সর্ব-অঙ্গে ব্যথা? যে পদ্ধতি ও খাবারগুলি প্রাকৃতিক ব্যথানাশক।

শরীরের ব্যথা বা বাতের ব্যথা যেটাই বলুন না কেনো ব্যথা আমাদের নিত্যসঙ্গী। এই ব্যথা উপশম করার জন্য ঔষুধ একটি কার্যকর উপায়। তবে এসব ব্যথা উপশমকারী ঔষুধের অনেক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা ডাউনসাইড রয়েছে। আমাদের একটা বাজে অভ্যাস গড়ে উঠেছে। শরীরে কোনো প্রকার ব্যথা হলেই painkiller বা ব্যথানাশক ক্যাপসুল বা ট্যাবলেট খায়। ব্যথানাশক এই সব ঔষুধ নিয়মিত খেয়ে লিভার, কিডনিসহ শরীরের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের ক্ষতি করছি।

অনেক টাকা যেমন ব্যয় করছি তেমনি এর পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়াও মারাত্মক। কিন্তু অল্প খরচ ও পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়ামুক্ত প্রাকৃতিক ব্যথা উপশমের বিষয়টি আমরা গুরুত্বের সাথে দেখি না। নিয়মিত একটু সময় নিয়ে এই পদ্ধতিগুলো মেনে চললে ও খাবারগুলো গ্রহণ করলে ব্যথার করাল গ্রাস থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভব। এই প্রাকৃতিক ব্যথা উপশমকারীরা আপনাকে ব্যথার ঔষুধের উপর নির্ভরতা থেকে বিরতি দিতে পারে।

দ্রুত ত্রাণ পাওয়ার জন্য একটি বড়ি বা ক্যাপসুল সম্ভবত এটি সহজ উপায় বলে মনে হয় তবে এটি দীর্ঘকালীন আপনার অভ্যন্তরীণ অঙ্গগুলির উপর কঠোর প্রভাব ফেলতে পারে। তাহলে, শরীরের ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়ার সর্বোত্তম উপায় কী হবে? প্রাকৃতিক ঘরোয়া প্রতিকার। এগুলি সহজেই পাওয়া যায়, কম খরচে, কোনও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে না এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণভাবে একেবারে কার্যকর।

আমরা কার্যকর কয়েকটি ঘরোয়া প্রতিকারের জন্য কয়েকটি সহজ পদ্ধতি ও খাবারের কথা বলছি যা কেবলমাত্র শরীরের ব্যথা থেকে দ্রুত ত্রাণ সরবরাহ করবে না তবে আপনাকে দ্রুত পুনরুদ্ধারে সহায়তা করবে। হালকা ব্যথার ক্ষেত্রে এই প্রতিকারগুলি কাজ করে। দীর্ঘস্থায়ী বা উদ্বেগজনক ব্যথার ক্ষেত্রে, কাজ না করলে সঠিক ঔষুধ ও চিকিৎসার জন্য আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগের পরামর্শ দিই।

শীত পড়ার সাথে সাথে শরীরের ব্যথা একটি আদর্শ হয়ে ওঠে। আবহাওয়ার পরিবর্তন তার নিজস্ব চ্যালেঞ্জগুলির সেট নিয়ে আসে এবং শরীরের বিভিন্ন অংশে ব্যথা সবচেয়ে বেশি অনুভূত হয়। এবং যখন আপনার শরীরের কোনও ধরণের শারীরিক ক্রিয়াকলাপে ব্যথা হয় তখন এটি দূর করতে ঘরোয়া বা প্রাকৃতিক পদ্ধতি মেনে চলুন ও খাবারগুলি গ্রহণ করলে অনেকটাই স্বস্তি পাবেন।

এন্ডোরফিন হরমোন বৃদ্ধির উপায়:

