রূপচর্চায় বেসনের কয়েকটি ফেসপ্যাক।

বেসন আমাদের সকলের কাছে পরিচিত একটি রান্নার সামগ্রী। কিন্তু এর কাজ যে শুধু ভাজাপোড়া বা বিভিন্ন খাবার তৈরিতে নয়, এর বাইরেও বেসনের রয়েছে নানান উপকারিতা। এখন রূপচর্চায় এর অবদান কোনো অংশে কম নয়। অনেক কাল আগে থেকেই দাদী-নানীরা তাদের রূপচর্চা এবং ত্বকের বিভিন্ন সমস্যায় ব্যবহার করে আসছেন এই বেসন। বেসন ত্বকের মৃত কোষ দূর করে ত্বককে উজ্জ্বল করে তোলে। নিয়মিত বেসনের ফেইসপ্যাক ব্যবহার করলে ত্বকে নানা ধরণের পরিবর্তন আনা সম্ভব। ত্বক ফর্সা ও টানটান করতে এবং ত্বকের অবাঞ্ছিত লোমসহ মুখের বিভিন্ন সমস্যা দূর করতে ব্যবহার করতে পারেন বেসন।                                           

নিচে বাসনের কয়েকটি ফেইসপ্যাক দেওয়া হলো-

কলা ও বেসন:

সুমিষ্টি ফল কলা ত্বককে ভেতর থেকে আর্দ্রতা যোগাতে এবং ত্বককে কোমল রাখতে সহায়তা করে। যাদের ত্বক শুষ্ক তাদের জন্য এই ফেইসপ্যাকটি ব্যবহার করা খুবই উপকারী।এক্ষেত্রে ৪-৫ টুকরা পাকা কলা, দুই চামচ বেসন ও দুই চামচ দুধ। একসঙ্গে মিশিয়ে ১০-১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখতে হবে।

মুলতানি মাটি ও বেসন:

ত্বকের যত্নে প্রাকৃতিক উপাদান মুলতানি মাটির ব্যবহার বহু পুরনো। মুলতানি মাটি ত্বকের বাড়তি তেল ও ময়লা দূর করতে খুবই ভালো কাজ করে এবং লোমকূপকে ভেতর থেকে পরিষ্কার করে। মিশ্র ও তৈলাক্ত ত্বকের জন্য মুলতানি মাটি ব্যবহার করলে সবচেয়ে বেশি উপকার পাওয়া যায়। এক্ষেত্রে দুই চামচ মুলতানি মাটি, এক চামচ বেসন ও এক চামচ গোলাপজল। একসাথে মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করে ত্বকে ভালো ম্যাসাজ করে ১৫ মিনিটের জন্য রেখে দিতে হবে। এরপর মুখ ধুয়ে ৭ থেকে ৮ ফোঁটা নারিকেল তেল মুখে ম্যাসাজ করে নিতে হবে।

মেথি ও বেসন:

মুখের অবাঞ্ছিত লোম দূর করতে অনেক আগে থেকেই ব্যবহার হয়ে আসছে বেসন। মেথি গুঁড়ো এবং বেসনের সাথে পানি মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। মুখের যেসব জায়গায় লোম রয়েছে সেখানে এই মিশ্রণটি লাগান। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। ভালো ফলাফলের জন্য প্রতিদিন এই ফেইস প্যাকটি ব্যবহার করুন।                                                                                                                                              

অ্যালোভেরা ও বেসন:

অ্যালোভেরা পাতার জেলে থাকা পলিস্যাকারাইড ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ত্বকের জন্য খুবই উপকারী একটি উপাদান। বেসনের সাথে অ্যালোভেরা মিশিয়ে ব্যবহার করলে তার উপকারিতা পাওয়া যাবে সর্বোচ্চ।এক্ষেত্রে ব্যবহারের জন্য এক চা চামচ বেসন ও এক চা চামচ অ্যালোভেরা পাতার জেল প্রয়োজন।এই দুইটি উপাদান একসাথে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে মুখের ত্বকে ভালোভাবে লাগান। ১৫ মিনিট অপেক্ষা করে ত্বক ধুয়ে ফেলুন। শুষ্ক, তৈলাক্ত, মিশ্র কিংবা স্বাভাবিক সকল ধরনের ত্বকের সাথেই মানিয়ে যাবে এই ফেসপ্যাকটি।

হলুদ, দুধ ও বেসন:

১ টেবিল চামচ বেসনের সঙ্গে ১ চিমটি হলুদ ও প্রয়োজন মতো দুধ মিশিয়ে তৈরি করুন ফেইসপ্যাক। মিশ্রণটি ত্বকে ১৫-২০ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। এটি ব্রণের দাগ দূর করবে। পাশাপাশি ত্বক হবে কোমল ও উজ্জ্বল।

বেসন ও টমেটো:

ত্বকের কালচে দাগ দূর করতে সাহায্য করে টমেটো ও বেসনের ফেইসপ্যাক। অর্ধেকটা টমেটো কেটে ব্লেন্ড করে ৩ টেবিল চামচ বেসনের সঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। ২০ মিনিট ত্বকে লাগিয়ে রেখে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

কমলার খোসা, বেসন ও দুধ:

টেবিল চামচ বেসনের সঙ্গে ১ চা চামচ কমলার খোসার গুঁড়া মেশান। দুধ মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। ঘষে ঘষে ত্বকে লাগান মিশ্রণটি। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে ত্বকে জমে থাকা মরা চামড়া দূর হবে এবং ত্বক হবে উজ্জ্বল।