মধু ও দারুচিনি এক সাথে খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় ও হার্টের রোগের ঝুঁকি কমে।

একা কোন কিছু করলে যতটা না ভালো হয় তার থেকে বেশি ভালো হয় যদি দুজনে বা একাধিক জনে মিলে করা যায়। ঠিক তেমনি মধু ও দারুচিনি আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী এটা আমরা জানি। তাহলে চিন্তা করুন এই দুটি উপাদান যখন এক সাথে মিশিয়ে ব্যবহার করা হবে তখন এটা কতটা উপকারী হবে।

দারুচিনি এবং মধু উভয়ই বহু আয়ুর্বেদিক ভেষজ ঘরোয়া প্রতিকারে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। খুবই সহজলভ্য দুটি উপাদান দারুচিনি আর মধু। খুব সহজেই পাওয়া যায়। এই দুটি শক্তিশালী উপাদান আমাদের সবার ঘরে সবসময় থাকে।

একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে এই দুই প্রকৃতিক উপাদান একসঙ্গে যদি খাওয়া যায়, তাহলে শরীরে ভিটামিন এবং মিনারেলের ঘাটতি দূর হয়। সেই সঙ্গে শরীরের প্রতিটি অঙ্গের কর্মক্ষমতা যেমন বৃদ্ধি পাবে, তেমনি ত্বকের সৌন্দর্যও বৃদ্ধি পাবে। ঔষধিগুণ সম্পন্ন এই দুটি উপাদান দীর্ঘকাল ধরে চীনা ঐতিহ্যবাহী ঔষধে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

আমরা সকলে জানি যে, মধু অনেক রোগের মহাষৌধ হিসেবে কাজ করে থাকে এবং এটি গবেষণাতেও প্রমাণিত। মধু ও দারুচিনির মিশ্রণ সকল মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ভীষণ উপকারী। বিশেষ করে কোলেস্টেরল ও রক্তে সুগারের পরিমাণ কমাতে এর তুলনা হয় না। মধু ও দারুচিনি অনেক ধরণের ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে।

দারুচিনির উপকারিতা

দারুচিনির সুমিষ্ট ঘ্রানের পাশাপাশি এর অসাধারণ ঔষধী গুনাগুনও রয়েছে। বিশ্ব সেরা সাত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ খাবারের মধ্যে রয়েছে দারুচিনি। গবেষণায় দেখা গেছে যে, দারুচিনি দীর্ঘমেয়াদী ব্যথা কমাতে সহায়তা করে। এছাড়া ইনসুলিনের সংবেদনশীলতা উন্নত করতে, হার্ট ভালো রাখতে, সর্দি কাশি কমাতে, HIV ভাইরাস ও ক্যান্সার থেকে আমাদের রক্ষা করতে দারুচিনি খুবই কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

মধুর উপকারিতা

মধু প্রকৃতি দ্বারা তৈরি। মানুষ তৈরি করে না। সোনালী বা গাঢ় বাদামী রঙের ঘন তরলটিতে জীবন রক্ষাকারী সকল প্রয়োজনীয় উপাদান বিদ্যমান যেমনঃ এনজাইম, পানি, ভিটামিন, মিনারেলস, এন্টি-অক্সিডেন্ট (ব্রেইন ফাঙ্কশন উন্নত করে) ইত্যাদি। একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, বেশিরভাগ কাশির সিরাপের তুলনায় মধু রাতের বেলা কাশি কমাতে আরও কার্যকর ছিল। ঘুম বৃদ্ধি করে, শরীরের কোথাও অল্প পুড়ে গেলে বা অল্প পোড়া ত্বকের চিকিৎসায় মধু ভালো কাজ দেয়।

মধু ও দারুচিনি একত্রে খাওয়ার স্বাস্থ্য উপকারিতা

মধু এবং দারুচিনি উভয়ইর শক্তিশালী প্রভাব রয়েছে। নিচে মধু ও দারুচিনি একত্রে খাওয়ার স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করা হলো –

হার্টের রোগের ঝুঁকি হ্রাস করে:

মধু ও দারুচিনি একত্রে খেলে হার্টের রোগের ঝুঁকি হ্রাস পাই। মধু ও দারুচিনি LDL (খারাপ) কোলেস্টেরল এবং ট্রাইগ্লিসারাইড কমায়। উচ্চ LDL (খারাপ) কোলেস্টেরল এবং ট্রাইগ্লিসারাইড হার্টের রোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়।

গবেষণায় দেখা গেছে যে, মধু খাওয়ার ফলে LDL (খারাপ) কোলেস্টেরল ১১% এবং ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা ১১% হ্রাস পাই। আর মধু HDL (ভাল) কোলেস্টেরল প্রায় ৩% বাড়িয়ে তুলতে পারে।

