কি কি লক্ষণ দেখলে বুঝবেন আপনার চোখে চশমার প্রয়োজন?

চোখের সমস্যা কম-বেশি আমাদের সবারই হয়। কিন্তু অনেকে আছেন, যারা বুঝতে পারেন না তাদের চোখে সমস্যা হয়েছে কিনা বা কখন চোখে চশমা ব্যবহার করতে হবে। অন্য সব কিছুর মতোই সমস্যা না হলে চোখের ডাক্তারের কাছে আমরা তেমন যায় না।

সাধারণ লেখা পড়তে যদি চোখ ছোট করে ভালোভাবে দেখতে হয় কিংবা মোবাইলে কিছু পড়তে যদি কাছে আনতে হয় তবে বুঝতে হবে দৃষ্টিশক্তি দূর্বল হয়ে গেছে। এই অবস্থায় অনেকেই অবহেলা করেন। দৃষ্টিশক্তি দূর্বল হয়ে যাওয়ার কারণে বুঝবেন চশমা নেওয়ার দরকার।

চশমা কেন পরতে হবে?

নানা কারণে আমরা দূরে বা কাছের জিনিস ভালোভাবে দেখতে পাই না। একে দৃষ্টিবিভ্রম বা (Refractive error) বলা হয়। নির্দিষ্ট পাওয়ারের উত্তল বা অবতল লেন্সের চশমা পরলে তবেই আবার সবকিছু ভালোভাবে দেখতে পাওয়া যায়।

তাছাড়া চশমা না পরলে মাথা ও চোখে ব্যাথা, চোখের ক্লান্তি, চোখ থেকে জল পড়া ইত্যাদি নানা উপসর্গ দেখা দেয়। চলুন জেনে নেওয়া যাক, কি কি লক্ষণ দেখলে আমরা বুঝবো আমাদের চশমার প্রয়োজন-

চোখ লাল অথবা গোলাপি হওয়া:

চোখ লাল অথবা গোলাপি হওয়া খুবই বিপদজনক। কনজাংটিভাইটিস প্রদাহ, অ্যালার্জি বা চোখে ছানি পড়ার কারণে এমনটি হয়। তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ছানি পড়ার কারণে হয়। ছানি পড়লে চোখের আইরিশ ও পিউপিল একটা স্বচ্ছ লেয়ারে ঢাকা পড়ে।

অনেক সময় এটি চোখের গভীরে প্রবেশ করে। এ কারণে দ্রুত চিকিৎসাকের পরামর্শ নিতে হবে ও চশমা ব্যবহার করতে হবে।

রাতে কম দেখা:

রাতের বেলায় চোখে কম দেখলে এবং ব্যাপারটি নিয়মিত ঘটনায় পরিণত হলে তা হতে পারে চোখে ছানি পড়ার পূর্বাভাস কিংবা কোনো ওষুধের পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া। দুটোই গুরুতর বা বিপদজনক সমস্যা। তাই এর অবহেলা একদম করা যাবে না। অবহেলা করলে চোখের বড় কোন সমস্যা হতে পারে।

ঝাপসা দেখা:

তিন থেকে চার ফিট দুরত্বে থাকা যে কোনো কিছু যদি ঝাপসা দেখেন তবে বুঝতে হবে চোখের সমস্যা হয়েছে। যদি আপনি সোফায় বসে টিভি দেখছেন, কিন্তু ভালো দেখতে পারছেন না। বুঝে নেবেন আপনার চোখকে ডাক্তার দেখানোর সময় হয়েছে। এ ক্ষেত্রে চিকিৎসক হয়তো চোখের ড্রপ, ওষুধ অথবা চশমা দিতে পারেন।

চোখে ব্যথা করা:

চোখে ব্যথা করা মোটেও ভালো লক্ষণ নয়। চোখ ব্যথা মানুষকে অন্ধ করে দিতে পারে। তীব্র গ্লুকোমারের কারণে এটি হয়। এর ফলে অপটিক স্নায়ু ক্ষতিগ্রস্ত ও চোখ অন্ধ হয়ে যায়। তাই চোখ ব্যথা করলে দেরি না করে ডাক্তারের পরমর্শ নিতে হবে এবং চশমা ব্যবহার করতে হবে।

মাথাব্যথা:

মাথাব্যথা নানা কারণে হয়ে থাকে। চোখের পেশির উপর অতিরিক্ত চাপ পড়লে দেখা দেয় মাথাব্যথা। কর্নিয়া আর লেন্সকে সঠিকভাবে কোনো কিছুর উপর ‘ফোকাস’ করতে যে পেশিগুলো সাহায্য করে সেগুলো ঠিকভাবে কাজ না করলেই তাদের উপর বাড়তি চাপ পড়ে এবং মাথাব্যথা শুরু হয়।

এজন্য মাথাব্যথা হলে অবহেলা না করে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে।

চোখের অবসাদ:

আধা ঘণ্টা বই পড়লে কিংবা বৈদ্যুতিক পর্দার দিকে তাকিয়ে থাকার পর চোখে কেমন অনুভুতি হয়? জ্বালাভাব, ব্যথা, অবসাদ অনুভব করলে একটানা এতক্ষণ কোনো কিছুর দিকে তাকিয়ে থাকা থেকে বিরত থাকতে হবে। চোখের অবসাদ থেকে মুক্তি পেতে প্রচুর পানি পান করতে হবে এবং এর পাশাপাশি চশমা ব্যবহার করতে হবে।

  • চোখ একটি সুক্ষ জিনিস, তাই চোখের কোন সমস্যা হলে যত দ্রুত সম্ভব ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।
Share