ওজন কমাতে শসা। শসা ওজন কমাতে খুবই কার্যকর। কিভাবে তা জেনে নিন।

শসার গুনের কথা কি আর বলবো। বললেও কম হয়ে যাবে। ক্যালোরি প্রায় জিরো। জলে ভরা মানে প্রায় ৯৫% এর কোঠায়। ভিটামিন ও মিনারেলস-এ ঠাসা এই জল বা পানিযুক্ত অংশ। বাকি অংশ ফাইবার দ্বারা পরিপূর্ণ।

ওজন হ্রাস করতে শসার থেকে ভালো আর একটি কম্বোপ্যাক যোগাড় করা সত্যি কষ্টকর। আমরা সকলেই জানি শসা (ওরফে খিরা) এর মধ্যে পুষ্টিগুণ বেশি এবং প্রায় শূন্য ক্যালোরিযুক্ত জলযুক্ত সবজি। এটি কেবল সালাদে দুর্দান্ত স্বাদই দেয় না, এটি একটি হালকা স্ন্যাক হিসাবেও খাওয়া যেতে পারে।

সর্বোত্তম আকষণীয় বিষয় হল, এটি এত সহজ এবং হালকা একটি খাবার যা সহজে হজম হয় ও শরীর দ্রুত এর জলীয় অংশ কাজে লাগাতে পারে। পেটও ভরে, ক্ষুধাও কমে। ওজন হ্রাস পরিকল্পনার হিরো বলা যেতে পারে।

শসা বা খিরা বা কাকড়ির(Kakri or Kakdi)-মতো খাবার গ্রীষ্মকালে কেবল দুর্দান্ত খাবারের সঙ্গী হয় না তবে এটি আপনার ওজন হ্রাস প্রোগ্রামে দুর্দান্ত সংযোজন করে। এগুলি আপনাকে কম ক্যালোরিতে পূরণ করে।

এক কাপ শসাতে এর খোসা সহ রয়েছে মাত্র ১৬ ক্যালোরি। আপনি আপনার প্রতিদিনের পটাসিয়ামের প্রায় ৪ শতাংশ, আপনার প্রতিদিনের ফাইবারের ৩ শতাংশ এবং আপনার প্রতিদিনের ভিটামিন সি এর ৪ শতাংশ পেয়ে যাবেন।

এছাড়া স্বল্প পরিমাণে ভিটামিন কে, ভিটামিন সি, ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ এবং ভিটামিন এ সরবরাহ করে শসা বা খিরা।

শসাগুলিতে প্রচুর পরিমাণে জল থাকে এবং এতে ভিটামিন সি এবং কে এবং অন্যান্য গুণাবলী সহ প্রচুর পরিমাণে প্রয়োজনীয় পুষ্টি থাকে যা ওজন হ্রাসকে দারুণভাবে সহায়তা করে।

যদি আপনি এমন কেউ হন যে, অতিরিক্ত কিলো কমানোর চেষ্টা করছেন তবে আপনার প্রতিদিনের ডায়েটে শসা অবশ্যই অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

ওজন হ্রাস করার সহজ নিয়মটি আপনি যতটা ক্যালোরি গ্রহণ করেন তার চেয়ে কম ক্যালোরি গ্রহণ করে ক্যালোরি ঘাটতি তৈরি করা। শসার মতো খাবারগুলিতে ক্যালোরি কম থাকে এবং এটি আপনাকে ক্যালোরি ঘাটতি তৈরি করতে সহায়তা করে।

dietplan

ওজন কমাতে cucumber বা শসা কেন এতো ভালো:

ওজন হ্রাসের জন্য শসা কেন একটি আশ্চর্যজনক খাবার।

কম ক্যালোরিযুক্ত খাবার:

যারা ওজন কমাতে চান তারা হয়তো বলছেন- ভাগ্যক্রমে শসা পেয়েছিলাম, তা না হলে কি যে হতো। বাইরের গরম থেকে এলেন বা কিছুক্ষণ কাজের পরে শসা আপনার তৃষ্ঞা ও পানিশুন্যতা কমাবে। সাথে কিছু লাগবে না এমনিতেই আস্ত কিংবা কেটে চিবিয়ে খাওয়া যায়।

শসাতে শূন্য ফ্যাট, কম ক্যালোরি থাকে যা ওজন হ্রাস করতে চায় এমন লোকদের জন্য এটি একটি দুর্দান্ত খাবার।  তাই সালাদে সবসময় শসা রাখুন।  এটি যেভাবে খাওয়া হয়  লেবুর রস, অল্প একটু লবণ, সবুজ মরিচ, শসা।

একটি মাঝারি আকারের শসাতে কেবল ২৪ ক্যালোরি থাকে, যা এটি খুব কম ঘনত্বের খাবার হিসাবে তৈরি করে। এই জাতীয় খাবারগুলিকে আপনার ডায়েটের অংশ বানানো ওজন হ্রাসের জন্য উপকারী

 স্বল্প চিনি থাকে:

আমরা সবাই চিনি বা মিষ্টি জাতীয় সবজি বা ফলের ভক্ত। কিন্তু এটাও মনে রাখতে হবে যে, চিনি, যে কোনও আকারে স্থূলত্বের ঝুঁকি বাড়ায়, তাই এটি এড়াতে সাধারণত পরামর্শ দেওয়া হয়। শসাতে নগণ্য পরিমাণে চিনি থাকে যা আপনাকে কার্যকরভাবে ওজন হ্রাস করতে সহায়তা করবে।

