ঘাড়ে ব্যথা হলে কি করবেন?

ঘাড়ে ব্যথা এখন খুব পরিচিত একটি সমস্যা। এটি দেখা দিতে পারে যেকোনো বয়সী মানুষদের। কারণ এখন কম-বেশি সবাই মোবাইল, কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকেন। দীর্ঘ সময় ঝুঁকে বসে থাকার কারণে ঘাড় ব্যথা দেখা দেয়।

অনেক ক্ষেত্রে মাংসপেশিতে টান, শিরদাঁড়ায় হাড়ের অসুখ, আর্থ্রাইটিস, সারভাইকাল স্পন্ডিলসিস, ইত্যাদি অসুখ থেকেও ঘাড়ের ব্যথা শুরু হতে পারে।

খুব কম ক্ষেত্রে ঘাড় ব্যথা মারাত্মক সমস্যা হিসেবে দেখা দেয়। যদি ঘাড় ব্যথার সঙ্গে বাহু বা হাতে অবশ ভাব দেখা দেয় কিংবা হাতের শক্তি কমে যায় অথবা কাঁধ ব্যথা করে তাহলে অবশ্যই চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে। তা না হলে ব্যথা আরও জটিল আকার ধারণ করতে পারে।

চলুন জেনে নেওয়া যাক, ঘাড়ে ব্যথা হলে আপনি কি কি করবেন :

ম্যাসাজ করবেন :

ঘাড়ের ব্যথা কমাতে ম্যাসাজ খুবই চমৎকার ঘরোয়া উপায়। ম্যাসাজ ঘাড়ের ব্যথার সাথে সাথে দুশ্চিন্তা ও চাপ কমাতে সাহায্য করে। ব্যথা দূর করতে নারিকেল তেল অথবা অলিভ অয়েল হালকা গরম করে ঘাড় ও কাঁধে মেখে নিন।

এরপর কিছু সময় ধরে ম্যাসাজ করুন। আস্তে আস্তে আপনার কমতে থাকবে। এ পদ্ধতি ব্যবহার করলে ব্যথা থেকে মুক্তি মিলবে খুব সহজেই।

পাতলা বালিশ ব্যবহার করুন ও গরম সেঁক দিন :

ঘাড়ের সঙ্গে শরীর সামঞ্জস্যপূর্ণ থাকে এমন বালিশ ব্যবহার করুন। কারণ বেশি উচ্চতার বালিশ ব্যবহার করলে ঘাড় ব্যথা হতে পারে আর যদি ব্যথা থাকে তাহলে ব্যথা বেড়ে যেতে পারে।

ব্যথার ক্ষেত্রে গরম সেঁক অনেক কার্যকর ও আরাম। সে জন্য ব্যবহার করতে পারেন গরম প্যাড, গরম পানির বোতল। গরম পানিতে গোসল করলে অনেক সময় আরাম দেয়। গরম সেঁক অনেক সময় ধরে দিতে হবে।

লবণ-পানিতে গোসল করুন :

মাংসপেশি টান ধরা থেকে যদি ঘাড়ের ব্যথা হয়ে থাকে, তবে গরম পানিতে লবণ মিশিয়ে গোসল করতে পারেন। এই লবণ থাকা সালফেট ম্যাগনেসিয়াম মাংসপেশীকে শিথিল করে ফোলা এবং ব্যথা কমাতে সহায়তা করে।

এটি মানসিক চাপ কমানোর পাশাপাশি রক্ত সঞ্চালন সচল রাখে। তাই ঘাড়ে ব্যথা হলে আপনি লবণ পানি দিয়ে ২-৩ বার গোসল করতে পারেন। এটা ঘাড়ের ব্যথা কমাতে খুবই কার্যকর।

আইস বা বরফ ব্যবহার করতে পারেন :

ব্যথা দূর করতে ব্যবহার করতে পারেন আইস প্যাক। কারণ শীতল তাপমাত্রা প্রদাহ হ্রাস করতে এবং ব্যথা উপশম করতে সাহায্য করে। বরফের টুকরো গ্লাসে বা প্যাকেটে ভরে ব্যথা জায়গায় ধরতে পারেন।

এভাবে সারাদিনে ২-৩ বার করে ১৫ মিনিটের জন্য ব্যবহার করতে পারেন, এতে আপনার ঘাড়ের ব্যথা কমতে থাকবে।

হলুদ ব্যবহার করতে পারেন :

কাঁধের ব্যথা কমাতে হলুদ একটি চমৎকার উপাদান। এর মধ্যে রয়েছে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট প্রদাহরোধী উপাদান। দুই চামচ হলুদ গুঁড়ার মধ্যে এক চামচ নারকেলের তেল মিশিয়ে কাঁধে লাগান।

এ ছাড়া এক কাপ দুধের মধ্যে এক কাপ হলুদ গুঁড়া মিশিয়ে সিদ্ধ করুন। এরপর মিশ্রণটি ভালো করে ঘাড়ে লাগান। এতে করে ফোলা ও ব্যথা ভাব দূর হবে।

ব্যায়াম করুন :

ঘাড়ের কিছু ব্যায়াম আছে যা ব্যথা দূর করতে সাহায্য করে। ব্যায়াম করার আগে মাংসপেশীকে প্রসারিত করার জন্য গরম সেঁক দিতে হবে। এরপর আপনার ঘাড বৃত্তাকার গতিতে একবার ক্লক ওয়াইজ এবং আবার অ্যান্টি ক্লক ওয়াইজ ঘোরান।

এবার ঘাড় আস্তে আস্তে পিছনে এবং সামনে, আবার একবার ডান পাশ ও একবার বাম পশে ঘোরান। এভাবে ১৫ মিনিট করে দিনে ৩-৪ বার করুন। এতে করে আপনার ঘাড় ব্যথা দূর হবে।

Share