মিষ্টি কুমড়া শাক হার্ট ভালো রাখে, কোষ্টকাঠিন্য দূর করে ও ত্বকের জন্য ভালো।

মিষ্টি কুমড়া সবজি হিসেবে যেমন পরিচিত তেমনি কুমড়া শাক বা পাতা খুবই পরিচিত ও পুষ্টিকর একটি সবজি। এই শাকের রয়েছে প্রচুর পরিমাণে স্বাস্থ্য উপকারিতা। পুষ্টির বোমা কুমড়ো শাক প্রত্যেক স্বাস্থ্য সচেতন মানুষের উচিত এই সবজিটা খাওয়া।

সকাল বা দুপুরবেলা গরমভাতে এক বাটি কুমড়া শাক হলে অনেকটা ভাত খাওয়া হয়ে যায়। নারকেল কোরা, বাদাম কুচি বা চিংড়ি মাছ দিয়ে এর স্বাদ বাড়িয়ে নিতে পারেন।

কুমড়ার পাতায় প্রচুর পরিমাণে আয়রন রয়েছে। যা দেহের আয়রনের ঘাটতি পূরণ করে দেহের রক্তের অভাব হতে দেয় না। নারী ও শিশুদের মধ্যে আয়রনের ঘাটতি দেখা যায়। তাই এক্ষেত্রে কুমড়া শাক ভালো অস্ত্র হতে পারে।

শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ানো মায়েদের জন্যও কুমড়া শাক খুবই উপকারী। কারণ এটি শরীরের প্রয়োজনীয় সব পুষ্টি সরবরাহ করে। এজন্য  চিকিৎসকরা কুমড়া শাক খাওয়ার কথা বলে থাকেন।

কুমড়ো পাতার 39 গ্রাম গ্রহণে:

  • আয়রন 0.87 মিলিগ্রাম,
  • ভিটামিন বি-6 এর 0.081 মিলিগ্রাম,
  • ম্যাঙ্গানিজের 0.138 মিলিগ্রাম,
  • ফসফরাসের 41 মিলিগ্রাম,
  • কপারের 0.05 মিলিগ্রাম,
  • 38 ডিগ্রি ভিটামিন এ,
  • 4.3 মিলিগ্রাম ভিটামিন সি পাওয়া যায়।

কুমড়া শাকের উপকারিতা:

কুমড়ো শাক বা কুমড়ো পাতাগুলি স্বাস্থ্যকর এবং সুস্বাদু। এগুলি লোহা, ম্যাঙ্গানিজ দ্বারা পূর্ণ। কুমড়োর পাতাগুলিতে ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস এবং কপার ছাড়াও ক্যালসিয়াম, ভিটামিন সি, ভিটামিন এ এবং বি ভিটামিন রয়েছে। নিচে কুমড়া শাকের উপকারিতা আলোচনা করা হলো –

হার্টের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে:

কুমড়ো শাকে বা পাতায় প্রচুর পরিমাণে দ্রবণীয় ফাইবার থাকে। উচ্চ মাত্রার দ্রবণীয় ফাইবার কোলেস্টেরল শোষণকে কমায় এবং পিত্ত অ্যাসিডের শোষণকেও হ্রাস করতে সাহায্য করে। ফলে রক্তের কোলেস্টেরলের মাত্রা হ্রাস পায়। যখন দ্রবণীয় ফাইবারগুলি অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়ার দ্বারা ভেঙে যায়, তখন কিছু ফ্যাটি অ্যাসিড প্রকাশিত হয়।

কিন্তু যকৃতের দ্বারা শোষিত হয়ে কোলেস্টেরলের উৎপাদন হ্রাস পায়। রক্তের কোলেস্টেরল কমিয়ে ফাইবারগুলি হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করতে সহায়তা করে।

নরম এবং কোমল ত্বকের নিশ্চয়তা দেয়:

কুমড়োর পাতায় ভিটামিন এ ও সি থাকে। ভিটামিন এ ও সি সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ শরীরকে ফ্রি রেডিক্যাল এবং টক্সিন থেকে মুক্ত রাখতে সহায়তা করে যা আপনার ত্বককে ক্ষতির হাত থেকে বাঁচায়।

এটি আর্দ্রতা ধরে রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করে ত্বককে নরম ও কোমল রাখতে সহায়তা করে, ফলে শুষ্কতা, কেরাটিনাইজেশন এবং সোরিয়াসিসের মতো ত্বকের অবস্থার প্রতিরোধ করে।

হাড় শক্ত করুন:

কুমড়োর পাতায় প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম এবং ফসফরাস রয়েছে যা আমাদের দেহের হাড় এবং দাঁতের জন্য প্রয়োজনীয়। শক্তিশালী হাড়, সঠিক বৃদ্ধি এবং দাঁতগুলির ভাল বিকাশ নিশ্চিত করতে আমাদের অবশ্যই কুমড়ো শাক খেতে হবে।

পিএমএস সিন্ড্রোম দূরীকরণ:

অনেক মহিলা প্রাক মাসিক সিনড্রোমে (পিএমএস) ভোগেন। সুতরাং খিটখিটে মেজাজ, মাথা ব্যথা, হতাশা এবং বিরক্তির মতো মাসিক সংক্রান্ত সমস্যা হ্রাস করতে কুমড়ো শাকে থাকা ম্যাঙ্গানিজ কার্যকর হতে পারে।

যে মহিলারা মারাত্মক পিএমএস উপসর্গগুলিতে ভোগেন তাদের ম্যাঙ্গানিজ পরিপূরক গ্রহণের পাশাপাশি ম্যাঙ্গানিজ সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করার পরামর্শ দেওয়া হয়। আপনার খাদ্যতালিকায় প্রয়োজনীয় পরিমাণ ম্যাঙ্গানিজ গ্রহণের জন্য কুমড়ো শাক বা কুমড়োর পাতা একটি দুর্দান্ত বিকল্প।

ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করে:

অন্যান্য সবুজ শাকসবজির মতো কুমড়োর পাতায় প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে। গত তিন দশকে বেশ কয়েকটি গবেষণায় গ্রহণযোগ্য পরিমাণে ফাইবার গ্রহণ এবং কোলন ক্যান্সারের হ্রাসের মধ্যে একটি যোগসূত্র রয়েছে।

ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার সাধারণত ভিটামিন, খনিজ, ফাইটোকেমিক্যালস এবং প্রয়োজনীয় ফ্যাটি অ্যাসিডে পূর্ণ থাকে। কুমড়োর পাতা নিয়মিত খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় এর পুষ্টির কারণে এবং স্যুপের মাধ্যমে পশ্চিম আফ্রিকার মানুষ এটি প্রতিদিন খেয়ে থাকে।

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে:

পূর্বেই উল্লিখ করা হয়েছে কুমড়োর পাতায় প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে যা মলকে প্রচুর পরিমাণে যুক্ত করতে সাহায্য করে, যা অন্ত্রের চলাচলকে আরও সহজ করে তোলে। প্রচুর পরিমাণে ফাইবার গ্রহণ করলে মলের পরিমান বাড়ে এবং নরম হয়।

এটি অন্ত্রের পেশীগুলিকে সংকোচনে উৎসাহ দেয়। স্বতন্ত্রভাবে নিজেকে স্ট্রেইন না করে মলকে বাইরে ঠেলে দেয়।প্রয়োজনীয় পরিমাণে ফাইবার পেতে আপনার নিয়মিত ডায়েটে কুমড়োর পাতা অন্তর্ভুক্ত করুন এবং কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ করুন।

রোগ প্রতিরোধক ব্যবস্থাপনা:

আয়রন কুমড়ো পাতায় প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায় যা মানব দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালীকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।  শরীর বিভিন্ন রোগ এবং সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সক্ষম হয়। 

ক্ষতিগ্রস্থ টিস্যু, অঙ্গ এবং কোষগুলিতে অক্সিজেন সরবরাহের জন্য লোহিত রক্তকণিকা প্রয়োজনীয়। এটি ছাড়া হিমোগ্লোবিন থাকবে না; হিমোগ্লোবিন ছাড়া অক্সিজেন থাকবে না। এই প্রক্রিয়ার প্রধান নায়ক আইরন বা লোহা।

কুমড়োর পাতায় প্রচুর পরিমাণে পটাসিয়াম থাকে যা হার্টের অনিয়মিত বীট রোধ করতে এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি হ্রাস করতে সহায়তা করে।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ: কুমড়ার শাকে প্রচুর প্রোটিন রয়েছে। যা রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। এটি ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য খুব উপকারী। এছাড়া এই শাক খেলে রক্তের কোলেস্টেরলও নিয়ন্ত্রণে থাকে।

সতর্কতাঃ

যা কিছু খাবেন পরিমাণমতো খাবেন। আপনার শরীরের অবস্থা বুঝে খাবেন।  আপনি যদি জটিল কোনো রোগে আক্রান্ত হন বা অন্য কোনো কারণে রেগুলার কোনো মেডিকেল কোর্স-এর মধ্য দিয়ে যান তাহলে অবশ্যই খাওয়ার আগে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন।

সূত্রঃ

healthbenefitstimes.com, femina.in

Share