মধু কেন চিনির থেকে বেশি স্বাস্থ্যকর?

মধু খুবই স্বাস্থ্যকর এবং চিনির ভালো বিকল্প হিসাবে ব্যবহার হয়। কারণ, মধুতে অসংখ্য স্বাস্থ্য পুষ্টি উপাদান এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। বেশির ভাগ চিনি আপনার স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ। অত্যধিক মিষ্টি ডায়েট ডায়াবেটিস, হার্টের অসুখ এবং মস্তিষ্কের দুর্বলতা জন্য দায়ী। তবে প্রশ্ন হলো “প্রাকৃতিক শর্করা” মধু কী আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো?

প্রাকৃতিক শর্করা প্রায়শই স্বাস্থ্যের জন্য পুষ্টিকর অর্থাৎ কম বিপদজ্জনক বলে মনে করা হয়। মধু প্রকৃতি দ্বারা তৈরি। মানুষ তৈরি করে না। মধুর গ্লাইসেমিক ইনডেক্স এর মান কম। তাই রক্তের শর্করা দ্রুত বাড়ে না। এছাড়া মধু ঘুম বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে, হার্টের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে, ক্ষত নিরাময় করে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে এবং শক্তি বৃদ্ধি করে।

মধুতে বিদ্যমান গ্লুকোজ এবং ফ্রুক্টোজ আলাদা থাকে এজন্য সহজে হজম হয়ে যায়। এনজাইমের দরকার হয় না। তবে ১ বছরের কম বয়সী শিশুকে মধু না দেওয়া ভালো।

চিনি মানুষের দ্বারা তৈরি। এটি বেশি পরিশোধিত প্রোডাক্ট। চিনির গ্লাইসেমিক ইনডেক্স এর মান বেশি। তাই রক্তে সুগার দ্রুত বেড়ে যায়। চিনিতে বিদ্যমান গ্লুকোজ এবং ফ্রুক্টোজ একত্রে থাকে। হজমের জন্য পাকস্থলীর এনজাইম নিঃসৃত করা লাগে। এছাড়া হার্টের জন্য খারাপ, বয়সের ছাপ বাড়িয়ে দেয়, কিডনির জন্য ও ব্রেনের জন্য ক্ষতিকর।

মধু কি?

মধু হচ্ছে একটি তরল আঠালো মিষ্টি জাতীয় পদার্থ, যা মৌমাছিরা ফুল থেকে সংগ্রহ করে মৌচাকে জমা রাখে। মৌমাছিরা ফুল থেকে মিষ্টি রস সংগ্রহ করে পাকস্থলীতে রাখে তারপর পুনরায় আবার মোচাকে সাজায়।

১ টেবিল চামচ মধুতে = গ্লুকোজ, ফ্রুক্টোজ, সুক্রোজ, মাল্টোজ, ৬৪ ক্যালরি এবং ১৭ গ্রাম চিনি থাকে। গ্লুকোজ, ফ্রুক্টোজ, সুক্রোজ তিনটিই ভিন্ন ধরণের সুগার। এছাড়া এতে বেশ কয়েকটি ভিটামিন এবং খনিজ রয়েছে।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এর মান উচ্চ

মধুতে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে – যেমন ফেনলিক অ্যাসিড এবং ফ্ল্যাভোনয়েডস। অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট এমন যৌগ যা রোগ সৃষ্টিকারী ফ্রি র‌্যাডিক্যালগুলির সাথে লড়াই করতে সহায়তা করে, যার ফলে আপনার হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক এবং কিছু ধরণের ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস পায়। অন্যদিকে চিনিতে কোন পুষ্টিগুণ নেয় বললেই চলে।

হার্টের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে পারে

ডায়েটে চিনির বদলে মধু রাখতে পারেন এটা হার্টের জন্য ভালো। গবেষণায় দেখা গেছে মধু হার্টের রোগের বিভিন্ন ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, ৫৫ জনের ৩০ দিনের একটি গবেষণায় চিনি এবং মধুর প্রভাব তুলনা করে দেখা গেছে যে মধু মোট কোলেস্টেরলের এবং “খারাপ” LDL কোলেস্টেরলের মাত্রা হ্রাস করতে সাহায্য করে এবং “ভাল” HDL কোলেস্টেরল বৃদ্ধি করে। ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা ১৯% পর্যন্ত কমিয়ে আনতে পারে।

ক্ষত নিরাময়ে

মধুর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্টের কারণে আয়ুর্বেদের কিছু ঐতিহ্যবাহী ওষুধের মধ্যে, ক্ষত নিরাময়ে জন্য মধু ব্যবহার করা হতো। মধু এবং ক্ষতের যত্ন নিয়ে ২৬ টি গবেষণার পর্যালোচনাতে দেখা গেছে যে, ক্ষত নিরাময়ে মধু সবচেয়ে বেশি কার্যকর ছিল। একটি গবেষণায়, মধু ডায়াবেটিস রোগীদের পায়ের আলসার ৯৭% নিরাময় করেছে।

পরিশোধিত চিনির থেকে ভালো

যদিও মধুতে চিনি এবং ক্যালোরি বেশি থাকে তবে এটি পরিশোধিত চিনির চেয়ে ভাল। পরিশোধিত চিনিতে পুষ্টি উপাদান নেয় বললে চলে, কিন্তু মধুতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ফেনলিক অ্যাসিড এবং ফ্ল্যাভোনয়েডস রয়েছে। এছাড়াও, টাইপ-2 ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ৪৮ জনের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, মধু রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে তুললেও, এটি চিনির মতো প্রভাব ফেলে না। অধ্যয়নগুলি আরও প্রমাণ করে যে চিনির পরিবর্তে মধু খেলে ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা হ্রাস পায়।

ওজন বৃদ্ধিতে অবদান রাখতে পারে

মধুতে চিনি এবং ক্যালোরি বেশি থাকে – এক টেবিল চামচ মধুতে প্রায় ৬৪ ক্যালোরি রয়েছে। যদিও এটি খুব বেশি মনে হচ্ছে না। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে, এটি ওজন বাড়িয়ে তুলতে পারে। মধুতে চিনিও প্রচুর পরিমাণে থাকে, যা দ্রুত হজম হয় এবং আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা বৃদ্ধি করে – ফলে ক্ষুধা বৃদ্ধি এবং সম্ভাব্য দীর্ঘমেয়াদী ওজন বাড়তে পারে।

রেফারেন্স:

Share