কোন খাবার বা ফলগুলো রাতে বা রাতে ঘুমানোর আগে খাওয়া ঠিক নয়।

আপনার মাথার বালিশটি আপনার স্পর্শ বোঝে। কিন্তু আজ সে হতবাক। আপনি অন্যদিন যেভাবে বালিশে মাথা রেখে শান্ত হয়ে ঘুমান আজ সেভাবে পারছেন না। ছটফট করছেন। তবে কেন এবং কোন খাবারগুলি রাতে এড়ানো উচিত তা আপনার জানা দরকার।

কিছু খাবার বিছানায় যাওয়ার আগে খাওয়া সত্যিই খারাপ। ফাইবার বা ক্যালোরি যেটাই বেশি হোক না কেনো। গবেষণাগুলি এই ধারণাটিকে স্বীকার করেছেন যে, রাতে এই খাবারগুলি খেলে শরীরের হজম করতে বেগ পেতে হয়, বিনিময়ে অম্বল বা গ্যাস, পেটে ব্যথা, ঘুম নষ্ট, পাতলা পায়খানা ইত্যাদি।

মিষ্টি মধুর মজাদার ফল মানেই নানা রকমের ভিটামিন, খনিজ, আঁশ, ফ্লাভানয়েড এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। ফল পুষ্টি উপাদানে ভরপুর হওয়ার পরেও রাতে ফল খাওয়া যাবে কিনা তা নিয়ে রয়েছে নানা রকমের দ্বিমত।

যদিও অনেকে মনে করেন ঘুমানোর আগে ফল খাওয়া শরীরের জন্য ভালো কিন্তু প্রকৃত অর্থে এর রয়েছে নানা রকম ক্ষতিকারক দিক। ঘুমানোর আগে ফল খাওয়া হলে তা হজমে নানা রকমের সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।

আয়ুর্বেদ শাস্ত্র অনুসারে, রাতে ঘুমাতে যাওয়ার তিন ঘণ্টা আগে ফল খাওয়া বেশি উপকারী। ফল খাবার হজমে সাহায্য করে এবং অন্ত্র পরিষ্কার করতে ভূমিকা রাখে। যদিও খাবার খাওয়ার সময় ফল খাওয়া ঠিক না। কারণ এতে গ্যাস্ট্রিক রস উৎপন্ন হয় এবং তা পরে হজমে সমস্যা সৃষ্টি করে। তাই রাতে ঘুমানোর আগে ফল না খেয়ে সন্ধায় খাওয়া বেশি উপকারী।

রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ফল বা চর্বি, মিষ্টি বা whole grain বেশি খাওয়া হলে তা শরীরে শর্করার মাত্রা বৃদ্ধি করে। রাতে এই খাবারগুলি ভাঙ্গতে শরীরের বেগ পেতে হয়। ফলে গ্যাস, অনিদ্রা ও অস্বস্তি দেখা দেয়।

আসল কথা হল, দুই বেলার খাবারের মাঝামাঝি সময়ে ফল খাওয়া সবচেয়ে ভালো, এতে ফলের পুষ্টি শরীরের কাজে লাগে। এছাড়াও এটা ক্ষুধার ভাব কমিয়ে শরীরে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।

বিছানায় যাবার আগে এই খাবার এবং পানীয়গুলি এড়ানো উচিত:

আপনার চেয়ে আমরা বেশি চিন্তিত, এজন্য আমরা আপনাকে সচেতন করতে বা আপনার রাতের আরামদায়ক ঘুমটা যাতে নষ্ট না হয়  সেজন্য যে খাবারগুলো আপনার রাতটাকে নষ্ট করে দেয় সেগুলো সম্পর্কে আলোচনা করবো।

উচ্চ চর্বিযুক্ত বা ভারী খাবার:

আমরা এখানে বার্গার, পিজ্জা, মিষ্টি আলুর ফ্রাই বা অন্য কোনো fry এবং মগজ ভুনা, চর্বি ভুনা-এর মতো উচ্চ-চর্বিযুক্ত খাবারের কথা বলছি। হ্যাঁ, আপনাকে বিছানায় যাবার আগে অর্থাৎ রাতে এই খাবারগুলোকে বাই-বাই বলতে হবে। এই উচ্চ-চর্বিযুক্ত খাবারগুলি হজম হতে আরও বেশি সময় নেয়। আপনার শরীরকে শিথিল করার চেয়ে কাজ করতে বাধ্য রাখবে। চর্বিযুক্ত খাবারগুলি প্রায়শই গ্যাস এবং বদহজমের কারণ হয়ে থাকে।

