রূপচর্চায় শসার ব্যবহার।

শসা আমাদের সকলের কাছে খুবই পরিচিত একটি সবজি। এটি সাধারণত সালাদের জন্যই বেশি প্রয়োজন হয়। কিন্তু এই সবজিটির ব্যবহার শুধু সালাদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই। স্বাস্থ্যরক্ষার পাশাপাশি শশা আমাদের ত্বক এবং চুলের জন্যও সমানভাবে উপকারী। ত্বকের যত্নে শসার ব্যবহার অনেক কাল আগে থেকেই প্রচলিত। সতেজ ত্বকের জন্য শসা খুবই উপকারী।

শসায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন “সি” ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। এছাড়াও এর খোসাতে আছে প্রচুর ডায়টারি ফাইবার। যা ত্বককে নরম ও সতেজ রাখতে এবং ত্বকের উজ্জ্বলতা বজায় রাখতে সাহায্য করে। এছাড়াও রূপচর্চায় শসার বহুমাত্রিক ব্যবহার। শসার ফেইসপ্যাক ত্বকের জন্য খুবই  উপকারী। এটি ত্বক টানটান রাখতে সহয়তা করে।তাই আজ আপনাদের জন্য রইল রূপচর্চায় শসার কিছু ফেইসপ্যাক যা খুব সহজেই বাড়িতে তৈরি করা যায়। চলুন জেনে নেয়া যাক রূপচর্চায় শসার ব্যবহার-

তৈলাক্ত ত্বকের জন্য:

 আপনি কি তৈলাক্ত ত্বক নিয়ে চিন্তিত? তাহলে সেক্ষেত্রে ব্যবহার করুণ শসা। শসা ত্বকের জন্য খুব ভালো টোনার হিসেবে কাজ করে। এটি ত্বকের ওপেন পোর কন্ট্রোল করতে বেশ উপকারী। মুখ ধোয়ার পর শুধু শশার রস টোনার হিসেবে মুখে লাগাতে পারেন অথবা একে আরো কার্যকরী করতে শশার রসের সাথে আপেল সাইডার ভিনেগার, টমেটোর রস এবং অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে নিতে পারেন।

শুষ্ক ত্বকের জন্য:

সেক্ষেত্রে, ১ চা চামচ ওটমিল এবং পরিমাণ মত শশা পেস্ট একসাথে মিশিয়ে আধা ঘণ্টা রেখে দিন। মুখে এবং ঘাড়ে মিশ্রণটি ভালো মত মেখে ২০ মিনিট রাখুন। চাইলে এর সাথে মধুও যোগ করতে পারেন। মধু ত্বককে ময়েশ্চারাইজড রাখবে।

ডার্ক সার্কেল দূর করতে:

শশাতে থাকা এন্টি অক্সিডেন্ট এবং সিলিকা চোখের ডার্ক সার্কেল কমিয়ে চোখের চারপাশের স্কিন ভালো রাখে।চোখের আশে পাশের কালচে দাগ দূর করতে চাইলে ফ্রিজের ঠাণ্ডা শসা স্লাইস করে চোখের ওপর দিয়ে রাখুন ২০ মিনিট।প্রতিদিন এভাবে ব্যবহার করলে ধীরে ধীরে কমে যাবে ডার্ক সার্কেল।

বয়সের ছাপ দূর করতে:

বয়সের ছাপ লুকাতে শসা খুবই কার্যকরী। সেক্ষেত্রে ২ টেবিল চামচ টক দই, আধা চামচ মধু এবং লেবুর রসের সাথে ২ চামচ গ্রেট করা শশা এবং ২ টি ভিটামিন “ই” ক্যাপসুল ভালো মতো মেশান। এবার এটি মুখে লাগিয়ে ১৫ মিনিট রেখে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।এই প্যাকটি ফাইন লাইন্স, রিংকেল দূর করে ত্বককে টানটান এবং সুন্দর করে তোলে।

চুলের গোড়া মজবুত করতে:

শসা চুলের গোড়া মজবুত করতে এবং চুল পড়া কমাতে খুবই কার্যকরী। সেক্ষেত্রে একটি শসার খোসা ছাড়িয়ে শুধু খোসা ব্লেন্ডারে পেস্ট করে নিন। এবার একটি ডিমের মধ্যে ৩ চা চামচ অলিভ অয়েল প্রথমে ভালো মত মিশিয়ে এরপর এর সাথে শসার খোসার পেস্ট মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি চুলে লাগিয়ে ১৫-২০ মিনিট রাখুন। এরপর চুল শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাকটি চুলের গোড়া মজবুত করে চুল স্বাস্থ্যজ্জল করে তোলে।

ব্রণের সমস্যা দূর করতে: 

মুখে ব্রণ হওয়া খুবই সাধারণ একটা সমস্যা। কিন্তু কারও কারও ক্ষেত্রে এই সমস্যা তীব্র হয়ে ওঠে। যেকোন বয়সেই এটা হতে পারে। শসা ব্রণের সমস্যা দূর করতে দারুন কার্যকরী। এতে থাকা ভিটামিন “এ”, “ডি”,”ই” ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। ২ চা চামচ শশার রসের সাথে গোলাপ জল এবং মুলতানি মাটি মিশিয়ে প্যাক তৈরী করুন। এটি মুখে ভালো মতো লাগিয়ে ১৫ মিনিট রেখে হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এটি নিয়মিত ব্যবহার ফলে ব্রণ দূর হবে।

নক ভালো রাখতে: 

শশাতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে সিলিকা যা নখ শক্ত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করেতাই নিয়মিত শশা খাওয়ার মাধ্যমে নখ ভাঙ্গা কমে গিয়ে নখ শক্ত হয়।