বাচ্চার রক্ত বাড়ানো অর্থাৎ আইরন শোষণের জন্য ভিটামিন সি যুক্ত ফল খাওয়ান। দোকানের সিরাপ নয়।

দামি দামি প্যাকেটজাত খাবার: গুঁড়ো দুধ, grower ফুড, boimil-১,২ ইত্যাদি খাওয়ালেন আর মনে করলেন বাচ্চার ভালো যত্ন নিলাম। আসলে কি এতে বাচ্চা  সর্বোত্তম পুষ্টি পায়। আগে তাজা ফলমূল, সবজি বাচ্চাকে খাওয়ান। এর পাশাপাশি হয়তো খাওয়াতে পারেন।

কমার্শিয়াল ফুড নয়। কমার্শিয়াল খাবার বাচ্চাকে খাইয়ে লাভ আছে কি নেই সে ব্যাপারে আমরা তর্কে যাবো না। বাজারে গিয়ে ওষুধের দোকানের খোঁজ প্রথমে করবেন না। তার খাবারের ডায়েট চার্ট সংশোধন করুন।

আমরা যখন ভিটামিন খাওয়ার কথা ভাবি তখন স্বাভাবিকভাবে প্রথমে নামটি আসে সেটি হিল ভিটামিন সি। আসলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর মহানায়ক এই ভিটামিন সি।

ভিটামিন সি একটি ইমিউনোলজিস্ট হিসাবে, এটি সকলের কাছে পরিচিত এবং রোগ নিরাময়ের কর্তা হিসাবে বিশেষত আইরন শোষণ ও ঠাণ্ডা এবং ফ্লু মৌসুমে বিশেষ অবদান রাখা একটি  মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট। এজন্যই হয়তো বলা হয়-Vitamin C and Iron: A Perfect Match

আপনি অ্যাসকরবিক অ্যাসিড, অ্যাসকরবাইল প্যালমিট, ক্যালসিয়াম অ্যাসকরবেট বা সোডিয়াম অ্যাসকরব্যাট হিসাবে তালিকাভুক্ত ভিটামিন সি দেখতে পাবেন। বিভিন্ন এবং কখনও কখনও কঠিন-উচ্চারণের নাম থাকা সত্ত্বেও তারা একই জিনিস।

আয়রনের ঘাটতিগুলি মহিলা, এবং শিশুদের মধ্যে সাধারণ, তাই ভিটামিন সি ফলমূল ও সবজি অর্থাৎ প্রাকৃতিক খাবারের মাধ্যমে না হলে পরিপূরকের মাধ্যমে আয়রনের মাত্রা বৃদ্ধি করার কথা বলা হয়।

ভিটামিন সি এর স্বাস্থ্যসুবিধা:

ভিটামিন সি একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা ত্বকের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে পারে এবং আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতে পারে। অতিরিক্তভাবে, ভিটামিন সি আপনার বিপাক বজায় রাখতে এবং আপনার স্নায়ুতন্ত্রকে সমর্থন করার জন্য কী।

আয়রন রক্তের হেমোগ্লোবিনে অর্থাৎ শরীরের চারপাশে অক্সিজেন স্থানান্তরিত করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ, তাই আয়রন প্রধানত হৃদরোগের স্বাস্থ্যকে ভালো রাখে। আয়রন আপনার দেহের বিপাকক্রমেও ভূমিকা রাখে।

আপনার বাচ্চা এবং বয়স্কদের প্রতিদিন কতটা ভিটামিন সি খাওয়া উচিত?

প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য, প্রতিদিনের ভিটামিন “সি” এর মান ৬৫ থেকে ৯০ মিলিগ্রাম সর্বোচ্চ ২,০০০ মিলিগ্রাম পর্যন্ত।

ধূমপান করে না এমন লোকদের চেয়ে যারা ধূমপান করেন তাদের প্রতিদিন ৩৫ মিলিগ্রাম বেশি ভিটামিন “সি” গ্রহণ করা উচিত। গর্ভাবস্থায় প্রতিদিন ৮০ মিলিগ্রাম বা যখন বুকের দুধ খাওয়ানো মায়েদের ১১৫ মিলিগ্রাম।

কোন বয়সে কতটুকু ভিটামিন “সি” গ্রহণ করা উচিত

১-৩ বছর বয়সী শিশুদের জন্য ৪০০ মিলিগ্রাম
৪-৮ বছর বয়সী বাচ্চাদের ৬৫০ মিলিগ্রাম
৯-১০ বছর বয়সের বাচ্চাদের জন্য ১,২০০ মিলিগ্রাম
১৪-১৮ বছর বয়সের কিশোরদের জন্য ১,৮০০ মিলিগ্রাম।

ভিটামিন সি এর জন্য আমরা কোন খাবারগুলি খাবো?