খাওয়ার পরে পেটটা কেমন যেনো ভার ভার লাগে।  চর্বিযুক্ত, চিটচিটে এবং ভাজা খাবারগুলি বদহজমের কারণ হতে পারে এবং রাতে আপনাকে ধরে রাখতে পারে। দিনের শেষের দিকে চিজবার্গার, ফ্রাই, ভাজা খাবার এবং বড় স্টিকের মতো জিনিস এড়িয়ে চলুন।

উচ্চ জলযুক্ত খাবার:

রাতে আপনি ঘুমাবেন না বার বার বাথরুমে যাবেন।  রাতে বার বার উঠলে আপনার বিশ্রাম সত্যিই ব্যাহত হতে পারে। অবশ্যই, প্রচুর পরিমাণে জল পান করা স্বাস্থ্যকর থাকার একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ, তবে রাতে বা রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে নয়।

সুপার সুগার ট্রিটস:

আপনার অত্যধিক চিনিযুক্ত স্ন্যাকস এড়ানো উচিত যা আপনার ব্লাড সুগারকে বাড়িয়ে তোলে। সুগার সিরিয়াল, মিষ্টান্ন এবং ক্যান্ডি এই কারণে রাতের বেলা খাওয়া নিষেধ।

মশলাদার খাবার:

যাদের গ্যাসের সমস্যা বা অম্বলের সমস্যা রয়েছে তারাই ভালো জানেন যে, মসলাদার খাবার রাতে কতটা অস্বস্তিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে পারে। অনেক সময় রাতে বাড়িতে বা কোনো অনুঠানে তেল ও মসলাজাতীয় খাবার যেমনঃ মাটন কসা, মাটন রেজালা, চিকেন কসা বা একটু বেগুনি বা তেলে ভাজাভুজি অসাবধানতা বশতঃ বেশি খাওয়া হয়ে গেলে রাতের ঘুমেরতো মাথায় বাড়ি। শুধু বিছানায় এপাশ ওপাশ। এরপর সকল হতে না হতেই গ্যাসের ট্যাবলেট খোঁজাখুঁজি।  রাতের খাবারের পরিবর্তে প্রাতঃরাশে বা মধ্যাহ্নভোজ এ খাওয়ার চেষ্টা করুন।

কফি:

রাতে বা রাতে ঘুমানোর আগে কফি একেবারেই খাওয়া যাবে না। কফি খুব দ্রুত আমাদের স্নায়ুতন্ত্রকে প্রভাবিত করে।

চীজ:

আপনার যদি দুধ এবং দুগ্ধজাত খাবারের প্রতি অসহিষ্ণুতা বা অ্যালার্জি কিছুটা হলেও থাকে তাহলে আপনি রাতে ঘুমানোর আগে পনির বা চীজ খেতে যাবেন না।

এছাড়া এমন কিছু চিজ রয়েছে যা আপনার এড়ানো উচিত। বয়স্ক বা সংরক্ষণ করে রাখা চিজগুলিতে টাইরামিন থাকে, একটি অ্যামিনো অ্যাসিড যা নরপাইনফ্রিনের উৎপাদন বৃদ্ধি করে। ঘুমের গুণমানকে হ্রাস করতে পারে।

চকলেট:

খারাপ সংবাদের বাহক হওয়ার জন্য দুঃখিত। তবে রাতের খাবারের পরে চকোলেট খাওয়া নিষেধ। কফির মতো, ডার্ক চকোলেটেও রয়েছে ক্যাফিন, যা উত্তেজনা বাড়িয়ে তুলতে পারে। আপনার শরীরের স্বাভাবিক নিয়মে বাধা সৃষ্টি এবং ঘুমের গভীর পর্যায়ে বিকাশ ও বজায় রাখার ক্ষমতা হ্রাস করতে পারে।

টমেটো:

রাতে ঘুমানোর আগে টমেটো খাবেন না। এই ফলটি (হ্যাঁ, এটি ফল, সবজি নয়) সুপার অ্যাসিডিক? টমেটো এবং টমেটো ভিত্তিক পণ্যগুলি আপনার ঘুমের ক্ষমতাকে সত্যই ধ্বংস করে দিতে পারে।

অ্যালকোহল:

গবেষণায় দেখা গেছে যে, বিছানার আগে অ্যালকোহল পান করা আপনাকে সারা রাত জাগার সম্ভাবনা তৈরি করতে পারে এবং ঘুমের গুণমানকে হ্রাস করে দেয়। আমরা আরও জানি যে, অ্যালকোহল শুকিয়ে যাওয়া বা dehydration-এর কারণ হতে পারে।

কাঁচা সবজি:

