সূর্যমুখী বীজ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে, চুল পড়া রোধ করে ও প্রদাহ হ্রাস করে।

সূর্যমুখী সব থেকে চিত্তাকর্ষক ফুল গুলির মধ্যে একটি। যেমন তার রঙ তেমন তার অপরূপ সৌন্দর্য্য। যেন এক একটি সূর্য দাঁড়িয়ে আছে। ফুলের চারপাশটা হলুদ পাঁপড়ি দিয়ে ঘেরা মাঝ খানটাই বীজ। একটি সূর্যমুখী ফুলে ২,০০০ অবধি বীজ থাকতে পারে।

আজ আমরা সূর্যমুখী বীজ এর স্বাস্থ্য উপকারিতা নিয়ে আলোচনা করবো। এই বীজ স্বাস্থ্যকর চর্বি, উপকারী উদ্ভিদ যৌগ এবং বেশ কয়েকটি ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ।

সূর্যমুখী বীজ তার স্বাস্থ্যকর পুষ্টি প্রোফাইলের জন্য পরিচিত। আপনার হার্টের রোগ এবং টাইপ-2 ডায়াবেটিস সহ সাধারণ স্বাস্থ্য সমস্যার ঝুঁকি হ্রাসে ভূমিকা রাখতে পারে সূর্যমুখী বীজ।

সূর্যমুখী বীজের মধ্যে বিশেষত ভিটামিন “ই” এবং সেলেনিয়াম বেশি থাকে। এগুলি অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টস হিসাবে দেহের কোষগুলিকে ফ্রি র‌্যাডিক্যাল ক্ষতির বিরুদ্ধে রক্ষা করার জন্য কাজ করে। এছাড়া সূর্যমুখী বীজ ফেনোলিক অ্যাসিড এবং ফ্ল্যাভোনয়েড সহ উপকারী উদ্ভিদ যৌগগুলির একটি ভাল উৎস – যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস হিসাবেও কাজ করে।

সূর্যমুখী বীজের পুষ্টি উপাদান

নিচে সূর্যমুখী বীজের পুষ্টি উপাদান দেওয়া হলো –

  • ক্যালোরি: ১৬৩
  • মোট চর্বি: ১৪ গ্রাম
  • স্যাচুরেটেড ফ্যাট: ১.৫ গ্রাম
  • পলিয়ুনস্যাচুরেটেড ফ্যাট: ৯.২ গ্রাম
  • মনস্যাচুরেটেড ফ্যাট: ২.৭ গ্রাম
  • প্রোটিন: ৫.৫ গ্রাম
  • কার্বস: ৬.৫ গ্রাম
  • ভিটামিন “ই”: ৩৭% (RDI)
  • নিয়াসিন: ১০% (RDI)
  • ভিটামিন “বি-6”: ১১% (RDI)
  • ফোলেট: ১৭% (RDI)
  • প্যানোথেনিক অ্যাসিড: ২০% (RDI)
  • আয়রন: ৬% (RDI)
  • ম্যাগনেসিয়াম: ৯% (RDI)
  • জিঙ্ক: ১০% (RDI)
  • কপার: ২৬% কপার (RDI)
  • ম্যাঙ্গানিজ: ৩০% (RDI)
  • সেলেনিয়াম: ৩২% (RDI)

flower seeds

সূর্যমুখী বীজের স্বাস্থ্য সুবিধা

সূর্যমুখী বীজ রক্তচাপ, কোলেস্টেরল এবং রক্তে শর্করার মাত্রা হ্রাস করতে সহায়তা করতে পারে কারণ এতে ভিটামিন “ই”, ম্যাগনেসিয়াম, প্রোটিন, লিনোলিক ফ্যাটি অ্যাসিড এবং বিভিন্ন উদ্ভিদ যৌগ রয়েছে। নিচে সূর্যমুখী বীজের স্বাস্থ্য উপকারিতা নিয়ে আলোচনা করা হলো –

প্রদাহ হ্রাস করে:

