খালি পেটে কফি পান করা কি স্বাস্থ্যকর?

বিছানায় বসেই এক কাপ কফি না হলে যেন দিনটাই ঠিক ভাবে শুরু হয় না। কফি অনেকের কাছে অভ্যাস হয়ে দাঁড়িয়েছে। খালি পেটে কফি পান করলে নানান স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই খালি পেটে কফি পান করা একদমই উচিত নয়। সকালে কফি পান করার উপকারিতা রয়েছে ঠিকই, তবে খালি পেটে খেলে বরং উল্টো কাজ করে।

চলুন দেখে নেওয়া যাক, খালি পেটে কফি পান করলে কি কি স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে-

মানসিক স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব ফেলে:
খালি পেটে প্রচুর পরিমাণে কফি পান করলে স্ট্রেস হরমোন নিঃসৃত হয়। যার ফলে চিন্তা এবং উদ্বেগ বাড়ে। তবে এটা সম্পূর্ণ আপনার নিজের উপরে নির্ভর করে যে আপনি সকালে খালি পেতে কফি পান করতে পারেন নাকি কোন সমস্যা হচ্ছে।

পেটে ব্যথা হয়:
কফি পেট অ্যাসিডের উৎপাদনকে উৎসাহিত করতে পারে, যার কারণে পেটের সমস্যা হয়। এমনকি অ্যাসিডিটির সমস্যা এবং পেটে ব্যথার মতো অসুখ হয়।

অ্যাসিডিটি এবং গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হতে পারে:
গবেষণা দেখায় যে কফির তিক্ততা পেট অ্যাসিডের উৎপাদনকে উৎসাহিত করতে পারে। অনেক লোক বিশ্বাস করে যে কফি খালি পেটে কফি পান করলে অ্যাসিডিটি, গ্যাসের মতো আরো অনেক সমস্যা হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়।।

তবে এটা সবার ক্ষত্রে নাও হতে পারে। আপনার দেহ কীভাবে প্রতিক্রিয়া দেখায় সেদিকে মনোযোগ খেয়াল রাখুন। খালি পেটে কফি খাওয়ার পরে যদি আপনি হজমে সমস্যা অনুভব করেন তবে খালি পেটে কফি পানের থেকে বিরত থাকুন।

এটি কি স্ট্রেস হরমোনের মাত্রা বাড়ায়?
খালি পেটে কফি পান করা স্ট্রেস হরমোন করটিসলের মাত্রা বাড়িয়ে তুলতে পারে। কর্টিসল আপনার অ্যাড্রিনাল গ্রন্থি দ্বারা উৎপন্ন হয় এবং বিপাক, রক্তচাপ এবং রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে। তবে কর্টিসল এর মাত্রা বৃদ্ধি পেলে হাড়ের ক্ষয়, উচ্চ রক্তচাপ, টাইপ 2 ডায়াবেটিস এবং হার্টের রোগ সহ স্বাস্থ্য সমস্যাগুলিকে হতে পারে।

ঘুম থেকে উঠার সময় কর্টিসল স্তরগুলি শীর্ষে থাকে। মজার বিষয় হল, কফি কর্টিসল উৎপাদনকে উদ্দীপিত করে। সুতরাং, কিছু লোক দাবি করেন যে সকালে ঘুম থেকে উঠার পর যখন কর্টিসলের মাত্রা ইতিমধ্যে বেশি থাকে তখন খালি পেটে কফি খাওয়া বিপজ্জনক হতে পারে।

কল্পকাহিনী এবং সামান্য বৈজ্ঞানিক প্রমাণ থেকে জানা যায় যে, খালি পেটে কফি পান করা ক্ষতিকর। তবে বেশির ভাগটাই আপনার নিজের শরীরের উপর নির্ভর করবে। খালি পেটে কফি পান করার সময় আপনি যদি হজমজনিত সমস্যা অনুভব করেন তবে পরিবর্তে খাবারের সাথে খাওয়ার চেষ্টা করুন।

তবে কফি খাওয়ার উপকারিতাও অনেক। কফি ক্লান্তিবোধ দূর করতে সহায়তা করে পাশাপাশি, কফিতে থাকা ক্যাফিন মেজাজ, মস্তিষ্কের কার্যকারিতা এবং ব্যয়মের কর্মক্ষমতা উন্নত করতে পারে। এছাড়া ওজন কমিয়ে টাইপ-2 ডায়াবেটিস, আলঝাইমার এবং হার্টের রোগের মতো অসুস্থতা থেকে রক্ষা করতে পারে। তবে কফি বেশি পরিমাণ পান করা উচিত নয়। সীমিত পরিমাণ পান করুন।

Share