মাথা ব্যথা দূর করার কয়েকটি টিপস।

মাথা ব্যথা এমন একটি রোগ যেটি একজন মানুষকে যথেষ্ট ভাবে দুর্বল করে দিতে পারে। কাজের চাপ, রাতে ঠিক মতো ঘুম না হওয়া, অতিরিক্ত টেনশন, জোরে শব্দ বা অতিরিক্ত সূর্যের তাপ এমনকি অতিরিক্ত ঠান্ডায়ও মাথা ব্যথা হতে পারে।

মাথা ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে আমরা ঔষুধ খেতে পারি কিন্তু যেকোনো সময় হঠাৎ করে ঔষুধ খাওয়া আমাদের শরীরের জন্য ভালো না। ঔষধ ছাড়া এমন কয়েকটি টিপস আছে যেগুলি মাথা ব্যথা কমাতে সহায়তা করে। নিচে এমন কয়েকটি টিপস সম্পর্কে আলোচনা করা হলো-

পর্যাপ্ত ঘুম:

পর্যাপ্ত ঘুম আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। একটি গবেষণায় দেখা গেছে, যারা প্রতি রাতে ছয় ঘণ্টারও কম ঘুমিয়েছে এবং যারা বেশি ঘুমিয়েছে তাদের মধ্যে তুলনা করে দেখা গেছে যে, যারা কম ঘুমিয়েছে তাদের ঘন ঘন এবং তীব্র মাথা ব্যথা ছিল। তবে খুব বেশি ঘুমও মাথা ব্যথার কারণ হতে পারে। তাই প্রাকৃতিক ভাবে মাথা ব্যথা প্রতিরোধ করতে হলে সঠিক বিশ্রাম অর্থাৎ পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমাতে হবে।

আইস প্যাক:

মাথা ব্যাথা শুরু হলে মাথার উপর আইস প্যাক ধরে রাখুন। তবে যাদের অল্পতেই ঠান্ডা লাগার প্রবণতা রয়েছে তাদের জন্য এ পদ্ধতিটি নয়। এটি স্নায়ুকে ঠান্ডা করে দেয় এবং রক্তনালী সীমাবদ্ধ করে, এগুলি সবই মাথা ব্যথা কমাতে সহায়তা করে। ২৮ জন মহিলার এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, মাথায় ঠান্ডা জেল প্যাক প্রয়োগ করায় মাইগ্রেনের ব্যথা উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে।

একটি আইস প্যাক তৈরি করতে, বরফের সাথে পানি মিশিয়ে ব্যাগটি পূর্ণ করে একটি নরম তোয়ালে মুড়ে নিন। তারপর মাথায় দিয়ে রাখুন। এতে করে আরাম পাবেন।

Headache Head Massage

যোগব্যায়াম:

যোগব্যায়াম করার মানে হল মানসিক চাপ থেকে মুক্তি, নমনীয়তা বৃদ্ধি, ব্যথা হ্রাস এবং জীবনের মান উন্নত করার একটি দুর্দান্ত উপায়। দীর্ঘস্থায়ী মাইগ্রেনযুক্ত ৬০ জন ব্যক্তির একটি গবেষণার উপর যোগব্যায়ামের প্রভাব পরীক্ষা করা হয়েছিল। অন্য গবেষণায় দেখা গেছে, যে ব্যক্তিরা তিন মাস ধরে যোগব্যায়াম করেছিলেন, আর যারা যোগব্যায়াম করেননি তাদের তুলনায় যারা করেছিল তাদের মাথা ব্যথার ফ্রিকোয়েন্সি, তীব্রতা এবং এর সাথে সম্পর্কিত লক্ষণগুলো উল্লেখযোগ্য ভাবে হ্রাস পেয়েছিল।

ব্যয়াম করুন:

মাথা ব্যথার ফ্রিকোয়েন্সি এবং তীব্রতা হ্রাস করার একটি সহজ উপায় হল শারীরিক কাজ কর্মে লেগে থাকা। উদাহরণস্বরূপ, ৯১ জনের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, মাথা ব্যথার ফ্রিকোয়েন্সি হ্রাস করার জন্য Relaxation এর থেকে যারা ৪০ মিনিট ধরে বাইরে সাইকেল চালায় তাদের মধ্যে মাথা ব্যথা কম ছিল।

শক্ত ঘ্রাণ এড়িয়ে চলুন:

যেকোনো ধরনের দৃঢ় গন্ধ সম্পন্ন পারফিউম, ধুপকাঠি কিংবা সুগন্ধি ব্যবহারের ফলে হঠাৎ মাথা ব্যথার কারণ হতে পারে। মাইগ্রেন বা টানাপূর্ণ মাথাব্যথার অভিজ্ঞতার শিকার হওয়া ৪০০ জনের একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, শক্ত গন্ধ, বিশেষত সুগন্ধিগুলি প্রায়শই মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

ম্যাসেজ:

হ্যাঁ, ম্যাসেজ মাথা ব্যথা দূর করতে খুবই কার্যকরী। ম্যাসেজ থেরাপি দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা কমাতে পাশাপাশি মাথা ব্যথার কারণ হিসাবে পেশীগুলির টান হ্রাস করতে সক্ষম হতে পারে।

Headache ice pack

আকুপাংচার:

এই ঐতিহ্যবাহী চীনা চিকিৎসায় শরীরের নির্দিষ্ট পয়েন্টগুলিতে পাতলা সূঁচ ফুটিয়ে চিকিৎসা করা হয়। এটি শরীরের প্রাকৃতিক ব্যথা-উপশমকারী যৌগগুলিকে উদ্দীপিত করে। স্বাস্থ্যবিশ্বাসের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউটগুলির মতে মাথা ব্যথার ফ্রিকোয়েন্সি এবং তীব্রতা হ্রাস করতে দেখানো হয়েছে।

শ্বাস প্রশ্বাস ব্যায়াম:

হ্যাঁ, নিয়মিত শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম আপনার মনকে ফোকাস করতে এবং আপনার পেশীগুলিকে সহজ করতে সহায়তা করে। পাঁচ সেকেন্ডের জন্য শ্বাস ফেলুন আবার পাঁচ সেকেন্ডের জন্য শ্বাস নিন। মাথা ব্যথা হলে এই ব্যায়ামটি করুন ফল পাবেন।

হাইড্রেশন:

ডিহাইড্রেশন অর্থাৎ পানিশূন্যতা আমাদের দেহের বড় স্বাস্থ্য সমস্যা। এসব স্বাস্থ্য সমস্যার মধ্যে সবথেকে বড় সমস্যা হলো মাথাব্যথা। ৩৯৩ জনের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ৪০% ডিহাইড্রেশন এর কারণে মাথা ব্যাথার শিকার। ১০২ জন পুরুষের একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, প্রতিদিন অতিরিক্ত ১.৫ লিটার পানি পান করার ফলে মাথা ব্যথা কমে গেছে।

আদা চা:

যারা মাথা ব্যথার সমস্যার সাথে ভুগছেন তাদের জন্য একটি ঘরোয়া টোটকা হচ্ছে আদা। যখন অতিরিক্ত মাথা ব্যাথা শুরু হয় তখন আদা চা মাথাব্যথা থেকে মুক্তি দিতে পারে।

রেফারেন্স:
এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট পড়ুন:
Share