব সহজ ভাবে তারা অন্যের কাছে কিছু চাইতে পারে। তাদের চাওয়ার কোনো শেষ থাকে না।

সবসময়ই তাদের মনে হয় যে তাদের কিছু না কিছু প্রয়োজন। তারা যদি আপনার জন্য একবার ভালো কিছু করে থাকে তখন আপনার কাছ থেকে আরো অনেক বেশি উপকার আশা করে।

নিজেকে নেতা হিসেবে জাহির করে:

সফল হতে না পারলেও তারা নিজেকে সর্বদা নেতৃত্বের পর্যায়ে রাখতে চান। এরা সবসময় নিজেকে সবার সামনে নেতা হিসেবে দেখতে চায়। কিন্তু সঠিক নেতৃত্ব দিতে পারছে কিনা তা খেয়াল করে না। তারা নেতা হতে চায় যে করেই হোক না কেন।

আত্মমর্যাদায় তুঙ্গে:

নিজেকে সব সময় উঁচুতে রাখতে চায়। এরা সবসময় উচ্চ আত্মমর্যাদায় রাখতে চায় নিজেকে। এই ধরনের স্বার্থপরকে খুব আত্মবিশ্বাসী বলে মনে হয়।

এসব দিকে খেয়াল রাখলে আমরা স্বার্থপর মানুষগুলো সহজে চিনতে পারবো।