গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়ার উপকারিতা।

গর্ভাবস্থায় কলা সেবন করা একেবারে নিরাপদ। এগুলিতে প্রচুর পুষ্টি রয়েছে যা মা এবং শিশুর উভয়ের জন্য বেশ কয়েকটি স্বাস্থ্য উপকারী। গর্ভবতী মায়েদের শিশুর সঠিক বৃদ্ধি এবং বিকাশের জন্য সে যেন সঠিক পুষ্টি পায় তা নিশ্চিত করার জন্য স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া উচিত।

খাদ্যতালিকায় তাজা ফল এবং শাক সবজি অন্তর্ভুক্ত করা উচিত কারণ এগুলি প্রয়োজনীয় পুষ্টিগুণে পূর্ণ ও ফাইবারযুক্ত। কারণ শাক সবজি তাজা ফলমূল বাচ্চাকে তার বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় খনিজ এবং ভিটামিন সরবরাহ করে। এরকম একটি স্বাস্থ্যকর, সুস্বাদু এবং পুষ্টিকর ফল হল কলা।

কলা সমগ্র পৃথিবীতে স্বাস্থ্যকর ফলের তালিকার শীর্ষস্থানে উঠে এসেছে এর অধিক পুষ্টি, ঔষধি গুন ও সহজ প্রাপ্যতার জন্য। এতে প্রয়োজনীয় ভিটামিন, খনিজ, কার্বোহাইড্রেট ও ডায়েটরি ফাইবার থাকে।

কলা ক্যালরির একটি ভাল উৎস। একটি বড় মাপের কলা খেলে ১০০ ক্যালরির বেশি শক্তি পাওয়া যায়। কলাতে রয়েছে সহজে হজমযোগ্য শর্করা। এই শর্করা পরিপাকতন্ত্রকে সহজে হজম করতে সাহায্য করে। কলার মধ্যে থাকা আয়রন রক্তে হিমোগ্লোবিন উত্‍পাদনে সাহায্য করে যা গর্ভবতী মা ও শিশুর জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

গর্ভবতী মায়েদের গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়ার স্বাস্থ্য উপকারিতা

নিচে গর্ভবতী মায়েদের গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়ার স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করা হলো –

বমি বমিভাব কমায়:


বমিভাব এবং সকালের অসুস্থতা হ্রাস করতে সহায়তা করে কলা। কলা ভিটামিন বি-6 সমৃদ্ধ। এই ভিটামিনটি বেশিরভাগ বমিভাব এবং সকালের অসুস্থতা নিরাময় করতে পারে। বিশেষত গর্ভাবস্থার প্রথম ত্রৈমাসিকে কলা খাওয়া মহিলাদের জন্য সুপারিশ করা হয়।

রক্তাল্পতা দূর করে:


পাঁকা কলা গর্ভবতী মহিলাদের রক্তাল্পতায় দূর করতে সহায়তা করে। রক্তাল্পতা এমন একটি অবস্থা যেখানে রক্তে হিমোগ্লোবিনের ঘাটতি থাকে, যা দেহের লাল রক্ত ​​কোষের স্তরকে কমিয়ে আনতে পারে। অনেক গর্ভবতী মহিলারা গর্ভকালীন সময়ে রক্তাল্পতায় ভোগেন। রক্তাল্পতার অন্যতম প্রধান কারণ হল দেহে আয়রনের ঘাটতি। কলা খাওয়া আয়রনের স্তরকে বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে।

শিশুর বৃদ্ধি এবং বিকাশের জন্য:


কলা ফলিক অ্যাসিড এর একটি ভাল উৎস, যা শিশুর বৃদ্ধি এবং বিকাশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়ার ফলে শরীরে ফলিক অ্যাসিডের মাত্রা উন্নত হয়। ফলে ফলিক অ্যাসিডের ঘাটতির সম্ভাবনা হ্রাস পায়। তাই গর্ভবতী মহিলাদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় কলা থাকা অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ।

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে:


গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য একটি সাধারণ সমস্যা। কলাতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে, এটি হজমের জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান। ফাইবার অন্ত্রের গতিকে উত্তেজিত করতে এবং গ্যাসের ফলে হওয়া পেটে ফোলাভাব কমাতে সহায়তা করে। কলা নিয়মিত অন্ত্রের গতিবিধি ঠিক রাখতে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য এড়াতে সহায়তা করে।

শিশুর মস্তিষ্কের বিকাশে:


কলা ভিটামিন বি৬, আয়রন এবং ফলিক অ্যাসিড এর সমৃদ্ধ উৎস, যা শিশুর কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয়। সুতরাং, গর্ভাবস্থার নিয়মিত কলা খাওয়া শিশুর মস্তিষ্কের বিকাশের জন্য উপকারী।

অম্বল প্রতিরোধে সহায়তা করে:


কলা খাওয়া পেট এবং এসোফাগেয়াল প্রাচীরকে গ্যাস্ট্রিক অ্যাসিড থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে। গর্ভাবস্থায় অ্যাসিডিটি এবং অম্বল একটি সাধারণ সমস্যা। কলা পেটে এবং খাদ্যনালীতে অ্যাসিডিটির মাত্রা কমিয়ে রাখতে সাহায্য করে। এটি হজমে সহায়তা করতে পারে।

দ্রুত শক্তি সরবরাহ করতে পারে:


কলাতে উচ্চমাত্রায় কার্বোহাইড্রেট ও শর্করা থাকে কারণ এতে গ্লুকোজ, ফ্রুক্টোজ এবং সুক্রোজ জাতীয় শর্করা থাকে যা তাৎক্ষণিক শক্তি বৃদ্ধির জন্য শরীর দ্বারা দ্রুত বিপাক হতে পারে। কলা দ্রুত শক্তি সরবরাহ করতে পারে। সুতরাং, গর্ভবতী মায়েরা এই ফলটি হাতের কাছে রাখুন। কলা খাওয়া আপনাকে ক্লান্তির সাথে লড়াই করতে এবং আপনার শক্তির স্তর বাড়াতে সহায়তা করবে।

রক্তচাপ বজায় রাখতে সহায়তা করে:


কলা পটাসিয়ামের সমৃদ্ধ উৎস। ২২৫ গ্রাম ওজনের এক কাপ চটকানো কলাতে ৮০০ মিলিগ্রামেরও বেশি পটাসিয়াম থাকে। এটি একটি প্রয়োজনীয় খনিজ যা শরীরে রক্তচাপের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। গর্ভাবস্থায় নিয়মিত কলা খাওয়া রক্তচাপের স্তরে ওঠানামা রোধে সহায়তা করতে পারে।

গর্ভাবস্থাকালীন ডায়াবেটিসে আক্রান্ত মহিলাদেরও খুব বেশি কলা খাওয়া উচিত নয়। আপনি যদি গর্ভবতী হন এবং গর্ভাবস্থাকালীন ডায়াবেটিস থাকে তবে কলা খাওয়ার বিষয়ে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

রেফারেন্স:
Share