সন্তানের উচ্চতা বাড়ানো বা লম্বা হওয়ার কিছু কৌশল জেনে নিন।

সকল পিতামাতাই সন্তানের ভালো চান। সন্তান হৃষ্টপুষ্ট ও বুদ্ধিমানতো হবেই সেই সাথে হবে লম্বা আর শক্তিশালী। বয়সের সাথে সাথে সন্তান যদি লম্বা না হয় অর্থাৎ খাটো বাচ্চা কেউ চাই না।

শিশু সঠিকভাবে বাড়ছে কিনা সেই নজর যেমন বাবা-মাকে রাখতে হবে তেমনি বাবা-মা খুব সহজে সমবয়সী অন্য শিশুদের সঙ্গে তুলনা করলে বিষয়টি সহজে পরিষ্কার হয়ে যাবে।

অনেকেই জানেন হয়তো সন্তানের উচ্চতা নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে জিন বা জেনেটিক উপাদান। কিন্তু এটি একমাত্র ফ্যাক্টর নয় যা উচ্চতাকে প্রভাবিত করে। বেশ কয়েকটি কারণ আপনার সামগ্রিক উচ্চতায় অবদান রাখে। ধারণা করা হয় যে জেনেটিক উপাদানগুলি আপনার চূড়ান্ত উচ্চতার অর্ধ শতাংশের বেশি প্রভাবিত করে।

কিছু উপাদান যেমন:  যে পরিবেশে সে বেড়ে উঠছে, খাবার বা পুষ্টি এবং অনুশীলন বা শরীরচর্চা বা ব্যায়াম, সাধারণত বাকি শতাংশের জন্য থাকে।

বয়স ১ এবং বয়ঃসন্ধিকালের মধ্যে, বেশিরভাগ মানুষ প্রতি বছর প্রায় 2 ইঞ্চি উচ্চতা অর্জন করে। বয়ঃসন্ধি পার হয়ে গেলে আপনি প্রতি বছর 4 ইঞ্চি হারে বাড়তে পারেন। তবে সবাই আলাদা গতিতে বেড়ে ওঠে।

মেয়েদের ক্ষেত্রে, এই বৃদ্ধির প্রবাহ সাধারণত কিশোর বছরের শুরুতে শুরু হয়। ছেলেরা কিশোর বয়স শেষ না হওয়া অবধি উচ্চতার এই হঠাৎ বৃদ্ধি অনুভব করতে পারে না। প্রাপ্তবয়স্ক হিসাবে আপনার উচ্চতা বাড়ার সম্ভাবনা কম।

জেনে নিন আপনার সন্তানের উচ্চতা বাড়ানোর কিছু সহজ উপায়:

পুষ্টিকর ও সুষম খাদ্য খাওয়া:

সন্তানের উচ্চতা বাড়ানোর সবথেকে ভালো উপায় হলো শরীরে সঠিক ও পর্যাপ্ত পরিমানে পুষ্টির যোগান দেওয়া। সুষম ডায়েটে সঠিক অনুপাতে প্রোটিন, শর্করা, চর্বি এবং ভিটামিন থাকা উচিত। যেমনঃ জিঙ্ক ও ভিটামিন ডি আপনার সন্তানের বৃদ্ধিতে বড় ধরণের ভূমিকা পালন করে। সুতরাং সকল রকমের বাদাম এবং কুমড়ো ও স্কোয়াশ বীজের মতো খাবারগুলো তাদের ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করুন।

আপনার ক্রমবর্ধমান বছরগুলিতে, আপনার দেহের প্রয়োজনীয় পুষ্টিগুলির সমস্ত পাওয়া আপনার পক্ষে গুরুত্বপূর্ণ।

আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত:

তাজা ফল
তাজা সবজি
আস্ত শস্যদানা
প্রোটিন
দুগ্ধ
আপনার খাবারগুলি সীমিত বা এড়ানো উচিত:

চিনি
ট্রান্স ফ্যাট
সম্পৃক্ত চর্বি
ভিটামিন ডি হাড়ের গঠন ও বৃদ্ধিতে কাজ করে। ভিটামিন ডি ক্যালসিয়াম শোষণে সাহায্য করে। ভিটামিন ডি এর সাধারণ উৎসগুলির মধ্যে রয়েছে ডিম্, দুধ এবং মাশরুম। আপনি যদি আপনার ডায়েটে পর্যাপ্ত ভিটামিন ডি না পেয়ে থাকেন তবে আপনার প্রস্তাবিত দৈনিক পরিমাণ মেটাতে পরিপূরক গ্রহণের বিষয়ে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন।