 কোষ্ঠকাঠিন্য সহজ করে:

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে শসার চেয়ে ভালো বন্ধু আপনি পাবেন না। শসার বাইরের আবরণ বা খোসা, ভিতরের বীজ, ও বাকি অংশ শক্ত স্টুল বা মলকে নরম করে। এছাড়া

এতে বিদ্যমান ৯০% এর উপরের জলীয় অংশ, সবকিছু মিলিয়ে কোষ্টকাঠিন্য দূরীকরণে সেরা একটি খাবার শসা বা খিরাই বা snake cucumber বা kakdi-কাকড়ি।

 ডিটক্সাইফিং এজেন্ট হিসাবে কাজ করে:

আপনার পেটের চারদিকে ফুলে যাওয়া চেহারা দূর করতে শরীরকে অবিচ্ছিন্নভাবে বিষাক্ত পদার্থ বের করতে হবে। শসার বীজ মূত্রবর্ধক হিসাবে কাজ করে যা প্রস্রাব করতে এবং অতিরিক্ত জল এবং টক্সিন বের করতে সহায়তা করে। এটি ফুলে যাওয়া কমাতে এবং আপনার পেটের পেশী শক্ত করতে সহায়তা করতে পারে।

এর হাইড্রেটিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে:

শশা ৯৫ শতাংশ জল; যে কারণে এটি শরীরকে হাইড্রেটেড রাখতে সহায়তা করে। একটি সঠিকভাবে হাইড্রেটেড শরীর ওজন হ্রাস প্রচারে সহায়তা করে।

শসা এর বীজ কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে, ডায়াবেটিস বিরোধী উপকারিতা এবং এন্টিবায়োটিকের একটি শালীন পরিমাণ রয়েছে। এই সমস্ত পুষ্টি আপনাকে শক্তিশালী বোধ করতে এবং সক্রিয় এবং স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করতে সহায়তা করে।

sasa

সালাদে শসা পরিবেশন করুন:

সালাদে শসা খাওয়া আপনাকে আরও দীর্ঘ সময়ের জন্য পরিপূর্ণ রাখবে এবং এভাবে আপনাকে পরে দ্বিগুন খাওয়া থেকে বিরত রাখবে।

তিনবেলা খাওয়ার সময় সালাদে ছাড়াও আপনি শসা খেতে পারেন। আপনার ওজন হ্রাস সফল করতে হলে বাড়তি শসা আপনাকে খেতে হবে।

আপনি একটি টমেটো, শসা, মূলা, গাজর, কিছু পেঁয়াজের রস এবং অল্প লবণে দিয়ে একটি সুস্বাদু সালাদ তৈরি করতে পারেন। আপনি পালং শাক এবং বেল মরিচ দিয়ে শসার সালাদ তৈরির চেষ্টা করতে পারেন।

শসাটি কেটে টুকরো টুকরো করে ব্লেন্ড করার পর পুদিনা পাতা, তুলসী পাতা এবং কয়েকফোটা  লেবুর রস মিশিয়ে একটি সুন্দর শসার সরবতও খেতে পারেন।

বন্ধুরা, ওজন কমাতে গেলে তিনটি বিষয়কে আপনার মাথায় রাখতে হবে।

সুষম খাবার,

এক্সারসাইজ বা ব্যায়াম,

ঘুম।

ঘুম এবং ব্যায়াম যদি আমরা ঠিকমত করে থাকি তবে যে বিষয়টি আমরা মানি না বা জানি না, সেটি হল পরিমিত পরিমানে খাবার-দাবার। যদি আমরা ব্যাল্যান্স না রেখে বেশি বেশি বা অতিরিক্ত খায় তাহলে কোন কিছুতেই আমাদের শরীরের বাড়তি ওজন কমানো সম্ভব হবে না।

আবার খাবার খেলাম কিন্তু কোনো কায়িক শ্রম করি না বা ব্যায়াম করি না তাহলেও ওজন কমানো দুঃস্বপ্ন রয়ে যাবে। আর এই খাবারের তালিকা পরিপূর্ণ করতে খুব বেশি কাজ যে করে করে থাকে তা হলো শশা।

সকাল বেলা উঠে শসার জুস করে আমরা খেয়ে নিতে পারি। সকালের ব্রেকফাস্ট বা নাশতায় শশার সালাদ যোগ করে। সকালে আমরা এক্সারসাইজ  করতে পারি। এক্সারসাইজ থেকে আসার পরে যখন আমরা ব্রেকফাস্ট নিব তার সাথে অবশ্যই শশার সালাদ যোগ করব।

সতর্কতাঃ

যা খাবেন পরিমাণমতো খাবেন। অতিরিক্ত কোনো কিছুই ভালো নয়।

শসায় জল ৯৫ শতাংশ আছে। সুতরাং, শসা খাওয়ার ঠিক পরে পানি পান করবেন না। এটি করার ফলে কেবল পেটে ব্যথা হতে পারে তা নয়, উদ্ভিজ্জগুলিতে উপস্থিত পুষ্টিগুলিও পাতলা করতে পারে। এছাড়াও, শয়নকালের ঠিক আগে শসা খাবেন না কারণ এটি আপনার শান্তিদায়ক ঘুমকে নষ্ট করে দিবে।

রেফারেন্স:
Share