লেবু অর্থাৎ সাইট্রাস জাতীয় সকল ফল, পেয়ারা, আমড়া, আমলকি, কাঁচা ও পাকা আম, লিচু, আনারস অর্থাৎ সকল প্রকারের দেশি ফল ও সবজি পাতাকপি, টমেটো(আসলে ফল), পালংশাক, শসা সহ সকল প্রকারের দেশি সবজি বাচ্চাকে বেশি বেশি করে খাওয়ান।

আয়রন সমৃদ্ধ খাবারগুলিতে মাছ, মুরগী ​​এবং গো-মাংসের মতো প্রাণীর প্রোটিনও অন্তর্ভুক্ত। রুটি, প্রাতঃরাশের বার, সিরিয়াল, ফল এবং পুরো শস্য পণ্যগুলিতেও আয়রন থাকে।

আইরন কতটুকু দরকার?

আপনার শরীরের সঠিকভাবে কাজ করার জন্য আয়রন একটি প্রয়োজনীয় খনিজ। সুতরাং, আপনার প্রতিদিনের ডায়েটে পর্যাপ্ত পরিমাণে এটি গ্রহণ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মজার বিষয় হল, আপনি যে খাবারগুলি খাচ্ছেন সেগুলি কেবল আপনি কত আয়রন গ্রহণ করেন তা নয়, এটি আপনার শরীরে কতটা শুষে নিয়েছে তাও প্রভাবিত করে

এটি একবার আপনার দেহের দ্বারা শোষিত হয়ে গেলে এটি হিমোগ্লোবিনের বিল্ডিং ব্লক হিসাবে ব্যবহার করা হয়, এটি লোহিত রক্তকণিকায় পাওয়া একটি প্রোটিন যা আপনার দেহের চারপাশে শাটল অক্সিজেনকে সহায়তা করে।

আয়রন হল মায়োগ্লোবিনের একটি উপাদান, আপনার পেশীগুলিতে পাওয়া অক্সিজেন স্টোরেজ প্রোটিন। আপনি যখন আপনার পেশী ব্যবহার করেন তখন এই অক্সিজেন ব্যবহার করা হয়।

৭-১২ মাস বয়সী শিশুদের দিনে ১১ মিলিগ্রাম লোহা প্রয়োজন।

১-৩ বছর বয়সের বাচ্চাদের প্রতিদিন ৭ মিলিগ্রাম লোহা দরকার।

বাচ্চাদের বয়স ৪-৮ বছর ১০ মিলিগ্রাম প্রয়োজন তবে বয়স্ক বাচ্চাদের ৯-১০ বছর বয়সী ৮ মিলিগ্রাম প্রয়োজন।

কিশোর ছেলেরা দিনে ১১ মিলিগ্রাম আয়রন এবং কিশোরী মেয়েদের ১৫ মিলিগ্রাম পাওয়া উচিত।

সতর্কতাঃ

অতিরিক্ত পরিমাণে ভিটামিন “সি” গ্রহণের ফলে আয়রন ওভারলোড হতে পারে, যা আপনার বা বাচ্চার হার্ট, লিভার, অগ্ন্যাশয়, থাইরয়েড এবং কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্র এর মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে।

মধ্যস্ততাই সুস্বাস্থ্যের চাবিকাঠি অর্থাৎ পরিমিত পরিমানে খাওয়া সুস্থ্যতার চাবিকাঠি। কোনো কিছু মোটেও খাবো না সেটা যেমন ঠিক নয় আবার কোনো কিছু অতিরিক্ত পরিমানে খাবো সেটাও ঠিক নয়।

যা কিছু খাবেন পরিমাণমতো খাবেন। আপনার শরীরের অবস্থা বুঝে খাবেন। অতিরিক্ত কোনো কিছুই ভালো নয়। আপনি যদি কোনো জটিল রোগে আক্রান্ত হন বা নিয়মিত কোনো ওষুধ সেবন করে থাকেন তাহলে আপনার ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া খাবেন না।

সূত্রঃ

https://www.healthline.com/nutrition/increase-iron-absorption

https://foodinsight.org/vitamin-c-and-iron-a-perfect-match/

Share