দীর্ঘস্থায়ী প্রদাহ অনেকগুলি দীর্ঘস্থায়ী রোগের জন্য ঝুঁকির কারণ।
৬,০০০ এরও বেশি প্রাপ্তবয়স্কদের উপর সমীক্ষায় দেখা গেছে, যারা সপ্তাহে কমপক্ষে পাঁচবার সূর্যমুখী বীজ এবং অন্যান্য বীজ খেয়েছিলেন তাদের তুলনায় সি-প্রতিক্রিয়াশীল প্রোটিনের (C-reactive protein) মাত্রা ৩২% কম ছিল। প্রদাহজনক সি-প্রতিক্রিয়াশীল প্রোটিনের রক্তের বর্ধিত মাত্রা হৃদরোগ এবং টাইপ 2 ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়ায়।

সূর্যমুখী বীজে ফ্ল্যাভোনয়েডস এবং অন্যান্য উদ্ভিদ যৌগগুলি সমৃদ্ধ যা প্রদাহ হ্রাস করতে সহায়তা করে।

হার্টের রোগ:

উচ্চ রক্তচাপ হার্টের রোগের জন্য একটি বড় ঝুঁকির কারণ, যা হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের কারণ হতে পারে। সূর্যমুখী বীজে থাকা যৌগ এনজাইমকে ব্লক করে যা রক্তনালীগুলিকে সংকুচিত করে তোলে। এটি আপনার রক্তনালীগুলি শিথিল করতে এবং আপনার রক্তচাপকে হ্রাস করতে সহায়তা করে।

সূর্যমুখী বীজগুলিতে অসম্পৃক্ত ফ্যাটি অ্যাসিড বিশেষত লিনোলিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ। আপনার দেহ হরমোন জাতীয় যৌগ তৈরি করতে লিনোলিক অ্যাসিড ব্যবহার করে যা রক্তনালীগুলি শিথিল করে, রক্তচাপ কমাতে পারে। একটি ৩ সপ্তাহের গবেষণায়, টাইপ-2 ডায়াবেটিসযুক্ত মহিলারা যারা প্রতিদিন ১ আউন্স (৩০ গ্রাম) সূর্যমুখী বীজ খান তাদের সিস্টোলিক রক্তচাপের ৫% হ্রাস পেয়েছিল।

কোলেস্টেরল কমায়:

সূর্যমুখী বীজে থাকা ফ্যাটি অ্যাসিড কোলেস্টেরল কমাতে সহায়তা করে। প্রতিদিন ১ আউন্স সূর্যমুখী বীজ খেলে “খারাপ” LDL কোলেস্টেরল এর মাত্রা ৯% এবং ট্রাইগ্লিসারাইড ১২% হ্রাস পায়।

seeds sun

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ভালো:

ব্লাড সুগার এবং টাইপ-2 ডায়াবেটিসে সূর্যমুখীর বীজের প্রভাব নিয়ে কয়েকটি গবেষণায় দেখা যায় যে, যারা স্বাস্থ্যকর ডায়েটের অংশ হিসাবে প্রতিদিন ১ আউন্স (৩০ গ্রাম) সূর্যমুখী বীজ খান তারা ছয় মাসের মধ্যে রক্তের সুগার প্রায় ১০% হ্রাস করতে পারে।

সূর্যমুখী বীজ রক্তের সুগার কমাতে পারে উদ্ভিদ যৌগ ক্লোরোজেনিক অ্যাসিডের কারণে। অধ্যয়ন আরও পরামর্শ দেয় যে রুটির মতো খাবারগুলিতে সূর্যমুখী বীজ যুক্ত করা রক্তে চিনির উপর কার্বসের প্রভাব হ্রাস করতে সহায়তা করে।

চুল পড়া রোধ করে:

সূর্যমুখীর বীজে রয়েছে ভিটামিন বি-৬ যা মাথার স্কাল্পে অক্সিজেন সাপ্লাই করে চুলপড়া রোধ করে ও স্বাস্থ্যোজ্জ্বল নতুন চুল জন্মাতে সাহায্য করে। এতে আরও রয়েছে কপার যা চুলের স্বাভাবিক রং ধরে রাখে।

সমৃদ্ধ অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট:

