মুগ ডাল স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়, রক্তের শর্করার মাত্রা কমায় ও গর্ভবতী মহিলাদের জন্য ভালো।

মাছে ভাতে বাঙালি হলেও সেখানে ডালের ভূমিকাও কিন্তু কম নয়। বাঙালির পাতে মাছের পাশাপাশি ডালও সমান গুরুত্ব পায়। ছোলার ডাল, মসুর ডাল, মুগ ডাল, অড়হর ডাল, মাসকলইয়ের ডাল ইত্যাদি।

প্রোটিনের অন্যতম উৎস ডাল। আমিষ ও নিরামিষাশী সবার ক্ষেত্রেই প্রোটিনের প্রয়োজন মেটায় ডাল। ইংরেজিতে mung bean এবং বৈজ্ঞানিক নাম: Vigna radiata.

মুগ ডাল দিয়ে খিচুড়ি বা মাছের মাথা দিয়ে মুগ ডাল আহ শুনেই খেতে ইচ্ছা করে।

এ ডালে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ভিটামিন-বি, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, ফোলেট, ম্যাঙ্গানিজ, কপার, জিঙ্ক ও ফাইবার। মুগ ডাল যেমন সুস্বাদু, তেমনই পুষ্টিকরও হজমও হয় খুবই সহজে।

বিভিন্ন রোগে রোগীকে মুগ ডালের খিচুড়ি খাবারের পরামর্শ দেন ডাক্তাররা। গর্ভবতী মহিলাদের জন্যও মুগের ডাল খাওয়া খুবই উপকারী।

মুগ ডালের পুষ্টিগুণ

ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ মুগ ডাল। নিচে মুগ ডালের পুষ্টিগুণ দেওয়া হলো –

  • ক্যালোরি: ২১২
  • প্রোটিন: ১৪.২ গ্রাম
  • কার্বস: ৩৮.৭ গ্রাম
  • ফাইবার: ১৫.৪ গ্রাম
  • ফোলেট (বি 9): ৮০% (RDI)
  • ম্যাঙ্গানিজ: ৩০% (RDI)
  • ম্যাগনেসিয়াম: ২৪% (RDI)
  • আয়রন: ১৬% (RDI)

এছাড়া ভিটামিন বি 1, বি 2, বি 3, বি 5, বি 6, ফসফরাস, কপার, পটাশিয়াম, জিংক এবং সেলেনিয়াম রয়েছে। আরও কিছু প্রয়োজনীয় অ্যামিনো অ্যাসিড রয়েছে যেমন – ফিনিল্যাল্যানাইন, লিউসিন, আইসোলিউসিন, ভালাইন, লাইসিন, আর্গিনাইন ইত্যাদি।

মুগ ডাল খাওয়ার উপকারিতা

নিচে মুগ ডাল খাওয়ার স্বাস্থ্য উপকারিতা দেওয়া হলো –

রক্তশূন্যতা দূর করে:

এক কাপ মুগ ডালে ১৬% আয়রন থাকে। প্রচুর মাত্রায় আয়রন থাকার কারণে নিয়মিত এই ডাল খেলে লোহিত রক্ত কণিকার উৎপাদন বৃদ্ধি করে। ফলে রক্তশূন্যতা দূর হয়।

রক্তচাপ হ্রাস করতে পারে:

পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং ফাইবার সমৃদ্ধ মুগ ডাল, যা রক্তচাপ হ্রাস করতে সহায়তা করে। উচ্চ রক্তচাপ একটি মারাত্মক স্বাস্থ্য সমস্যা কারণ এটি হার্টের রোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে।

উচ্চ অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট রয়েছে:

অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট দীর্ঘস্থায়ী রোগের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে। মুগ ডালে ফেনলিক অ্যাসিড, ফ্ল্যাভোনয়েডস, ক্যাফিক অ্যাসিড, সিনাইমিক অ্যাসিড সহ আরও অনেকগুলি স্বাস্থ্যকর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। টেস্ট-টিউব সমীক্ষায় দেখা গেছে যে মুগ ডাল ফুসফুস এবং পেটের কোষগুলিতে ক্যান্সারের বৃদ্ধি হ্রাস করতে পারে।

স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়:

মুগ ডালে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা স্ট্রোক, দেহের উচ্চ তাপমাত্রা, তৃষ্ণা এবং আরও অনেক কিছু থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে। মুগ ডালে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস ভিটেক্সিন (vitexin) এবং আইসোভাইটেক্সিন (isovitexin) রয়েছে।

