পালংশাকের রস ক্যান্সার প্রতিরোধী, রক্তচাপ কমায় ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

পালংশাক একটি সত্যিকারের পুষ্টির পাওয়ার হাউস, কারণ এটি ভিটামিন, খনিজ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলিতে সমৃদ্ধ। তাজা পালংশাক জুস বা রস করে খাওয়া এই সবুজ সবজি উপভোগ করার একটি জনপ্রিয় উপায় হয়ে উঠেছে।

পালং শাককে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সবুজ শাক হিসাবে বিবেচনা করা হয় যা খুবই স্বাস্থ্যকর। বৈজ্ঞানিকভাবে Spinacia Oleracea (স্পিনাসিয়া ওলেরেসা) নামে পরিচিত, পালংশাক বিটরুট এবং Kale-এর মতো একই পরিবারের অন্তর্ভুক্ত।

বাইরের দেশে পালংশাক সালাদে, স্যুপে ব্যবহৃত হলেও আমরা শাক হিসাবে রান্না করে খেয়ে থাকি। মাছ, মাংস, পনির, সবজি বিভিন্ন উপাদান সহযোগে মজাদার সব আইটেম তৈরি করে থাকি।

পালং শাকে ভিটামিন এ, ভিটামিন ই, ভিটামিন কে, ভিটামিন সি এবং ভিটামিন বি কমপ্লেক্স সহ প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং খনিজ যেমন ক্যারোটিন, অ্যামিনো অ্যাসিড, আয়রন, আয়োডিন, পটাসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে। এর অগণিত স্বাস্থ্য বেনিফিটগুলি আপনার প্রতিদিনের ডায়েটের সাথে যুক্ত হয়ে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে চলেছে।

Amaranthaceae-পরিবারের এই শাকটি বাংলায় পালংশাক, ইংরেজিতে Spinach. ইটালিয়ান স্পিনাচি, জাপানীজ হোরেঞ্চ, কোরিয়ান চিগুমচি, স্প্যানিশ এসপিনাকা ইত্যাদি নামে পরিচিত।

পালংশাকের রসের উপকারিতা বা স্বাস্থ্যসুবিধা:

বর্তমানে পালং শাক খাওয়ার অন্যতম সেরা উপায় হল শাকের রস। পালংশাকের রসের উপকারিতা বা স্বাস্থ্যসুবিধা নিচে আলোচনা করা হলো –

অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের পরিমাণ বেশি:

পালংশাকের রস পান করা আপনার অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট গ্রহণ বাড়ানোর এক দুর্দান্ত উপায়। অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টগুলি ফ্রি র‌্যাডিকাল নামক অস্থির অণুগুলিকে নিরপেক্ষ করে, এইভাবে আপনাকে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস এবং দীর্ঘস্থায়ী রোগের হাত থেকে রক্ষা করে। বিশেষত, পালং শাক অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টস লুটিন, বিটা ক্যারোটিন, কুমারিক অ্যাসিড, ভায়োলাক্সাথিন এবং ফারিউলিক অ্যাসিডের একটি ভাল উৎস।

চোখের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে পারে:

পালং শাকের রসে ভিটামিন এ বেশি থাকে যা চোখের স্বাস্থ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এই ভিটামিনের ঘাটতি শুকনো চোখ এবং রাতের অন্ধত্ব সৃষ্টি করতে পারে। পালং শাকের রস ভিটামিন “এ” এবং জেক্সানথিন এবং লুটিনের মতো অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলিতে সমৃদ্ধ, এগুলি সবই স্বাস্থ্যকর দৃষ্টিশক্তি বজায় রাখে।

ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি হ্রাস করতে পারে:

যদিও আরও বেশি মানব গবেষণা প্রয়োজন কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে, পালংশাকের কয়েকটি মিশ্রণ ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সহায়তা করতে পারে। পালং রস কোলন ক্যান্সারের টিউমারের পরিমাণ ৫৬%  হ্রাস করে।

পালংশাক খাওয়ার অভ্যাস ফুসফুস, প্রস্টেট, স্তন এবং কোলোরেক্টাল ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়।

রক্তচাপ কমাতে পারে:

পালং শাকের মধ্যে নাইট্রেটস এবং পটাসিয়াম বেশি থাকে, যা রক্ত প্রবাহকে উন্নত করতে পারে এবং রক্তচাপকে হ্রাস করতে পারে। পালং শাকের মধ্যে প্রাকৃতিকভাবে ঘটে যাওয়া নাইট্রেটগুলির পরিমাণ বেশি থাকে, এক ধরণের যৌগ রক্তচাপকে হ্রাস করতে পারে এবং রক্তের প্রবাহকে বাড়িয়ে তোলে।

স্বাস্থ্যকর চুল এবং ত্বকের জন্য:

পালং শাকের মধ্যে ভিটামিন এ এবং সি বেশি থাকে, দুটি গুরুত্বপূর্ণ মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট যা ত্বক এবং চুলের স্বাস্থ্যের জন্য আশীর্বাদস্বরূপ। অধ্যয়নগুলি দেখায় যে ভিটামিন সি আপনার ত্বককে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস, প্রদাহ এবং ত্বকের ক্ষতির বিরুদ্ধে সুরক্ষা দেয়, এগুলি সবই বার্ধক্যজনিত লক্ষণগুলিকে ত্বরান্বিত করতে পারে।

ভিটামিন সি আয়রনের শোষণ বাড়িয়ে তুলতে পারে এমনকি আয়রনের ঘাটতির সাথে যুক্ত চুলের ক্ষতি রোধ করতেও সহায়তা করে।

সতর্কতাঃ

যারা রক্ত পাতলা করা warfarin জাতীয় ওষুধ খাচ্ছেন তারা এড়িয়ে যাবেন। কারণ পালংশাকে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন K রয়েছে। এটি রক্ত জমাট বাঁধার কাজ করে।

যা কিছু খাবেন পরিমাণমতো খাবেন। আপনার শরীরের অবস্থা বুঝে খাবেন। অতিরিক্ত কোনো কিছুই ভালো নয়। আপনি যদি কোনো জটিল রোগে আক্রান্ত হন বা নিয়মিত কোনো মেডিকেল কোর্স-এর ভেতর দিয়ে যান তাহলে খাবার আগে অবশ্যই আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী খাবেন।

সূত্রঃ

www.healthline.com, timesofindia. indiatimes.com

Share