বৃষ্টিতে জামা-কাপড়ের যত্ন কিভাবে নিবেন? জেনে নিন।

চলে এসেছে বর্ষাকাল। সারাদিন শুধু বৃষ্টি আর বৃষ্টি। আকাশে মেঘের ছোটাছুটি। চারিদিকে পানিতে থই থই করছে। বর্ষাকালে বাইরে বেরোলে হঠাৎ বৃষ্টির কবলে পড়াটা স্বাভাবিক। অনেক সময় আমরা ইচ্ছা করেও ভিজে থাকি। যাই হোক এই বৃষ্টিতে বাইরে গেলে জামা কাপড়ের বেহাল অবস্থা হয়ে যায়। যত্ন না নিলে এগুলোর অবস্থা আরো খারাপ হয়ে যাই। তাই বর্ষাকালে অন্য সময়ের চেয়ে দরকার একটু বাড়তি যত্নের।

বৃষ্টির দিনে আমরা যেভাবে কাপড় শুকায়

এই বর্ষায় লাগাতার অবিচ্ছিন্নভাবে বৃষ্টির ফলে ভেজা কাপড় ধোয়া এবং শুকানো খুবই ঝামেলার কাজ হয়ে দাঁড়ায় এবং প্রায়শই অলসভাবে দীর্ঘ সময় নেয়। আমাদের বেশিরভাগ ঘরের অভ্যন্তরে কাপড় শুকানোর ব্যবস্থা গ্রহণ করি। ঘরের ভিতর দড়ি টানিয়ে নেই বা খাটের স্ট্যান্ড, দরজা-জানালার গ্রিল যেখানে খুশি সেখানে কাপড় শুকানোর ব্যবস্থা করি। ঘরের ভিতরে শুকানোর জন্য একটি বা দুটি ভেজা পোশাক থাকলে বিশেষ কোনো সমস্যা নেই। বালতি বালতি ভেজা কাপড়ের বোঝা আপনার স্বাস্থ্যের পক্ষে অবশ্যই ভাল নয়।

ভেজা কাপড়ের প্রভাব

ভেজা কাপড় কেবল বাড়ির অভ্যন্তরে বাতাসের আর্দ্রতা বাড়িয়ে তোলে না, তারা আপনার ঘরটিকে ছত্রাক এবং অন্যান্য সংক্রামক জীবের জন্য উপযুক্ত হোস্ট করে তোলে। তদুপরি, উচ্চ আর্দ্রতার মাত্রা ছোট বাচ্চাদের মধ্যে সাইনোসাইটিস, অ্যালার্জি এমনকি নিউমোনিয়ার সংক্রমণও হতে পারে। তাই এই বর্ষায় আপনার কাপড় শুকানোর জন্য কিছু জিনিস আপনি করতে পারেন।

অধিক বৃষ্টিতে লক্ষণীয়

গ্রীষ্মকালের অসহ্য দাবদাহের পর বর্ষার আগমনকে সকলেই ভালবাসে। একটানা বৃষ্টিতে নগর জীবনে তো ব্যাহত হয়ই, সাথে নানান রকম সমস্যার জন্ম নেয় আপনার গৃহস্থালি কাজে। লক্ষ্য করে দেখবেন যে দীর্ঘ দিন বৃষ্টি হলে আসবাব পত্র ও কাপড় চোপড়ে একটা ভেজা, স্যাঁতসেঁতে ভাব চলে আসে। এছাড়া বর্ষাকালে নানান রকম ফাঙ্গাস ও পোকা মাকড়ের উপদ্রপ লক্ষ্য করা যায়। এই কারনে বর্ষাকালে পোশাক ও দৈনন্দিন ব্যবহারের কাপড়ের দরকার কিছু বিশেষ যত্ন। আসুন জেনে নেই বর্ষায় কাপড়ের যত্ন

বৃষ্টিতে জামা-কাপড়ের যত্ন নিবেন যেভাবে :

আপনার কাপড় শুকানোর জন্য হ্যাঙ্গার ব্যবহার করুন:

আপনার জামাকাপড় দ্রুত শুকানোর এই দুর্দান্ত উপায়। আপনার যা করা দরকার তা হ’ল কাপড়টি একটি হ্যাঙ্গারে রাখুন, যেমন আপনি নিজের আলমারিটিতে পোশাকটি ঝুলিয়ে রাখছিলেন। এখন আপনার কাপড়ের লাইনে হ্যাঙ্গারটি রাখুন। এটি জামাকাপড় গুলি ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে দ্রুত বাতাসের সংস্পর্শে আসতে সহায়তা করে।

প্রথমে বাথরুমে শুকতে দিন:

