স্ট্রোক প্রতিরোধের উপায়।

স্ট্রোক হলো ব্রেন বা মস্তিষ্কের রোগ। আমাদের সুস্থ্য ভাবে বেঁচে থাকার জন্য শরীরের প্রতিটি কোষে এবং মস্তিষ্কের কোষে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত সঞ্চালন করা খুব প্রয়োজন। যদি মস্তিষ্কের রক্তবাহী ধমনীর পথ সংকীর্ণ হয়ে যায় বা রক্ত প্রবাহ বাধাপ্রাপ্ত হয় এবং যদি রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে যায় তাহলে মস্তিষ্কের কোষ অক্সিজেনের অভাবে নিস্তেজ হয়ে পড়ে।

এটাকে চিকিৎসকেরা স্ট্রোক বলে থাকেন। স্ট্রোক মানে মৃত্যু না হলেও মৃত্যুর মুখোমুখি হওয়ার মতো। মানুষের বয়স বাড়ার সাথে সাথে স্ট্রোকের ঝুঁকিও বৃদ্ধি পায়। স্ট্রোক প্রতিরোধে সাহায্য করার সর্বোত্তম উপায় হল স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, নিয়মিত ব্যায়াম করা, ধূমপান এবং অত্যধিক অ্যালকোহল পান করা থেকে বিরত থাকা।

স্ট্রোক প্রতিরোধের উপায়

>স্ট্রোক প্রতিরোধের উপায় নিচে আলোচনা করা হলো-

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ:

স্ট্রোকের একটি অন্যতম কারণ হলো উচ্চ রক্তচাপ। অতিরিক্ত চিন্তার কারণে উচ্চ রক্তচাপ হতে পারে। অনেক সময় দেখা যায় অনেকের ক্ষেত্রে রক্তচাপ ওঠা নামা করে। রক্তচাপের এই ধরনের তারতম্য হলে আমাদের স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ে। 

রক্তচাপ সব সময় ১২০/৮০ বা ১৪০/৯০ এর নিচে রাখার চেষ্টা করতে হবে। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে লবণ কম খেতে হবে। এবং নিয়মিত রক্তচাপ পরিক্ষা করতে হবে।

ওজন কমানো:

আমাদের শরীরে অতিরিক্ত মেদ স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায় দেয় বহু গুণ। অতিরিক্ত মেদের কারণে আমাদের শরীরের কোলেস্টরলের বৃদ্ধি পায় এবং হৃদযন্ত্র স্বাভাবিক কাজে বাধাগ্রস্ত হয়। এর কারনে স্ট্রোকের ঝুঁকি বেড়ে যায়। তাই আমাদের দেহের ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখতে হবে।

ব্যায়াম করা:

নিয়মিত ব্যায়াম কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে এবং রক্তচাপ ঠিক রাখতে সাহায্য করে। প্রতিদিন ১ ঘন্টা ব্যায়াম করতে হবে। জগিং বা জোরে হাঁটা কিংবা যোগাসন, যেটা করতে ভালো লাগে সেটাই করুন। এতে আমাদের স্ট্রোকের ঝুঁকি অনেকাংশে কমে যাবে।

অ্যালকোহল থেকে দূরে থাকুন:

অতিরিক্ত অ্যালকোহল সেবনের ফলে উচ্চ রক্তচাপ এবং অনিয়মিত হৃদস্পন্দন হতে পারে, যা উভয়ই স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে। অতিরিক্ত মদ্যপান স্ট্রোকের ঝুঁকি ৩ গুণেরও বেশি বৃদ্ধি করে দেয়।

 ধূমপান ত্যাগ করুন:

ধূমপান হলো আমাদের স্ট্রোকের প্রধান কারণ। কারণ ধূমপান ধমনী সংকীর্ণ করে এবং রক্ত জমাট বাঁধার সম্ভাবনা বৃদ্ধি করে। ধূমপানের কারণে আমাদের ফুসফুসকে নষ্ট হতে শুরু করে। ধূমপানের কারণে আমাদের উচ্চ রক্তচাপ সৃষ্টি হতে পারে। যা আমাদের স্ট্রোকের ঝুঁকি অনেকাংশে বাড়়িয়ে দেয়। নিয়মিত ব্যায়াম করা এবং ওজন কমানোর পাশাপাশি আমাদের ধূমপানের অভ্যাসও ত্যাগ করতে হবে স্ট্রোকের ঝুঁকি কমানোর জন্য।

স্বাস্থ্যকর ডায়েট:

একটি অস্বাস্থ্যকর ডায়েট স্ট্রোক হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয় হাজার গুণ। কারণ অস্বাস্থ্যকর ডায়েট রক্তচাপ এবং কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়িয়ে তুলতে পারে। মসলাদার তেল চর্বি যুক্ত ফাস্ট ফুডের পরিবর্তে কম চর্বিযুক্ত খাবার, উচ্চ ফাইবারযুক্ত খাবার, প্রচুর তাজা ফল, সবজি এবং আস্ত শস্যদানা খাওয়ার অভ্যাস করুন।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ:

উচ্চ রক্তে শর্করার কারণে সময়ের সাথে রক্তনালীর ক্ষতি হয়। তাই আমাদের ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা খুব জরুরী। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে এবং পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ গ্রহণ করতে হবে। এছাড়া ব্যয়াম করুন স্বাস্থ্যকর ডায়েট মেনে চলুন।

ফাস্ট (FAST) কে জানুন:

FAST এর অর্থ F=Face A=Aram S=Speech T=Time. আমাদের মধ্যে অধিকাংশ মানুষ অনেক সময় স্ট্রোকের প্রাথমিক কারণ বুঝতে পারে না। এর কারণে সময়মতো চিকিৎসা না পাওয়ার জন্য প্রাণ হারাতে হয়। একটু লক্ষ্য করলে আমরা বুঝতে পারি স্ট্রোক হয়েছে কিনা। এক্ষেত্রে ফাস্টকে মনে রাখতে হবে। F=Face (মুখ) কোনো আক্রান্ত ব্যক্তিকে মুখের দিকে তাকিয়ে হাসতে বলুন। যদি তার হাসতে সমস্যা হয় বা হাসার সময় মুখ বাঁকা হয়ে আসে তাহলে স্ট্রোকের সম্ভাবনা বেশ। A=Aram (বাহু) আক্রান্ত ব্যক্তিকে দুই হাত মাথার উপরে তুলতে বলুন। এতে যদি তার এটা করতে কষ্ট হয় এবং  যে কোনো হাতে ব্যাথা লাগে তাহলে স্ট্রোকের সম্ভাবনা আছে। S=Speech (কথা বলা) আক্রান্ত ব্যক্তির যদি কথা বলতে সমস্যা হয় বা কথা জড়িয়ে যায় তাহলে দ্রুত চিকিৎসা নিতে হবে। T=Time (সময়) এই মধ্যে যেকোনো লক্ষণ দেখা দিলে অব্যশই দ্রুত চিকিৎসা নিতে হবে।

আমরা এসব দিকে খেয়াল রাখলে আমরা স্ট্রোকের ঝুকি প্রতিরোধ করতে পারবো। তবে যাদের একবার স্ট্রোক হয়ে গেছে তাদের আরো বেশি সতর্ক হতে হবে।

রেফারেন্স: