লেবু চা নাকি গ্রিন টি, কোনটি বেশি স্বাস্থ্যকর?

চা খুবই জনপ্রিয় একটি পানীয়। সকালে ঘুম থেকে উঠে এক কাপ গরম চায়ে চুমুক না দিলে যেন দিনটাই শুরু হয় না। আবার কাজের ফাঁকে ক্লান্তি দূর করতেও চায়ের জুড়ি মেলা ভার। মার্কেটে বিভিন্ন ধরনের চা পাওয়া যায়। স্বাস্থ্য সচেতন যারা তারা অনেকেই গ্রিন টি বা সবুজ চা খান। এছাড়া অনেকে আবার লাল চাতে একটু লেবু যোগ করে লেবু চা খান।

কেউ কেউ আবার লেবু চা খেতে বেশি পছন্দ করেন। কিন্তু কখনও কি ভেবে দেখেছেন, কোন চা বেশি স্বাস্থ্যকর? বিশেষত যারা সকালে চা পান করতে পছন্দ করেন তাদের কোন চা পান করা উচিত?

গ্রিন টি, লাল চা এবং দুধ চা। এই তিন ধরণের মধ্যে পার্থক্য হল পলিফেনল অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। পলিফেনল যত বেশি হবে তত চর্বি কমাবে এবং উপকারও আর ভাল হবে। গ্রিন টি নির্দিষ্ট অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের একটি সমৃদ্ধ উৎস।

আসুন জেনে নেওয়া যাক, কোন চা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য সবচেয়ে বেশি ভালো লেবু চা নাকি গ্রিন টি-

লেবু চা

লেবু ইমিউন সিস্টেমকে শক্তিশালী করে। আমাদের বডি ডিটক্সের জন্য খুব উপকারী লেবু। লেবু একটি লো-ক্যালোরি ফুড যা ওজন কমাতেও সহায়তা করে। ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীদের জন্যও লেবু চা অত্যন্ত উপকারী, যা ইনসুলিনের উৎপাদন বাড়ায়। এই চা পান করলে কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজের ঝুঁকি হ্রাস হয়। অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল সংক্রমণ এবং ভাইরাস সংক্রমণ থেকে স্বস্তি পাওয়া যায়।

প্রচুর পরিমানে ভিটামিন “সি”তে সমৃদ্ধ লেবু। এটি একটি শক্তিশালী প্রাকৃতিক অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট যা ফ্রি র‌্যাডিকেল নিরপেক্ষ করতে সহায়তা করে। এই কারণ নিয়মিত লেবু চা পান করা কোনও ব্যক্তির মধ্যে ক্যান্সারের ঝুঁকি কম থাকে।

এছাড়া লেবু চাও একটি এন্টিসেপটিক হিসাবে কাজ করে এবং বিভিন্ন সংক্রমণ এবং অসুস্থতা প্রতিরোধে সহায়তা করে।

গ্রিন টি

গ্রিন টি মূলত চীন এবং অন্যান্য প্রতিবেশী দেশগুলি যেমন জাপান এবং দক্ষিণ কোরিয়া, এশিয়া থেকে উদ্ভূত হয়েছিল। এশিয়ানদের সাধারণভাবে পাতলা দেহ, ত্বকের জটিল রঙ এবং আয়ু বেশি। কারণ তারা বেশি পরিমানে পানীয় পান করে। এর মধ্যে গ্রিন টি অন্যতম।

তারা বলেছে, আয়ু বেশি হওয়ার গোপন কথাটি হল গ্রিন টি। গ্রিন টি কেটচিন পলিফেনল নামক অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট সমৃদ্ধ। এটি রিউম্যাটয়েড আর্থ্রাইটিস, কার্ডিওভাসকুলার রোগ এমনকি সংক্রমণের মতো রোগ প্রতিরোধ করতে পারে।

গ্রিন টি পান করলে ভাইরাস এবং সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী হয়। এটি হৃদরোগ এবং অস্টিওপরোসিসসহ অনেক রোগের ঝুঁকি হ্রাস করে। বিভিন্ন গবেষণা অনুযায়ী, গ্রিন টি পান করলে তা শরীরকে বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সার থেকে রক্ষা করে। এছাড়া এটি উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণেও সহায়তা করে।

এটি আমাদের শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা হ্রাস করতে সহায়তা করে এবং আমাদের প্রতিরোধ ক্ষমতা কার্যকর করতে সহায়তা করে।

গ্রিন টি এবং লেবু চা এর কিছু পার্থক্য

  • গ্রিন টি তিনটি প্রধান ধরণের চা এর মধ্যে একটি, তবে লেবু চা পানীয়টি প্রস্তুত করার একটি পদ্ধতি মাত্র।
  • গ্রিন টি হল কমপক্ষে প্রক্রিয়াজাত হয়, যা নিয়মিত গ্রহণকারীদের জন্য দুর্দান্ত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এর উৎস।
  • লেবু চা হল গরম বা ঠাণ্ডা চাতে লেবুর রসের সংযোজন যা প্রস্তুত করা হয়েছে।
  • লেবুর রস যোগ করলে চা অ্যান্টিসেপটিক হয়, পাশাপাশি চায়ের সমস্ত স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছেই।

লেবু চা নাকি গ্রিন টি কোনটি সেরা চা?

উভয় চাই প্রাকৃতিক এবং ভেষজ। তাই এই দুটোই স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। লেবুর রসে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টি ভাইরাল এবং অ্যান্টিসেপটিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

গ্রিন টিতে উপস্থিত উপাদান যেমন “এল-থায়ানাইন” এবং পলিফেনল ওজন হ্রাস করতে উপকারী। তবে, সঠিক ব্যায়াম এবং ডায়েট অনুসরণ করলেই এটি ওজন হ্রাস করে।

লেবু চায়েও ওজন কমানোর বৈশিষ্ট্য রয়েছে এবং এটিও সমানভাবে উপকারী। এটিও লক্ষণীয় যে অতিরিক্ত পরিমাণে গ্রিন টি পান করা বিভিন্ন ধরণের ক্ষতির কারণ হতে পারে। এর অর্থ হল গ্রিন টি বা লেবু চা কেবল সঠিকভাবে পান করতে পারলে দুটোই স্বাস্থ্যের পক্ষে উপকারী।

রেফারেন্স:

এই সম্পর্কিত আরও পোস্ট পড়ুন:

Share