আপনি যদি আপনার কাপড়টি ঘরে বসে শুকিয়ে থাকেন তবে কাপড়টি প্রথমে বাথরুমে শুকতে দিন। আপনি ঘরে আনার আগে এগুলি আংশিক শুকিয়ে যাবে। এখন এগুলিকে হ্যাঙ্গারে রাখুন এবং তাদের ফ্যানের নীচে শুকানোর অনুমতি দিন। এছাড়াও, নিশ্চিত করুন যে আপনি জানালাটি উন্মুক্ত রেখেছেন যাতে তাজা বাতাসের অবিচ্ছিন্ন প্রবাহ থাকে।

যদি আপনি এটিতে একটি ড্রায়ার ফাংশন সহ কোনও ওয়াশিং মেশিন ব্যবহার করেন তবে আপনার কাপড়গুলি বের করার আগে দুবার শুকনো চক্রের মাধ্যমে চালান। এটি আপনার কাপড় দ্রুত শুকিয়ে যেতে সহায়তা করবে।

গন্ধটিকে প্রাকৃতিকভাবে তাড়ান :

আপনি দীর্ঘ সময় ধরে ভেজা থাকার কারণে আপনার জামাকাপড়গুলি অল্প গন্ধ পাচ্ছেন কিনা তা নিয়ে যদি আপনি উদ্বিগ্ন হন, ঘরে শুকানোর সময়, কোণে কিছু ধুপ জ্বলান। আপনি জামাকাপড়ের কাছাকাছি কোথাও এটি করবেন না তা নিশ্চিত করুন। ধোঁয়াগুলি জামাকাপড় শুকনো করতে এবং তাদের একটি সুন্দর সুগন্ধ দেবে।

ঘরের আর্দ্রতার মাত্রা কম রাখুন:

ঘরের মধ্যে আর্দ্রতা স্তর কমিয়ে রাখার আরও একটি দুর্দান্ত উপায় হ’ল ঘরের কোণায় সামুদ্রিক লবন বা অপরিশোধিত লবণ রাখা। লবণ ঘরে আর্দ্রতা শোষণ করে, আপনার বাড়িতে ছত্রাকের ঝুঁকি হ্রাস করে।

অবশেষে, সূর্যটি আসলে আপনি আপনার সমস্ত উইন্ডো এবং দরজা উন্মুক্ত রেখেছেন তা নিশ্চিত করুন।

আলমারিতে স্যাঁতসেঁতে পরিবেশ নেই :

আলমারিগুলিতে স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশ মানে পোকামাকড়ের জন্য বিনোদন পার্ক। অলস বসে না থেকে ভেজা ভাব বা আদ্রতা দূর করুন। আলমারি কাপড়-চোপড় রোদে রাখুন।

বৃষ্টিতে পোশাকে কাঁদা লাগলে সঙ্গে সঙ্গে ডিটারজেন্ট ব্যবহার না করে প্রথমে কাদা লাগা স্থানগুলো ধুয়ে নিন। এরপর পুরো কাপড় আলাদাভাবে ডিটারজেন্ট দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। বৃষ্টির দিনে বাতাসে আদ্রতা বেশি থাকায় কাপড় শুকোতে অনেক বেশি সময় লাগে। তাই টানা বৃষ্টির মধ্যে কাপড় না ধুয়ে বৃষ্টি থেমে যাওয়ার পর রোদ উঠলে তবেই কাপড় ধোয়া উত্তম।

কাপড় ২-৩ দিন ভেজা থাকলে ব্যাক্টেরিয়ার কারণে বাজে গন্ধ বের হয়। তাই কাপড়ে গন্ধ হলে ডিটারজেন্ট এবং এন্টিসেপ্টিক লিকুইড দিয়ে আবার কাপড়টা ধুয়ে নিন। রোদ উঠলে ভেজা কাপড় শুকোতে দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘরের আলমারি, ওয়ারড্রপ, সব খুলে দিন। একইসঙ্গে দরজা জানালা সব খুলে দিন। তাহলে গুমোটভাব দূর হয়ে যাবে। প্রয়োজনে আলমারির বিছানায় মেলে দিয়ে ফ্যান ছেড়ে দিন।

আলমারির ভেতরে খবরের কাগজ রাখুন আদ্রতা টেনে নিবে। আলমারিতে কিছু চকের টুকরো রাখুন। জামা কাপড় স্যাঁতস্যাঁতে হবে না। চক বাড়তি আদ্রর্তা শুষে নিবে। কাপড়ের ভাজে ভাজে চন্দন কাঠ রাখুন তাতে কাপড় থেকে সুগন্ধ ছড়াবে। গায়ে মাখার সাবান, পারফিউমের বোতল কাপড়ের মাঝে রাখার চেষ্টা করুন। এতেও কাপড় সুগন্ধযুক্ত থাকবে।

নিম পাতায় ভরসা করুন :

নিম পাতায় অ্যান্টি-পোকার ও অ্যান্টি-ফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। যেহেতু এগুলি প্রাকৃতিক কীটনাশক, তাই আপনার পোশাকের মধ্যে শুকনো নিম পাতা পাতা পোকার পোকা এবং ব্যাকটেরিয়াকে আপনার পোশাক খাওয়া এবং নষ্ট করা থেকে রোধ করতে পারে।

কর্পূর  বেছে নিন :

পোকামাকড়গুলি ক্ষুদ্রতম কোণগুলির মধ্যে দিয়ে তাদের পথ সন্ধান করে এবং বর্ষার সময় সহজেই আপনার আলমারিতে ঢুকে যায়। কর্পূর বলগুলি আর্দ্রতা শোষণ করে এবং আপনার ওয়ারড্রোবগুলিতে পোকামাকড়ের কোনও জায়গা নেই তা নিশ্চিত করবে।

বৃষ্টিতে জামা-কাপড়ের যত্ন নেয়ার আরও কিছু উপায় :

  • বর্ষাকালে বেশিরভাগ সময় কৃত্রিম তন্তুজাত কাপড় পরিধান করতে চেষ্টা করুন। যেমন জর্জেট,সিল্ক এই ধরনের কাপড় পরুন বেশী। কেননা বৃষ্টির পানিতে এ ধরনের কাপড়ের ক্ষতি সুতি বা প্রাকৃতিক তন্তুর কাপড়ের চাইতে অনেকটাই কম হয়। তাছাড়া এইসব কাপড় ভিজে তা দ্রুত হয় শুকিয়ে যায়। তবে শুকিয়ে গেলেও বাড়িতে ফিরে যত জলদি সম্ভব ভেজা কাপড়টি ধুয়ে ফেলুন।
  • বৃষ্টির দিনে কাপড়ে কাদার দাগ লেগে যাওয়া খুবই সাধারন একটা ব্যাপার। কাপড়ে কাদা লাগলে পুরো কাপড়টি আগেই সাবান পানি দিয়ে ভিজিয়ে দিবেন না। কাদা লাগা জায়গা টুকুন আগে আলাদা করে ধুয়ে নিন, তারপর সাবান পানিতে পুরো কাপড়টি ভেজান।
  • বৃষ্টির পানিতে কাপড়ের জুতো ভিজে গেলে জুতোর ভেতরে খবরের কাগজ দিয়ে ভরিয়ে দিন প্রথমে। তারপর ফ্যানের নিচে শুকাতে দিন। কাগজ অনেকটাই পানি শুষে নেবে আর জুতোও শুকিয়ে যাবে দ্রুত।
  • বর্ষাকালে পরিধেয় সুতির পোশাক শুকানোর পর অবশ্যই ভালো করে ইস্ত্রি করে নিন, এতে কাপড় অব্যবহৃত রেখে দিলেও ছত্রাকে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।
  • সূর্যের আল দেখা না গেলেও কাপর তো ধুতেই হয়, আর শুকাতেও হয়। তাই না? তবে কাপড় ঘরে শুকাতে হলে ভালো করে পানি ঝরিয়ে ফ্যানের নিচে দিয়ে শুকান। গ্যাসের চুলায় কাপড় শুকাতে যাবেন না। এতে বিশ্রী গন্ধ হয়ে যাবে কাপড়ে।
  • এ সময়ে কাপড়ে বাজে গন্ধ হয়ে যায়। বাজারে কাপড়ে ব্যবহারের উপযোগী বিভিন্ন সুগন্ধি পাওয়া যায়, এ জাতীয় সুগন্ধি কাপড়ের সোঁদা গন্ধ দূর করতে সাহায্য করবে।
  • এই মৌসুমেই মাঝে মাঝেই আলমারির দরজা খুলে দিয়ে ফ্যান চালিয়ে রাখুন, এতে আলমারি ও কাপড়ের গুমোট ভাব কেটে যাবে।
  • কাপড়ে পোকা মাকড়ের উপদ্রব এড়াতে আলমারিতে ন্যাপথালিন বা নিম পাতা ব্যবহার করুন।
  • বৃষ্টির পর যখনই রোদ উঠবে তখন ফ্যানের নিচে শুকানো কাপড় রোদে মেলে দিন। এতে কাপড় একদম “ফ্রেশ” হয়ে যাবে।
  • সাদা ও হালকা রঙের কাপড় ভিজে গেলেই ধুয়ে ফেলুন শুকিয়ে যাওয়ার আগে। তাহলে কাপড়ে তিলা পরবে না

আমরা যেখানেই বসবাস করি না কেন Mold বা ছাতা, ছত্রাক, ব্যাকটেরিয়া ইত্যাদি সবকিছু আমাদের চারপাশে সর্বত্র বিরাজমান। এটি প্রতিটি আলমারিতে বিশেষ করে দেরাজ ওয়ালা আলমারিতে, ক্ষুদ্র কক্ষ, ছোট্ট কামরা গৃহ এবং লিনেনগুলির নিচে থাকে। আপনি যদি সাবধান না হন তবে এটি সবকিছু নষ্ট করতে পারে। আপনি সাবধান হলে এবং একটু খরচ করলে এই সমস্যা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব।

Share