রাতে বা রাতে ঘুমানোর আগে কাঁচা পেঁয়াজ না খাওয়াই ভালো। এটা এই কারণে নয় যে, আপনাকে কাউকে ঘুমানোর আগে গুডনাইট বলতে হবে বা আপনি কাউকে চুম্বন করতে বাধাপ্রাপ্ত হবেন। পেঁয়াজগুলি গ্যাসের কারণ হতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে যে, কাঁচা পেঁয়াজ ইতিমধ্যে হৃদরোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে রিফ্ল্যাক্সের এবং দীর্ঘস্থায়ী অনুভূতি সৃষ্টি করতে পারে। এছাড়া রাতে ঘুমানোর আগে কাঁচা সবজি যেমনঃ ব্রোকলি, ফুলকপি, পাতাকপি ইত্যাদি না খাওয়া ভালো।

আইসক্রিম:

রাতে ঘুমানোর আগে প্রচুর চিনি সমৃদ্ধ আইসক্রিম না খাওয়াই ভালো।

তরমুজ:

রাতের বেলা তরমুজ খাওয়া আপনার স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকারক এর পক্ষে কিছু পরীক্ষালব্ধ ফলাফল তো রয়েছে। তবে আয়ুর্বেদের মতে, রাতে তরমুজ খেলে খিটখিটে আন্ত্রিক সিন্ড্রোম/পেটের মধ্যে অস্বস্থি এবং অন্যান্য হজমে সমস্যা হতে পারে।

সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর বাথরুম সেরে আমরা ফ্রেশ হয়ে সকালের খাবার খেয়ে থাকি। এই সময় আমাদের হজমশক্তি সর্বাধিক সক্রিয় থাকে। এর পর ধীরে ধীরে কমতে থাকে এবং সন্ধ্যার পর থেকে শরীরের হজমব্যবস্থা কমে যায়। এজন্যই ডিনারে হালকা খাবার রাখতে বলা হয়। তরমুজে অনেক পানি এবং প্রাকৃতিক অ্যাসিড থাকে, যা হজমের ক্ষেত্রে পেটে ব্যথা বা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার কারণ হতে পারে।

তরমুজে অনেক প্রাকৃতিক চিনি রয়েছে। যদিও শরীরের জন্য এটি ভালো, তবে রাতে মিষ্টিজাতীয় খাবার পরিহার করা উচিত। এতে ওজন বাড়তে পারে।

তরমুজে ৯২ শতাংশ পর্যন্ত পানি থাকে। তাই রাতে তরমুজ খেলে, বারবার টয়লেটে যেতে হতে পারে আপনাকে। এ ছাড়াও পেটে ফোলা ভাব হতে পারে।বিরক্তিকর ঘুম কেউ চাইনা। রাতে তরমুজ খেলে এবং উপরোক্ত সমস্যাগুলো দেখা দিলে রাতে আপনি ঠিকমতো ঘুমাতে পারবেন না।

ড্রায়েড ফ্রুইট বা শুকনো ফল:

যে খাবারগুলি হজম করা শক্ত এবং প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে তা বেদনাদায়ক গ্যাসের কারণ হতে পারে। অত্যধিক শুকনো ফল(খেঁজুর, কিসমিস ) মটরশুটি ও উচ্চ ফাইবার যুক্ত ফল এবং শাকসবজি আপনার দেহের জন্য দুর্দান্ত তবে ঘুমের জন্য দুর্দান্ত নয়; শোবার আগে এগুলি এড়াতে চেষ্টা করুন।

হিডেন ক্যাফিনযুক্ত খাবার:

পুষ্টির লেবেল পরীক্ষা করুন। অনেক খাবারের ক্যাফিন থাকে, এমনকি আপনি যখন এটি আশা নাও করতে পারেন। অন্যথায় লেবেল না দেওয়া হলে চা এবং সোডা সাধারণত ক্যাফিনেটেড থাকে। এছাড়াও, কিছু আইসক্রিম এবং মিষ্টান্নগুলির মধ্যে রয়েছে এসপ্রেসো, কফি বা চকোলেট। ক্যাফিনযুক্ত চকোলেট অন্যান্য খাবারে উত্তেজক হিসাবে কাজ করে।

সতর্কতাঃ

যা কিছু খাবেন পরিমাণমতো খাবেন। আপনার শরীরের অবস্থা বুঝে খাবেন।  আপনি যদি জটিল কোনো রোগে আক্রান্ত হন বা অন্য কোনো কারণে রেগুলার কোনো মেডিকেল কোর্স-এর মধ্য দিয়ে যান তাহলে অবশ্যই খাওয়ার আগে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন।

সূত্রঃ

https://www.eatthis.com/foods-that-affect-sleep/

https://www.webmd.com/sleep-disorders/ss/slideshow-sleep-foods

 

 

 

 

 

Share