উভয় খাবারই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ। মধু ও দারুচিনিতে থাকা পলিফেনল অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট হৃৎপিণ্ডে রক্ত ​​প্রবাহ উন্নত করে এবং রক্ত ​​জমাট বাঁধা রোধ করে, যা হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।

ক্ষত নিরাময়ে সহায়তা করে:

যেকোন ক্ষত যেমন – পুড়ে যাওয়া ক্ষত কিংবা সামান্য কেটে গিয়ে ক্ষত হলে মধু ও দারুচিনি ক্ষত ও ব্যথা কমাতে খুবই কার্যকরী। মধু ও দারুচিনি উভয়ই অ্যান্টিব্যাকটেরিয়ার সাথে লড়াই করার এবং ব্যথা হ্রাস করার ক্ষমতা রয়েছে।

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ভালো:

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য মধু ও দারুচিনি ম্যাজিকের মতো কাজ করে। দারুচিনি ইনসুলিন সংবেদনশীলতা বাড়িয়ে ডায়াবেটিসের মাত্রা হ্রাস করতে পারে।। আর মধু ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে LDL (খারাপ) কোলেস্টেরল এবং ট্রাইগ্লিসারাইড এর মাত্রা হ্রাস করে, এবং HDL (ভাল) কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধি করে।

অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট সমৃদ্ধ:

মধু ও দারুচিনি উভয়ই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এর দুর্দান্ত উৎস। বিশেষ করে দারুচিনি একটি অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট পাওয়ার হাউসও। অন্যান্য মশলার সাথে তুলনা করা হলে, দারুচিনি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সামগ্রীর একেবারে শীর্ষে রয়েছে। অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট ফ্রি র‌্যাডিকাল এর বিরুদ্ধে লড়াই করে আমাদের দেহের কোষগুলোকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে। তাই মধু ও দারচিনি আমরা নিয়মিত খাওয়ার অভ্যাস করতে পারি।

মুখের দুর্গন্ধ কমাতে সহায়তা করে:

দারুচিনির অ্যান্টি-মাইক্রোবায়াল প্রভাব দাঁত ক্ষয় রোধে এবং দুর্গন্ধকে কমাতেও সহায়তা করে। এছাড়া দারুচিনি ও মধুতে একাধিক উপকারী উপাদান রয়েছে যা মুখের ক্ষতিকর ও দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী জীবাণু ধ্বংস করতে পারে। আর মুখে গন্ধ দূর হওয়ার সঙ্গে দাঁত ও মাড়ি সম্পর্কিত নানাবিধ রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও কমে যায়।

সর্দি কাশিতে:

সর্দি কাশিতে আক্রান্ত হলে মধু আর দারুচিনির গুঁড়ো মিশিয়ে পরপর তিন দিন খান। এটা আপনার ঠাণ্ডা সারাবে, সর্দি ভালো করে দেবে আর সাইনাসের সমস্যা কমিয়ে দেবে। দারুচিনিতে অ্যান্টি–মাইক্রবিয়াল আর অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটোরি গুন রয়েছে। তাই এটি আমাদের সর্দি কাশি থেকে দূরে থাকতে সাহায্য করবে। এছাড়া দারুচিনি পানিতে দিয়ে পাঁচ থেকে দশ মিনিট ফুটিয়ে তারপর ছেঁকে মধু দিয়ে পান করতে পারেন।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি:

আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যত বেশি শক্তিশালী থাকবে বিভিন্ন ধরণের ভাইরাল ইনফেকশন থেকে আমরা তত বেশি নিজেদেরকে রক্ষা করতে পারবো। দারুচিনির অন্যতম সক্রিয় উপাদান সিনামালডিহাইড এটি বিভিন্ন ধরণের সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করতে পারে। প্রতিদিন পরিমাণ মতো দারুচিনির সঙ্গে মধু মিশিয়ে খেতে পারেন। এই উপকারী উপাদান রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করবে।

ব্রণ দূর করতে:

আমাদের মুখের সৌন্দর্যের ব্যাঘাত ঘটায় ব্রণ। মধুতে অ্যান্টি ব্যাক্টোরিয়াল এবং দারুচিনিতে অ্যান্টি ইনফ্লামাটোরি উপাদান আছে যা ব্রণ দূর করতে সাহায্য করে। মধু ও দারুচিনি পেষ্ট ব্রণের ওপর লাগিয়ে রাখলে দ্রুত ব্রণ কমে যাবে।

সতর্কতা:

অতিরিক্ত কোন কিছু ভালো না। তাই যা খাবেন পরিমাণ মতো খাবেন। আপনি যদি জটিল কোনো রোগে আক্রান্ত হন বা অন্য কোনো কারণে রেগুলার কোনো মেডিকেল কোর্স-এর মধ্য দিয়ে যান তাহলে অবশ্যই খাওয়ার আগে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন।

রেফারেন্স:

Share