রূপচর্চায় মুসুর ডাল এর ব্যবহার।

বাঙ্গালি হেঁশেল মুসুর ডালের খুব কদর রয়েছে। সৌন্দর্য্য চর্চার  জন্য খুব বেশি কিছুর দরকার নেই। হাতের কাছের সহজলভ্য সব জিনিস ব্যবহার করেও আপনি হয়ে উঠতে পারেন অনন্য সুন্দর। এই যেমন, মসুর ডালের প্যাক লাগিয়ে আপনি হতে পারেন ফর্সা, কোমল ও সুন্দর ত্বকের অধিকারী। দীর্ঘদিন যদি নিয়ম মেনে মুখে মসুরের ডালের প্যাক লাগান তাহলে সহজেই আপনার মুখের কালো ছাপটা দূর হয়ে যাবে। চলুন এ প্যাক কী করে তৈরি করবেন তা জেনে নিই-

ব্রণ দূর করতে:

মসুর ডাল গুঁড়া করে হলুদ ও পানির সঙ্গে মিশিয়ে তৈরি করুন ফেসপ্যাক। ত্বকে লাগিয়ে রাখুন না শুকানো পর্যন্ত। ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। দূর হবে ব্রণ।

ত্বককে উজ্জ্বল করে তুলতে:

অল্প সময়ে ত্বক উজ্জ্বল এবং প্রাণবন্ত করে তুলতে মুসুর ডাল লাগাতে ভুলবেন না। এক্ষেত্রে পরিমাণ মতো মুসুর ডালকে সারা রাত পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে। পরদিন সকালে উঠে পানি ছেঁকে নিয়ে ডাল বেটে নিতে হবে। তারপর ডালের পেস্টের সঙ্গে ১ চামচ কাঁচা দুধ এবং পরিমাণ মতো বাদাম তেল মিশিয়ে নিতে হবে। তারপর পেস্টটি ভাল করে মুখে লাগিয়ে কম করে ১৫-২০ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। তারপর উষ্ণ গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফলতে হবে। এইভাবে ত্বকের পরিচর্যা করলে দেখবেন ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পেতে সময় লাগবে না।

দাগ দূর করতে:

মুখে বা পিঠে দাগ দূর করতে মসুরের ডালের মধ্যে চালের পেস্ট মিশিয়ে ওর মধ্যে চন্দন গুঁড়ো, মুলতানি মাটি মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এর মধ্যে দুই চামচ শসার রসও মেশাতে পারেন। মুখে এবং শরীরের নানা স্থানে ওই পেস্ট লাগান। শুকিয়ে যাওয়ার পরে ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন কিছুদিনের মধ্যে দাগ দূর হয়ে যাবে।

ত্বকের শুস্কতা দূর করবে: 

                                                                                      পরিমাণ মতো মসুর ডালের পেস্ট-এর সঙ্গে পরিমাণ মতো গাঁদা ফুল মিশিয়ে ভাল করে বেটে নিয়ে এই পেস্টটি বানাতে হবে। তারপর সেটি কম করে হলেও ১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখার পর ধুয়ে ফেলতে হবে। ত্বকের শুস্কতা দূর করার পাশাপাশি ব্রণের প্রকোপ কমাতে এবং ত্বককে নরম করে তুলতেও এই ফেইস মাস্কটি বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

ফেইসওয়াশ হিসেবে ও কাজে লাগানে যায়: 

                                                                          মসুর ডাল দিয়ে ত্বককে পরিষ্কার করলে স্কিনটোনের উন্নতির পাশাপাশি পরিবেশ দূষণের কারণে ত্বকের কোন ধরনের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কাও কমে যায়। সেক্ষেত্রে ১ চামচ বাঁটা মসুর ডালের সঙ্গে ২ চামচ দুধ, অল্প পরিমাণে হলুদ এবং ৩ ফোঁটা নারকেল তেল মিশিয়ে একটা পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। তারপর মিশ্রণটি সারা মুখে লাগিয়ে কয়েক মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। সময় হয়ে গেলে ভাল করে ধুয়ে ফেলতে হবে মুখটা।

মাথার চুলকানি দূর করতে: 

মাথার ত্বকে ময়লা কিংবা খুশকি জমার কারণে ত্বক চুলকাতে পারে। সেক্ষেত্রেও এই মসুর ডাল উপকারী। নিয়মিত মসুর ডাল বেটে মাথার ত্বকে লাগিয়ে ৩০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এভাবে করতে থাকলে চুলকানি দূর হবে।

ত্বক ফাটা দূর করতে: 

বিভিন্ন কারণে বিশেষ করে আবহাওয়া কিংবা চর্মরোগের কারণে ত্বক ফেটে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে মসুর ডাল বেটে ফেটে যাওয়া জায়গাটিতে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে আসলে পানি দিয়ে ভাল করে ধুয়ে ফেলুন।

কনুইয়ের রুক্ষ ভাব কমাতে ও কালো দাগ দূর করতে:

মসুর ডাল বাটা, পালংশাক বাটা, হলুদ বাটা, টমেটোর রস, কাঁচা দুধ ও সূর্যমুখীর তেল একসঙ্গে মিশিয়ে হাতের কনুইয়ে লাগান। কিছুক্ষণ পর ধুয়ে ফেলুন। ধীরে ধীরে ফাটা পুরোটাই চলে যাবে।

ত্বক সতেজ রাখতে: 

টক দই, মধু ও মসুর ডাল বাটা দিয়ে একটি প্যাক বানিয়ে নিন। এবার এই প্যাক মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট অপেক্ষা করে ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন ত্বক অনেক সতেজ থাকবে।

Share