এন্ডোরফিন নামক হরমোন আমাদের শরীরের ব্যথা উপশম করে। এন্ডোরফিনস হল একটি পেপটাইড হরমোন যেটি মানুষ এবং অন্যান্য প্রাণীর শরীরে তৈরি হয়। মস্তিষ্কে এবং পিটুইটারি গ্রন্থিতে অ্যান্ডোরফিন উৎপাদিত হয়। এন্ডোরফিনগুলির প্রধান কাজটি হচ্ছে ব্যথার সংকেতের যোগাযোগকে বাধা দেওয়া। এন্ডোরফিন আপনার মস্তিষ্কে পৌঁছার আগেই ব্যথার সংকেতগুলি অবরুদ্ধ করে, এবং উদ্বেগ, স্ট্রেস এবং হতাশা প্রশমিত করতে সহায়তা করে। নিয়মিত ও ধারাবাহিকভাবে ব্যায়াম করলে মস্তিস্ক থেকে এই হরমোনটি নিঃসৃত হয়। স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, হাসিখুশি থাকা এন্ডোরফিন উৎপাদনে ভূমিকা রাখে।

সরিষার তেল:

শরীরের ব্যথায় লড়াই করার আর একটি দুর্দান্ত উপায় হল আস্তে আস্তে সারা শরীর জুড়ে সরিষার তেল ম্যাসাজ করা। ম্যাসাজ করার পরে ৩০-৪৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। গরম পানি দিয়ে গোসলের আগে ভালো হয় যদি একটু গায়ে রোদ লাগাতে পারেন। অবিরাম শরীরের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে এটি প্রায়শ করার চেষ্টা করুন।

ভিটামিন:

আপনার দেহের সঠিকভাবে কাজ করার জন্য ভিটামিনের প্রয়োজন। ভিটামিন বি 1, ই এবং ডি এর ঘাটতি পেশী দুর্বলতা এবং ব্যথার কারণ হতে পারে যা আপনার শরীরকে ক্লান্ত, অবসন্ন এবং শারীরিক ক্রিয়াকলাপের নিমিত্তে অবসন্ন করে তোলে। গাজর, আপেল, এপ্রিকট, বাদাম, পালংশাক এবং মিষ্টি আলু ইত্যাদি ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবারগুলি শরীরের ব্যথা এবং ব্যথার পরিচ্ছন্নতার জন্য অন্তর্ভুক্ত করুন। আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শক্রমে আপনি অতিরিক্ত ভিটামিন সাপ্লিমেন্টও নিতে পারেন।

আদা ও মরিচ:

ব্যথা এবং বমি বমি ভাব সহ বিভিন্ন অবস্থার চিকিৎসার জন্য মানুষ হাজার বছর ধরে আদা ব্যবহার করছে এর শক্তিশালী অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্যর জন্য। যা ঘন ঘন দেহের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে সহায়তা করে। এই প্রতিকারটি পেপটিক আলসারযুক্ত ব্যক্তির পক্ষে ভাল নাও হতে পারে কারণ এটি পেটে জ্বলন সংবেদন এবং জ্বালা সৃষ্টি করতে পারে। কাঁচা মরিচ, শুকনো মরিচ বা চুঁইঝাল যেটাই খান এগুলি ব্যথা কমাতে সহায়তা করে।

আপেল সিডার ভিনেগার:

দুর্দান্ত অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য সহ, আপেল সিডার ভিনেগার অবশ্যই একটি “অলৌকিক নিরাময়”।

দারুচিনি:

দারুচিনিতে শক্তিশালী অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি, অ্যানালজেসিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা এটিকে দেহের ব্যথার চিকিৎসার পাশাপাশি সামগ্রিক স্বাস্থ্যের উন্নতির জন্য সর্বাধিক চাওয়া-পাওয়া প্রতিকারগুলির একটি করে তোলে।

কিভাবে ব্যবহার করবেন?
এক গ্লাস গরম পানিতে এক চা চামচ দারুচিনি গুঁড়ো দিন। ভালো করে নাড়ুন। মিশ্রণে কিছু মধু যোগ করুন এবং সাথে সাথে খেয়ে নিন। সেরা ফলাফলের জন্য আপনার এই মিশ্রণটি নিয়মিত খেতে হবে।

কলা:

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই পটাসিয়ামের ঘাটতি হল দেহ এবং পেশী ব্যথার কারণ। ঘাটতি প্রতিরোধ করতে এবং আপনার শরীরকে তাত্ক্ষণিক শক্তি সরবরাহ করতে প্রতিদিন ২টি কলা খাওয়ার চেষ্টা করুন।

হলুদ:

হলুদে প্রাকৃতিক অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং নিরাময়ের বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা দেহের ব্যথায় লড়াই করতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে।

কিভাবে ব্যবহার করবেন?