প্রাণী গবেষণায় দেখা গেছে যে মুগ ডালের স্যুপ স্ট্রোকের সময় গঠন হওয়া ফ্রি র‌্যাডিক্যালগুলি থেকে কোষগুলিকে রক্ষা করতে সহায়তা করতে পারে।

খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা হ্রাস করে:

উচ্চ কোলেস্টেরল, বিশেষত “খারাপ” এলডিএল কোলেস্টেরল হার্টের রোগের ঝুঁকি বৃদ্ধি করে। গবেষণায় দেখা গেছে যে, মুগ ডালের এমন বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা LDL কোলেস্টেরলকে হ্রাস করতে পারে। মুগ ডাল অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট সমৃদ্ধ হওয়ায় রক্তের LDL কোলেস্টেরলকে হ্রাস করতে পারে।

হজমের স্বাস্থ্যকে সহায়তা করে:

এই ডালে বিভিন্ন ধরণের পুষ্টি থাকে যেমন ফাইবার এবং প্রতিরোধী স্টার্চ যা হজম স্বাস্থ্যের জন্য দুর্দান্ত। ২০২ গ্রাম মুগ ডালে ১৫.৪ গ্রাম ফাইবার সরবরাহ করে।

মুগের মধ্যে এক ধরণের দ্রবণীয় ফাইবার থাকে যা পেকটিন নামে পরিচিত, যা আপনার অন্ত্রের মাধ্যমে খাবারের চলাচলকে গতি বাড়িয়ে এবং অন্ত্রের নিয়মিত গতিবিধি ঠিক রাখতে সহায়তা করে। প্রতিরোধী স্টার্চও দ্রবণীয় ফাইবারের মতো একইভাবে কাজ করে।

রক্তে শর্করার মাত্রা কমিয়ে দিতে পারে:

উচ্চ রক্তের শর্করার মাত্রা বেশ কয়েকটি দীর্ঘস্থায়ী রোগের সাথে যুক্ত। মুগ ডালের বেশ কয়েকটি বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা রক্তে শর্করার মাত্রা কম রাখতে সহায়তা করে। এতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার এবং প্রোটিন রয়েছে, যা রক্তের প্রবাহে চিনির পরিমাণ ধীর করতে সহায়তা করে।

এছাড়া মুগ ডাল অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস ভিটেক্সিন এবং আইসোভাইটেক্সিন সমৃদ্ধ যা রক্তের শর্করার মাত্রা কমিয়ে আনতে পারে এবং ইনসুলিনকে আরও কার্যকরভাবে কাজ করতে সহায়তা করে।

ওজন হ্রাস করতে পারে:

মুগ ডালে ফাইবার এবং প্রোটিন বেশি থাকে, যা ওজন কমাতে সহায়তা করতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে যে, ফাইবার এবং প্রোটিন ক্ষুধা হরমোনগুলিকে দমন করতে পারে। ফলে বেশি খাওয়ার প্রবণতা কমে যায়। এতে ক্যালোরি গ্রহণের পরিমাণও কমাতে সহায়তা করতে পারে।

আর ক্যালোরি গ্রহণের পরিমাণ কমে গেলেই ওজন কমতে শুরু করে।

গর্ভবতী মহিলাদের জন্য ভালো:

গর্ভাবস্থায় মহিলাদের প্রচুর পরিমাণে ফোলেটযুক্ত খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। সন্তানের বৃদ্ধি এবং বিকাশের জন্য ফোলেট অপরিহার্য। মুগ ডাল ফোলেটের একটি ভালো উৎস। এক কাপ রান্না করা মুগ ডালে ৮০% ফোলেট থাকে।

এছাড়া আয়রন, প্রোটিন এবং ফাইবারের পরিমাণও বেশি থাকে, যা গর্ভাবস্থায় মহিলাদের জন্য বেশি প্রয়োজন। তবে গর্ভবতী মহিলাদের কাঁচা মুগের ডাল খাওয়া এড়ানো উচিত।

সতর্কতা:

আপনি যদি জটিল কোনো রোগে আক্রান্ত হন বা অন্য কোনো কারণে রেগুলার কোনো মেডিকেল কোর্স-এর মধ্য দিয়ে যান তাহলে অবশ্যই খাওয়ার আগে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন।

রেফারেন্স: