ছোটো বেলার নারকেল পাতার ঘড়িটা ভালো ছিল। না ছিল সময়ের চিন্তা, না ছিল নষ্ট হওয়ার চিন্তা।

হাজার চেষ্টা করেও যেখানে আর ফেরা যাই না, সেটা হলো আমাদের ছোট বেলা। প্রত্যেকের শৈশব যে কতটা আনন্দের, কতটা মধুর সেটা বয়স কালে পরে এসে মনে পড়লে গুরুত্ব অনুভব করতে পারি।
স্মৃতি মনে করে বা রমোহন্তোন করে একটু পুরোনো দিনে ফিরে যাওয়া। ছবিও কথা বলে। ছবি দেখে সাথে সাথে একটা অনুভূতি, আবেগ তৈরি হয়।
সৃষ্টির সেবা জীব মানুষ সবসময় আবেগতাড়িত। অনেকে কেঁদে ফেলেন।
পরিণত বয়সের ঘড়িটা সবসময় আমাদের দাবড়াতে থাকে। আমাদের শান্তিতে ঘুমাতে দেয় না। সময় হয়েছে এখনই বেরোতে হবে।  সময় মতো এটা ওটা সেটা।
সময় মতো পরিশ্রম না করলে তুমি পিছিয়ে যাবে। সেটা ঠিক আছে। কিন্তু আবার বর্তমান সময়ে এটাও অনেককে ভাবায়, এতো পরিশ্রম করে এতো জায়গা জমি, ধন-সম্পদ, টাকা, বাড়ি-গাড়ি দিয়ে কি হবে।  এতো কিছু না হলেও তো বেঁচে থাকা যায়।
খুব বেশি খাবার খেয়ে বদহজম হলে ডাক্তার যেমন বলেন পরিমিত পরিমানে খাবেন তেমনি অতিরিক্ত অর্থ অনর্থের কারণ না হয়ে দাঁড়ায়।
coconutleaf
প্রভাতসংগীত–পুনর্মিলন—রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ।
” সেই , সেই ছেলেবেলা
আনন্দে করেছি খেলা
প্রকৃতি গো , জননী গো ,
কেবলি তোমারি কোলে ।
কোথা যে গেলেম চলে ।”
Share