এটি প্রায়শই সুপারিশ করা হয় যে 50 বছরের বেশি বয়সের মহিলাদের এবং 70 বছরের বেশি বয়সী পুরুষদের প্রতিদিন 1,200 মিলিগ্রাম (মিলিগ্রাম) ক্যালসিয়াম গ্রহণ করা উচিত।

সন্তানের উচ্চতা সর্বাধিক করতে যোগব্যায়াম করান:

গার্ডিয়ান হিসাবে আপনি যোগ ব্যায়াম করুন। এতে সে আপনার কাছ থেকে কিছু অনুপ্রেরণা পাবে। টিভি, ফেসবুক, youtube এগুলোর সাহায্যও নিতে পারেন। অনেক বাচ্চাই সামাজিক এই যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যানে এগুলো সম্পর্কে অবগত। যোগব্যায়াম অনুশীলনে প্রচুর পরিমাণে প্রসারিত এবং ভারসাম্য জড়িত, উভয়ই আপনার বাচ্চার উচ্চতার জন্য দুর্দান্ত। আপনার বাচ্চাকে কিছু যোগ আসন যেমন: গরুড়াসন, বৃক্ষাসন, চক্রাসন, ধনুরাসন ইত্যাদি অভ্যাস করান।

এই পুরো শরীরের অনুশীলনটি আপনার পেশীগুলিকে শক্তিশালী করতে, আপনার শরীরকে সারিবদ্ধ করতে এবং আপনার ভঙ্গিতে সহায়তা করতে পারে। এটি আপনাকে লম্বা হতে সাহায্য করবে।

আপনি নিজের বাড়িতে স্বাচ্ছন্দ্যে বা আপনার স্থানীয় জিম বা স্টুডিওতে একটি গ্রুপ সেটিংয়ে যোগ অনুশীলন করতে পারেন। কোথা থেকে শুরু করবেন তা আপনি যদি নিশ্চিত না হন তবে ইউটিউবে একটি প্রাথমিক যোগব্যায়াম সন্ধান করুন।

হ্যাগিং:

উচ্চতা বৃদ্ধির জন্য কয়েক দশক ধরে হ্যাগিং পরিচিত একটি উপায়। এটি মেরুদন্ডকে দীর্ঘায়িত করতে সহায়তা করে যা লম্বা হওয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। নিয়মিত হ্যাগিং ছাড়াও পুল আপ ও চিনআপ আপনার সন্তানের উচ্চতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

স্কিপিং বা দড়ির লাফ:

শিশুরা অল্প বয়সে দড়ির লাফ খেলে থাকে। এতে ওরা খুব মজা পাই কারণ বাচ্চারা এটা নিয়ে প্রতিযোগিতা করে। কে কার থেকে কত বেশি লাফালো বা নির্দিষ্ট এতবার(১০০ বা ২০০) লাফালে সে উঠা বা প্রথম এই রকম আর কি? খেলার ছলে শরীরচর্চা যেটা পুরো দেহে কাজ করে এবং উচ্চতা বাড়াতে সাহায্য করে। এটি একটি ভালো কার্ডিও ওয়ার্কআউট যা আপনার সন্তানকে সক্রিয় এবং স্বাস্থ্যকর রাখতে সহায়তা করে।

সাঁতার:

সাঁতার আরেকটি স্বাস্থ্যকর এবং আনন্দদায়ক শরীরচর্চা যা আপনার সন্তানের সামগ্রিক বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। এটি একটি পুরো শরীরের ব্যায়াম যা শরীরের সব পেশিতে কাজ করে। নিয়মিত সাঁতার কাটলে মেরুদন্ড শক্তিশালী হয় এবং উচ্চতা বৃদ্ধি পায়।

ভালো ঘুম:

রাতে ভালো ঘুম শিশুদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। শিশুদের বেশি চাপে রাখবেন না। তাদের ভালো করে ঘুমাতে দিন। এটি তাদের বৃদ্ধিতে ও বুদ্ধির বিকাশে দারুন ভাবে সাহায্য করে।

 

 

Share