সূর্যমুখী বীজ ভিটামিন “ই” সমৃদ্ধ যা চর্বিযুক্ত দ্রবণীয় অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট এবং রোগ-সৃষ্টিকারী ফ্রি র‌্যাডিকেলগুলির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সহায়তা করতে পারে। বীজে এন্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্যও রয়েছে যা ঠাণ্ডা এবং কাশির লক্ষণগুলি দূর করতে পারে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে:

ভিটামিন “ই”, জিঙ্ক এবং সেলেনিয়াম উপস্থিতির কারণে সূর্যমুখীর বীজ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারে। ভিটামিন “ই” রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং বেশ কয়েকটি সংক্রামক রোগ থেকে রক্ষা করে। ভিটামিন “ই” এটি একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট এবং আমাদের দেহের স্বাস্থ্যকর কোষগুলিকে ক্ষতিকারক ফ্রি র‌্যাডিক্যাল এর হাত থেকে রক্ষা করে।

এছাড়া সেলেনিয়াম প্রদাহ হ্রাস করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এটি ফ্রি র‌্যাডিকালগুলি থেকে জারণ চাপ কমাতেও সহায়তা করে।

ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করে:

সূর্যমুখী বীজে উপস্থিত ফাইটোস্টেরল বিটা-সিটোস্টেরল (Beta-sitosterol, a phytosterol) স্তনের ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে। এটি টিউমার কোষের বৃদ্ধিতে বাধা দেয়, টিউমারের আকার হ্রাস করে এবং মেটাস্ট্যাসিস প্রতিরোধ করে।

সূর্যমুখী বীজে শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলির উপস্থিতি ক্যান্সারের ঝুঁকিও হ্রাস করে। এই বীজ গ্রহণের ফলে কোলন ক্যান্সারের সম্ভাবনাও হ্রাস পায়।

three sunflower

মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বৃদ্ধি করে:

সূর্যমুখী বীজে ভিটামিন বি-6 থাকে। এটি মেজাজ, একাগ্রতা উন্নত করে এবং স্মৃতিশক্তি বাড়ায়। এটি আমাদের দেহে সেরোটোনিন এবং নোরপাইনফ্রিন প্রকাশ করে।

সূর্যমুখী বীজ প্রাক মাসিক সিনড্রোমের সাথে সম্পর্কিত লক্ষণগুলি সহজ করতে সহায়তা করে।

ক্ষতিকর দিক

সূর্যমুখী বীজ স্বাস্থ্যকর হলেও এগুলির বেশ কয়েকটি ক্ষতিকর দিক রয়েছে। যেমন:

  • পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ হলেও সূর্যমুখীর বীজ তুলনামূলকভাবে ক্যালোরি বেশি। বেশি পরিমাণে সেবন করলে ওজন বাড়তে পারে।
  • পরিমিত পরিমাণে সূর্যমুখী বীজ খাওয়ার আর একটি কারণ হল ক্যাডমিয়াম সামগ্রী। যদি অনেক দিন ধরে উচ্চ পরিমাণে ক্যাডমিয়াম গ্রহণ করেন তবে এটা আপনার কিডনিতে ক্ষতি করতে পারে। সূর্যমুখী মাটি থেকে ক্যাডমিয়াম নিয়ে তাদের বীজে জমা রাখে, তাই এগুলিতে অন্যান্য খাবারের তুলনায় কিছুটা বেশি পরিমাণে ক্যাডমিয়াম থাকে।
  • সূর্যমুখীর বীজের অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়ার ফলে বমিভাব, পেট ব্যথা এবং কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে।
  • অ্যালার্জিযুক্ত লোকেরা সূর্যমুখী বীজ খাওয়ার ফলে বমিভাব, ফুসকুড়ি, শ্বাসকষ্ট, মুখের চারপাশে ফোলাভাব এবং চুলকানির মতো লক্ষণগুলি দেখাতে পারে
  • অঙ্কুরিত বীজ খাওয়ার ফলে ব্যাকটিরিয়া সংক্রমণ হতে পারে।

সতর্কতা:

আপনি যদি জটিল কোনো রোগে আক্রান্ত হন বা অন্য কোনো কারণে রেগুলার কোনো মেডিকেল কোর্স-এর মধ্য দিয়ে যান তাহলে অবশ্যই খাওয়ার আগে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন।

রেফারেন্স: