বয়স বাড়লে শরীরে যেসব পরিবর্তনগুলি ঘটে। একটু সচেতন হলে ভালো থাকবেন।

বয়স তো বেড়ে চলেছে। একটু শান্ত হয়ে বসুন কারণ একটু রেস্ট নিচ্ছেন অথচ তার ভেতরেও কত চিন্তা, টেনশন মনের ভেতরে। মোবাইলটা একটু অফ বা বন্ধ করুন।

এবার একটু চিন্তা করুন। নামকরা চাকুরী, স্ত্রী-সন্তান এরকম আরো অনেক কিছুর চাপে বা ভিড়ে নিজেকে আয়নাতে একটু নিজেকে দেখতেও ভুলে গেছেন। শরীরের পরিবর্তনগুলো একটু পর্যবেক্ষণ করুন।

পরিবর্তন তো হবে। কিন্তু আপনি আগে থেকে একটু চেষ্টা করলে বা সচেতন হলে নিজেকে একটু হলেও ভালো রাখতে অর্থাৎ বার্ধক্য ঠেকাতে পারবেন।

বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমাদের দেহগুলি অনেকগুলি পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায়। বাহিরে আমাদের শারীরিক পরিবর্তন চোখে পড়ে বলে অভ্যন্তরীণ পরিবর্তনগুলি অতটা বুঝতে পারি না।

ডিএনএ ক্ষয়প্রাপ্ত হয়। ক্রোমোজোম ক্ষয়প্রাপ্ত হতে থাকে। কোষের আচরণ বদলে যায়। কোষ নবায়নের সক্ষমতা হারিয়ে ফেলে। কোষের পরিপাকক্রিয়া নিয়ন্ত্রণ হারায়। মাইটোকন্ড্রিয়া কাজ বন্ধ করে দেয়। স্টেম সেলের শক্তি কমে যায়। নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় কোষ।

কী প্রত্যাশা করবেন এবং কীভাবে এই পরিবর্তনগুলির কিছুটা ধীর করবেন তা জেনে রাখলে আপনাকে যথাসম্ভব আরামদায়ক এবং সক্রিয় থাকতে সাহায্য করতে পারবে।

হৃদয়:

আপনার হৃদয় সারা রাত পাম্প করে, আপনি জেগে থাকুন বা ঘুমিয়ে থাকুন। এটি আপনার জীবদ্দশায় ২.৫ বিলিয়নের বেশি বীট পাম্প করবে।  আপনার বয়স হিসাবে, রক্তনালীগুলি তাদের স্থিতিস্থাপকতা হারাবে, ফ্যাটি জমাগুলি ধমনীর দেয়ালের বিরুদ্ধে তৈরি হয় এবং আপনার দেহের মাধ্যমে রক্ত ​​সঞ্চালনের জন্য হৃদয়কে আরও কঠোর পরিশ্রম করতে হয়।  উচ্চ রক্তচাপ বেড়ে যায় এবং এথেরোস্ক্লেরোসিস (ধমনীগুলি শক্ত হওয়া) হতে পারে।

সঠিক ধরণের জ্বালানীর বা খাদ্যের সাহায্যে আপনার দেহের যত্ন নেওয়া আপনার হৃদয়কে সুস্থ ও সবল রাখতে সহায়তা করবে। আপনি হৃদয়-স্বাস্থ্যকর খাবারগুলি অনুশীলন এবং খাওয়ার মাধ্যমে আপনার হৃদয়ের যত্ন নিতে পারেন।

 হাড়, পেশী এবং জয়েন্টগুলি:

বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমাদের হাড়ের আকার এবং ঘনত্ব সঙ্কুচিত হয়ে আসে।  কিছু লোক আসলে খাটো হয়ে যায়।  অন্যরা হাড় ক্ষয়ের কারণে ফ্র্যাকচারে বেশি আক্রান্ত হন। পেশী, টেন্ডস এবং জয়েন্টগুলি শক্তি এবং নমনীয়তা হারাতে পারে।

হাড়, পেশী এবং জয়েন্টগুলির সমস্যা প্রতিরোধ করার জন্য যোগ ব্যায়াম একটি দুর্দান্ত উপায়। শক্তি এবং নমনীয়তা বজায় রাখা আপনাকে শক্তিশালী রাখতে সহায়তা করবে। এছাড়াও ক্যালসিয়াম সহ স্বাস্থ্যকর ডায়েট আপনার হাড়কে শক্তিশালী করতে সহায়তা করে। কী ধরণের ডায়েট এবং অনুশীলন আপনার জন্য সঠিক তা সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলতে ভুলবেন না।

হজম ব্যবস্থা:

আমাদের বয়সের সাথে সাথে খাবার খাওয়ার ক্ষমতা এবং হজম প্রতিক্রিয়াগুলি ধীর হয়ে যায়। খাদ্যনালী কম জোর হয়ে সংকুচিত হওয়ায় গ্রাস করা শক্ত হয়ে যেতে পারে। পাকস্থলীর, লিভার, অগ্ন্যাশয় এবং ছোট অন্ত্রের খাদ্য হজমে সহায়তা করে এমন স্রাবের প্রবাহও হ্রাস হতে পারে। হ্রাসপ্রবাহের ফলে হজম সমস্যাগুলি হতে পারে যা আপনার অল্প বয়সে ছিল না।

 কিডনি এবং মূত্রনালী:

রক্তের প্রবাহ থেকে বর্জ্য অপসারণে কিডনিগুলি কম দক্ষ হয়ে উঠতে পারে কারণ আপনার কিডনিগুলি আপনার বয়সের সাথে সাথে কোষগুলি হারাতে থাকায় ছোট হয়। ডায়াবেটিস বা উচ্চ রক্তচাপের মতো দীর্ঘস্থায়ী রোগ কিডনিতে আরও বেশি ক্ষতি করতে পারে।

বিভিন্ন স্বাস্থ্য পরিস্থিতির কারণে মূত্রত্যাগ অনিয়মিত হতে পারে। মহিলাদের মধ্যে হরমোন স্তরের পরিবর্তন এবং পুরুষদের মধ্যে একটি প্রসারিত প্রস্টেট থাকার কারণগুলি মূত্রত্যাগের অনিয়মিত হওয়ার কারণকে অবদান রাখছে।

 মস্তিষ্ক এবং নার্ভাস সিস্টেম:

আমাদের বয়স হিসাবে, আমরা স্বাভাবিকভাবেই কোষগুলি হারাতে থাকি। এটি মস্তিষ্কেও সত্য। মস্তিষ্কের কোষের সংখ্যা হ্রাস হওয়ায় স্মৃতিশক্তি হ্রাস ঘটে। মস্তিষ্কের কার্যকারিতা সংরক্ষণের জন্য কোষের মধ্যে সংযোগের সংখ্যা বাড়িয়ে এই ক্ষতির ক্ষতি করতে পারে। রিফ্লেক্সগুলি ধীর হতে পারে, বিক্ষিপ্ততা বেশি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে এবং সমন্বয় প্রভাবিত হয়।

চোখ:

আমাদের বয়সের সাথে সাথে অনেকগুলি দর্শন পরিবর্তন ঘটে। আমাদের লেন্সগুলি কড়া হওয়ার সাথে সাথে এমন বস্তুগুলি দেখতে আমাদের সাহায্যের প্রয়োজন হতে পারে। স্বল্প-হালকা অবস্থায় দেখতে আমাদের আরও কঠিন সময় হতে পারে এবং রঙগুলি অন্যরকমভাবে বোঝা যেতে পারে। আমাদের চোখ অশ্রু উত্পাদন করতে কম সক্ষম হতে পারে এবং আমাদের লেন্সগুলি আরও ক্লাউড হয়ে যেতে পারে।

বয়সের সাথে যুক্ত চোখের সাধারণ সমস্যার মধ্যে রয়েছে ছানি, গ্লুকোমা এবং ম্যাকুলার অবক্ষয়।

 কান:

আপনার বয়সকালে অতিরিক্ত শব্দে আপনার বয়সের সাথে সাথে শ্রবণশক্তি হ্রাস পেতে পারে। অনেক বয়স্ক প্রাপ্তবয়স্কদের উচ্চতর উচ্চতর কণ্ঠস্বর এবং শব্দ শুনতে অসুবিধা হয়, ব্যস্ত স্থানে শ্রবণ করতে সমস্যা হয় এবং আরও ঘন ঘন ইয়ারওক্স জমা হয়।

 চুল, ত্বক এবং নখ:

আপনার বয়স বাড়ার সাথে সাথে আপনার ত্বক আরও শুষ্ক এবং ভঙ্গুর হয়ে যায়, যার ফলে আরও কুঁচকে যেতে পারে। ত্বকের পাতলা ত্বকের নীচে চর্বিযুক্ত স্তর, যার ফলে কম ঘাম হয়। এটি ভাল জিনিসটির মতো মনে হতে পারে তবে এটি গ্রীষ্মে হিট স্ট্রোক এবং তাপ ক্লান্তির জন্য আপনাকে আরও বেশি সংবেদনশীল করে তোলে। চুল এবং নখ ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পায় এবং ভঙ্গুর হয়ে যায়। চুল পাতলা হয়ে ধূসর হয়ে যাবে।

 ওজন:

শারীরিক ক্রিয়াকলাপের স্তর হ্রাস এবং একটি ধীর গতির বিপাক ওজন বৃদ্ধিতে অবদান রাখতে পারে। আপনার শরীরটি একবারে যতটা ক্যালোরি জ্বলতে সক্ষম না হতে পারে এবং সেই অতিরিক্ত ক্যালোরিগুলি ফ্যাট হিসাবে সঞ্চিত হবে।

বার্ধক্য একদিন আসবে। আমরা ঠেকাতে পারবো না সত্যি। কিন্তু গতি কমাতে পারি বা গতির ঠুঁটি টেনে ধরতে পারি। বয়স বাড়ার সাথে সাথে অনেকের ওজন অনেক বেড়ে যায়। বয়স বাড়লেও ওজন বাড়তে দিবেন না।  তাই বলা হয়, আপনি শরীরের বাইরে এবং ভিতরে উভয় ক্ষেত্রেই বার্ধক্যের প্রভাব ধীর ও বিভিন্ন প্রভাবের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করতে পারেন।

আমরা অনেকেই জানি, পরিমিত আহার, শরীর চর্চা বা ব্যায়াম,পর্যাপ্ত ঘুম, চাপ, টেনশন মুক্ত থেকে হাসিখুশি জীবনযাপন করা স্বাস্থ্যকর ও দীর্ঘজীবনের পরিপূরক। কীন্তু অনেকেই এগুলো অবহেলা করি। গুরুত্ব দেয় না।

সূত্রঃ

http://blog.johnsonmemorial.org/9-physical-changes-that-come-with-aging

Share