এক গ্লাস গরম দুধে এক চা চামচ হলুদ গুঁড়ো দিন। ভালো করে নাড়ুন। এটি 5-10 মিনিটের জন্য শীতল হতে দিন এবং এক চামচ মধুও মেশাতে পারেন। এই মিশ্রণটি প্রতিদিন গ্রহণ করুন, ভালো হয় শুতে যাওয়ার আগে গ্রহণ করলে।

কিছুক্ষন রোদে থাকুন:

প্রতিদিন ১০ মিনিটের সূর্যের সংস্পর্শে আপনার শরীরকে ভিটামিন ডি তৈরি করতে সাহায্য করতে পারে। গবেষকরা বিশ্বাস করেন যে ভিটামিন ডি ক্যালসিয়াম শোষণে সহায়তা করে ব্যথা উপশম করতে সহায়তা করে যা হাড়ের বৃদ্ধি এবং মেরামতের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

ধ্যান করুন বা যোগব্যায়াম করুন:

মেডিটেশন বা ধ্যান বা যোগব্যায়াম করলে রক্তে অক্সিজেন প্রবাহ বেড়ে যায়। পেশি শক্ত ও flexible হয়। ফলে মাংসপেশীসহ শরীরের বিভিন্ন joint-এর ব্যথা কমে। এটা এতটাই ম্যাজিকের মতো কাজ করে যে, সারা বিশ্বে yoga বা যোগব্যায়াম খুবই জনপ্রিয়। এটি প্রাকটিস করার জন্য আপনি অনলাইন ভিডিওর সাহায্য নিতে পারেন।

উপরের ঘরোয়া প্রতিকারের পাশাপাশি এখানে কয়েকটি জীবনধারা পরিবর্তন রয়েছে যা আপনাকে স্বাস্থ্যকর, সক্রিয় এবং ব্যথামুক্ত জীবন যাপনে সহায়তা করতে পারে:

অন্যান্য প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা ব্যথা কমাতে:

প্রতিদিন ১০-১২ গ্লাস পানি পান করা।
স্বাস্থ্যকর ও সুষম ডায়েট খাওয়া।
হাইড্রোথেরাপি বা জলচিকিৎসা গ্রহণ। হাইড্রোথেরাপি হল রক্তচাপ, উদ্বেগ, জয়েন্টগুলোতে ব্যথা এবং পেশী ব্যথা ইত্যাদি কিছু রোগের চিকিৎসার জন্য একটি গরম জলের ট্যাব বা স্পায় শরীর ডুবিয়ে রাখার বা নিমজ্জন করার অনুশীলন।
ধ্যান বা যোগব্যায়াম করা।
সর্বনিম্ন ৫ ঘন্টা ঘুমানো।

অবিলম্বে একজন ডাক্তারের সাথে দেখা করুন যদি: ব্যথা খুব বেশি দিন ধরে চলছে, কিন্তু কমছে না। কোনও কারণ ছাড়াই ঘন ঘন পেশির ব্যথা দেখা দেয়। জ্বর সহ শরীরে ব্যথা হয়।

আমরা অনেকেই হয়তো শুনেছি বা জানি যে, কানের ব্যথায়-রসুন। পুরানো ব্যথায় -হলুদ। বুকের ব্যথায় – আপেল সিডার ভিনেগার। দাঁতের ব্যথায়- লবঙ্গ। পেশিতে ব্যথা -পুদিনা পাতা।পেট ফাঁপা ও ব্যথায়- আনারস। সাইনাসের ব্যথায়- সজিনা। মূত্রনালীর ইনফেকশনে- কালোজাম। আঘাতের ব্যথায়– পানি। অনেক পুরাতন এই প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা আগে অনুসরণ করুন। দামি দামি ওষুধ পরে খান। ভালো থাকুন। সুস্থ্য থাকুন। এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

Share