পুদিনা পাতার শরবত খাওয়ার স্বাস্থ্য উপকারিতা।

পুদিনা পাতা আমাদের সকলের কাছেই পরিচিত। এখন বাজারে খুব সহজলভ্য পুদিনা পাতা। রান্নায় পুদিনা পাতার কদর তো আছেই, কিন্তু ঔষধি হিসেবে এই পাতার বহুল ব্যবহার প্রাচীনকাল থেকেই। প্রাচীনকাল থেকেই পুদিনা তার স্বাদ-গন্ধের জন্য বিখ্যাত।

শুধু স্বাদ-গন্ধ বলছি কেন, পুষ্টিগুণেও কিন্তু পুদিনা অনন্য। রোগ প্রতিরোধ ও নিরাময় দুই দিকেই খুব কার্যকর। পুদিনা পাতার মূল, পাতা, কান্ড সহ সমগ্র গাছই ওষুধি গুনে পরিপূর্ণ। যা অনেকেরই অজানা। এছাড়া রূপচর্চার উপাদান হিসেবেও ব্যবহৃত হয়ে থাকে পুতিনা পাতা।

আয়ুর্বেদ শাস্ত্রমতে এই পাতা বহু রোগ সারানোর কাজে লাগে। তরকারিতে সুগন্ধি হিসাবে একে ব্যবহার করা হয়। পুদিনা পাতা জীবানুনাশক হিসাবে কাজ করে। কাশি, অরুচি ও পাকস্থলীর প্রদাহে পুদিনা উপকারী। গরম কালে পুদিনা পাতার শরবত খাওয়ারও বেশ প্রচলন আছে।

পুদিনা (ইংরেজি: Spearmint), (বৈজ্ঞানিক নাম: Mentha spicata) এক প্রকারের গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ। এটি Lamiaceae পরিবারের অন্তর্গত। এছাড়াও মুখের অস্বাভাবিক দুর্গন্ধ দূর করতে পুদিনা পাতা ব্যবহার করা হয়। এই গাছের পাতা গরম পানির সাথে মিশিয়ে কুলকুচি করলে উপকার পাওয়া যায়। আসুন এবার জেনে নেওয়া যাক, পুদিনা পাতার জুসের অসাধারণ স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে-

  • পুদিনার শরবত বা জুসে ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও মেন্থল থাকে যা হজমে সাহায্য করে এবং খিঁচুনি প্রতিরোধ করে।
  • পেট ব্যথা ও পেটের সমস্যায় এটি কাজে দেয়। পুদিনার রস বা জুস পিরিয়ডের ব্যথা থেকে মুক্তি দেয় এবং রক্ত পরিশোধনে সাহায্য করে।
  • পুদিনার শরবত বিশেষ করে কোলন ক্যান্সার ও ফুসফুসের ক্যান্সারের ক্ষেত্রে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।
  • ত্বককে প্রাকৃতিকভাবে উজ্জ্বল, নিস্তেজ, ফাটা ও স্তর পূর্ণ ত্বককে আর্দ্রতা প্রদান করতে পারে পুদিনার জুস। এছাড়াও পুদিনার জুস ব্রণ দূর করতেও সাহায্য করে। ছত্রাকজনিত রোগ ক্যান্ডিডা নিরাময়ে চমৎকারভাবে কাজ করে এটি।
  • অ্যালার্জির চিকিৎসায় কার্যকরী ভূমিকা রাখে পুদিনার জুস। পুদিনার জুসে বিদ্যমান রোজমেরিনিক এসিড নামক অ্যান্টঅক্সিডেন্ট ফ্রিরেডিক্যাল ও অ্যালার্জি কমাতে সাহায্য করে।
  • পুদিনায় ভিটামিন “বি”, “ই”, “সি” ও “ডি” থাকে বলে সংক্রমণ ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। এছাড়া পুদিনা পাতায় মেন্থল রয়েছে। ঠাণ্ডা ও কাশিতেও চমৎকার কাজ করে পুদিনার জুস।
  • পুদিনা পাতায় ব্যাকটেরিয়ারোধী ও প্রদাহরোধী উপাদান থাকায় এটি ওরাল ইনফেকশন দূর করতে সাহায্য করে। মুখের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে এবং দাঁতের রোগকে দূরে রাখতে নিয়মিত কয়েকটি পুদিনার পাতার জুস খেতে পারেন।
  • দীর্ঘদিন রোগে ভুগলে বা কোষ্ঠ্যকাঠিন্য থাকলে অনেক সময় অরুচি হয়। এক্ষেত্রে পুদিনা পাতার রস ২ চা চামচ, কাগজি লেবুর রস ৮-১০ ফোটা, লবণ হালকা গরম পানিতে মিশিয়ে সকাল বিকাল ২ বেলা খান। এভাবে ৪-৫ দিন খেলে অরুচি দুর হয়ে যাবে।
  • পুদিনা পাতার শরবত উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। নিয়মিত পুদিনা পাতার জুস খেলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে থাকে
  • পুদিনা পাতার জুস ত্বককে শীতল করে। নিয়মিত পুদিনা পাতার জুস খেলে শরীরের ত্বক সতেজ হয়, সজীব ভাব বজায় থাকে। মৃত কোষকে দূর করে মৃসণ করে তোলে ত্বক।

কিভাবে পুদিনার শরবত বানাবেন?
উপকরণ: পুদিনা পাতা ১ মুঠ। পানি দুই গ্লাস। লবণ বা বিট লবণ স্বাদ মতো। ভাজা জিরা-গুঁড়া এক চা-চামচ। লেবুর রস এক টেবিল-চামচ। কাঁচা-মরিচ ১টি অথবা স্বাদ মতো। চিনি নিজের প্রয়োজন মতো।

পুদিনা পাতা পরিষ্কার করে ধুয়ে সব উপকরণ এক সাথে ব্লেন্ডারে দিয়ে ব্লেন্ড করুন। ছাঁকনিতে ছেঁকে নিয়ে গ্লাসে বরফ কুচি দিয়ে পরিবেশন করুন অথবা ফ্রিজে রেখেও পরিবেশন করতে পারেন।

Share