মশাদের কোনো পারিবারিক শিক্ষা নেই, বাথরুমে আজব আজব জায়গাতে কামড় দেয়।

সকালে ঘুম থেকে উঠে বাথরুমে যাওয়া। প্রকৃতির ডাকে সাড়া দেয়া আমাদের প্রতিদিনের কাজ। মশা আমাদের চারপাশের কোথায় নেই। মশার প্রধান কাজের একটি হলো রক্ত পান করা।

আসলে হেডিং পড়তে পড়তেই হাসি এসে যাই, কারণ মাঝে মাঝে ঘটেও তাই। Birthroom-এর ঐ ছোট্ট ঘরটাতেই যেনো ওরা বেশি জমা হয়। একেবারে যেনো আক্রমণের জন্য প্রস্তুত হয়ে থাকে।

অনেকে কয়েল জ্বালিয়ে বাথরুমের কাজ সারতে বসেন। জীবনের এতো সমস্যায় আমরা জর্জরিত। তার উপর মশা শান্তিতে একটু মাইনাস ও করতে দেবে না।

যাই হোক বন্ধুরা, আমরা মশা নিয়ে আর কথা না বাড়িয়ে আসুন আমরা মশার বংশবৃদ্ধি রোধ করি। পরিবেশ পরিষ্কার রাখি। সর্বদা সতর্ক থাকতে মশা সম্পর্কে কিছু প্রয়োজনীয় তথ্য জেনে নেই——

মশা এক প্রকারের ছোট মাছি প্রজাতির পতঙ্গ। অধিকাংশ প্রজাতির স্ত্রীমশা স্তন্যপায়ী প্রাণীর রক্ত পান করে থাকে। মেরুদণ্ডী প্রাণীর, যেমন স্তন্যপায়ী প্রাণী, পাখি, সরীসৃপ, উভচর প্রাণী এবং এমনকি কিছু মাছের শরীর থেকে রক্ত শোষণ করে। এদের হাজার রকমের প্রজাতি আছে।

যদিও যেসব প্রাণীর শরীর থেকে রক্ত শুষে নেয় তা তাদের শরীরের তুলনায় খুবই অল্প, কিন্তু কিছু মশা রোগজীবাণু সংক্রামক। মশার মাধ্যমে ম্যালেরিয়া, ডেঙ্গু, ফাইলেরিয়া, পীতজ্বর, জিকা ভাইরাস প্রভৃতি রোগ সংক্রমিত হয়ে থাকে।

কিছু প্রজাতির মশা রক্ত শোষণ করে না; আবার যেসব প্রজাতির মশা রক্ত শোষে তাদের মধ্যে অনেকেই রক্তে “উচ্চ থেকে নিম্ন চাপ” সৃষ্টি করে তা শোষণ করে এবং কোনওরকম রোগ বিস্তার করে না। রক্ত শোষণকারী প্রজাতির মধ্যে শুধু নারীরাই রক্ত শোষণ করে।

পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে ৩,৫০০ এর বেশি প্রজাতির মশা পাওয়া গেছে। যেসব মশা নিয়মিত মানুষকে কামড়ায় তারা প্রতি বছর লক্ষ লক্ষ মানুষের শরীরে রোগজীবাণু সংক্রমণের চলক হিসেবে কাজ করে। অন্য যেসব প্রজাতি নিয়মিত মানুষকে কামড়ায় না, কিন্তু অন্যান্য প্রাণীদের শরীরে রোগ সংক্রমণের চলক, তারা মূলত বিভিন্ন কারণে, যেমন হঠাৎ বন ধ্বংস, তাদের বাসস্থান থেকে উৎখাত হলে ক্ষতিকর হয়ে ওঠে।

সকল মাছির মত, মশার জীবনচক্র চারটি পর্যায়ে বিভক্ত: ডিম, শূক, মুককীট, এবং পূর্ণাঙ্গ মশা। বেশির ভাগ প্রজাতির পূর্ণাঙ্গ নারী মশা বদ্ধ পানি বা জলাশয়ে ডিম পাড়ে; কিছু পানির কাছাকাছি ডিম পাড়ে, বাকিরা জলজ উদ্ভিদে ডিম পাড়ে।

প্রজাতি অনুযায়ী ডিম থেকে পূর্ণাঙ্গ মশা হওয়ার সময়ের পার্থক্য দেখা যায়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই পারিপার্শ্বক তাপমাত্রার ব্যাপক প্রভাব থাকে। কিছু প্রজাতির ডিম থেকে পূর্ণাঙ্গ মশা হতে সময় লাগে পাঁচ দিনের মত, কিন্তু বেশির ভাগ ক্ষেত্রে পূর্ণাঙ্গ মশা হতে সময় লাগে ৪০ দিন বা কিছু প্রজাতির ক্ষেত্রে আরও বেশি। পূর্ণাঙ্গ মশার শারীরিক আকৃতি শূকের ঘনত্ব ও পানিতে খাদ্যের সরবরাহের উপর নির্ভর করে।

Share