ফোলা বা শোথ রোগ বা শরীরে পানি জমা রোগ কি? শরীরে পানি বা রস জমার কারণ, লক্ষণ ও প্রতিকার।

ফোলা বা শোথ রোগ বা শরীরে পানি জমা রোগ কি?

শরীরের বিভিন্ন অংশে পানি জমে ফোলাভাবকে ফোলা রোগ বা শোথ রোগ বলা হয়। ইংরেজিতে এটিকে এডিমা (edema) বলা হয়। সাধারণত পায়ের পাতা, গোড়ালি এবং পায়ে হয়। এটি মুখ এবং হাতকেও প্রভাবিত করতে পারে। গর্ভবতী মহিলা এবং বয়স্করা প্রায়শই শরীরে পানি জমা রোগে আক্ৰান্ত হয়। তবে এটি যে কারওর সাথেই হতে পারে।

ফোলা বা শোথ রোগ কেন হয়?

ফোলা বা শোথ রোগ অতিরিক্ত পানি দ্বারা সৃষ্ট হয় যা আমাদের দেহের টিস্যুতে গঠন করে। অনেক করণে শরীরে পানি জমতে পারে। দীর্ঘদিন খুব দীর্ঘ সময় ধরে বসে থাকলে বা দাঁড়িয়ে থাকলে শোথ রোগ দেখা দিতে পারে বিশেষত গরম আবহাওয়ায়। বেশি পরিমাণে লবণ দিয়ে খাবার খেলে ফোলাভাব আরও খারাপ হতে পারে।

ওষুধ সেবন করার কারণে ওষুধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ায় ফোলা বা শোথ রোগ হতে পারে। বিভিন্ন স্বাস্থ্য সমস্যা যেমন কনজেসটিভ হার্ট ফেইলিওর, লিভার ডিজিজ এবং কিডনি রোগের কারণে এটি হতে পারে।

শরীরে পানি জমলে মহাকর্ষ বলের প্রভাবে পানি আমাদের পা এবং পায়ের পাতায় জমতে দেখা যায়। ফোলা বা শোথ রোগ একজন মানুষ থেকে অন্য মানুষে ছড়ায় না। এটি বংশানুক্রমেও আসে না।

ফোলা বা শোথ রোগের লক্ষণ:

যদি আপনার পা, গোড়ালি এবং পায়ের পাতা ফোলা থাকে এবং এ ফোলা কোনও আঘাতের সাথে সম্পর্কিত না, তাহলে এটি ফোলা বা শোথ হতে পারে। এই ফোলা ভাব আপনার মুখ এবং হাতেও হতে পারে। ফোলা জায়গায় আঙ্গুল দিয়ে চেপে ধরলে সেটি আগের অবস্থায় আসতে সময় লাগে।

ফোলা বা শোথ রোগের চিকিৎসা:

ফোলা বা শোথ রোগের চিকিৎসার একমাত্র উপায় হ’ল এটি যে কারণে হয় সেটির চিকিৎসা করা। চিকিৎসক আপনাকে ডায়রিটিক (diuretic) নামক একটি ওষুধ সেবন করতে দিতে পারে। এই ওষুধ আপনার প্রস্রাবের মাধ্যমে আপনার শরীর থেকে লবণ এবং অতিরিক্ত পানি বের করতে সহায়তা করে।

আপনার ফোলা বা শোথ রোগ হলে ডাক্তারকে দেখানো খুব গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষত আপনি যদি গর্ভবতী হন। যদি এটি চিকিৎসা না করা হয় তবে আপনার ত্বক প্রসারিত হতে পারে। এর ফলে অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দিতে পারে। আপনার যদি ফোলা বা শোথ রোগ হয় এবং আপনার শ্বাস নিতে সমস্যা হতে শুরু করে, দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

Share