তিল ফাইবারের ভাল উৎস, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে ও কোলেস্টেরল কমায়।

অনাদিকাল থেকেই তিল ভারতীয় শীতের খাবারের একটি অপরিহার্য অঙ্গ। তিল কে লাডু থেকে তিল কি গজাক পর্যন্ত তিলকে বিবেচনায় না নিয়ে শীতকাল চিন্তা করা কঠিন। খাদ্য হিসেবে তিল খুবই জনপ্রিয়। নাড়ু, মোয়া ইত্যাদি মিষ্টি জাতীয় খাবার তৈরিতে ব্যবহার করা হয় তিল। এছাড়া তিলের তেল আমাদের স্বাস্থ্যের পক্ষে খুবই উপকারী।

তিলের বীজের অনেকগুলি সম্ভাব্য স্বাস্থ্য বেনিফিট রয়েছে এবং এটি হাজার বছর ধরে ঔষধে ব্যবহৃত হচ্ছে। তিল হার্টের রোগ, ডায়াবেটিস এবং বাত থেকে রক্ষা করতে পারে। তিল ইংরেজিতে: Sesame এবং বৈজ্ঞানিক নাম: Sesamum indicum.

তিলের বীজের পুষ্টিগুণ

ভিটামিন “বি” এর একটি ভাল উৎস তিলের বীজ। নিচে তিলের বীজের পুষ্টিগুণ দেওয়া হলো:

  • থিমামিন (বি 1): ১৯%
  • নিয়াসিন (বি 3): ৮%
  • ভিটামিন বি 6: ১৪%
  • ফাইবার: ৩.৫ গ্রাম
  • স্যাচুরেটেড ফ্যাট: ১৫%
  • মনস্যাচুরেটেড ফ্যাট: ৩৯%
  • প্রোটিন:
  • ক্যালসিয়াম: ২২%

তিলের বীজের উপকারিতা

নিচে তিলের বীজের উপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করা হলো –

ফাইবারের ভাল উৎস:

৩০ গ্রাম তিলের বীজ ৩.৫ গ্রাম ফাইবার সরবরাহ করে। বেশির ভাগ মানুষই প্রতিদিনের ফাইবারের চাহিদার অর্ধেক বা তার থেকেও কম গ্রহণ করে। তাই নিয়মিত তিল খাওয়ার মাধমে ফাইবার গ্রহণ বাড়িয়ে তুলতে পারেন।

হজম স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে, হার্টের রোগের ঝুঁকি কমাতে, নির্দিষ্ট ক্যান্সার, স্থূলত্ব এবং টাইপ-2 ডায়াবেটিস ঝুঁকি কমাতে ভূমিকা পালন করে।

কোলেস্টেরল এবং ট্রাইগ্লিসারাইড কমাতে পারে:

উচ্চ কোলেস্টেরল এবং ট্রাইগ্লিসারাইড হার্টের রোগের ঝুঁকির কারণ। গবেষণায় দেখা যায় যে, নিয়মিত তিল খাওয়ার অভ্যাস উচ্চ কোলেস্টেরল এবং ট্রাইগ্লিসারাইড হ্রাস করতে সহায়তা পারে। তিলে ১৫% স্যাচুরেটেড ফ্যাট, ৪১% পলিঅনস্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং ৩৯% মনস্যাচুরেটেড ফ্যাট আছে।

স্যাচুরেটেড ফ্যাটের তুলনায় পলিঅনস্যাচুরেটেড এবং মনস্যাচুরেটেড ফ্যাট খাওয়া কোলেস্টেরল কমাতে এবং হার্টের রোগের ঝুঁকি হ্রাস করতে সহায়তা করে। এছাড়া তিলের বীজে দুটি ধরণের উদ্ভিদ যৌগ লিগানানস এবং ফাইটোস্টেরল থাকে যা কোলেস্টেরল কমাতে সহায়তা করে।

প্রোটিনের উৎস:

প্রোটিন হল এক ম্যাক্রোনিউট্রিয়েন্ট যা শক্ত মাংস পেশী তৈরিতে প্রয়োজনীয়। প্রোটিন, ফ্যাট এবং কার্বোহাইড্রেট এই তিনটি ম্যাক্রোনিউট্রিয়েন্ট। ম্যাক্রোনিউট্রিয়েন্টস ক্যালোরি বা শক্তি সরবরাহ করে।

৩০ গ্রাম তিলের বীজ ৩ গ্রাম প্রোটিন সরবরাহ করে। আপনার খাদ্য তালিকায় প্রোটিনের চাহিদা মেটাতে হালকা ভাজা তিলের বীজ বেছে নিন।

নিম্ন রক্তচাপ সাহায্য করতে পারে:

উচ্চ রক্তচাপ হার্টের রোগ এবং স্ট্রোকের জন্য একটি বড় ঝুঁকির কারণ। তিলের বীজে ম্যাগনেসিয়াম বেশি থাকে, যা রক্তচাপকে হ্রাস করতে পারে।

এছাড়া তিলের বীজে লিগানানস, ভিটামিন “ই” এবং অন্যান্য অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ যা আপনার ধমনীতে ফলক তৈরি রোধ করতে সহায়তা করতে পারে। একটি সমীক্ষায় দেখা যায়, উচ্চ রক্তচাপের লোকেরা প্রতিদিন ২.৫ ক্যাপসুল আকারে কালো তিল গুঁড়ো খাওয়ায় তাদের সিস্টোলিক রক্তচাপ ৬% হ্রাস পেয়েছিল।

হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো:

তিলের বীজ বেশ কয়েকটি পুষ্টিতে সমৃদ্ধ যা হাড়ের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে।

৩ চামচ তিলের বীজে ২২% ক্যালসিয়াম, ২৫% ম্যাগনেসিয়াম, ১৯% ম্যাঙ্গানিজ, জিঙ্ক ২১% রয়েছে। এছাড়া তিলের বীজ অক্সালেটস এবং ফাইটেটস, অ্যান্টিনুট্রিয়েন্টস যা এই খনিজগুলির শোষণকে হ্রাস করে।

প্রদাহ হ্রাস করতে পারে:

তিলের বীজ প্রদাহের বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে। দীর্ঘমেয়াদী প্রদাহ স্থূলত্ব এবং ক্যান্সারের পাশাপাশি হার্ট এবং কিডনি রোগ সহ অনেক দীর্ঘস্থায়ী পরিস্থিতিতে ভূমিকা নিতে পারে।

কিডনি রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা ৩ মাস ধরে প্রতিদিন ৬ গ্রাম তিল এবং কুমড়োর বীজের মিশ্রণ খাওয়ার ফলে প্রদাহ হ্রাস পেয়েছিল।

ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ করতে পারে:

তিলে কার্বস কম থাকে, প্রোটিন এবং স্বাস্থ্যকর ফ্যাট বেশি থাকে। এসব উপাদানগুলি রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণকে সমর্থন করতে পারে। অতিরিক্তভাবে, এই বীজের মধ্যে পিনোরসিনল (pinoresinol) রয়েছে, এমন একটি যৌগ যা রক্তচঞ্চলকে হজম এনজাইম মাল্টেসের ক্রিয়া বাধা দিয়ে সহায়তা করতে পারে।

মাল্টেস চিনির মাল্টোজকে ভেঙে দেয়, যা কিছু খাদ্য সামগ্রীর জন্য মিষ্টি হিসাবে ব্যবহৃত হয়। এটি রুটি এবং পাস্তা জাতীয় স্টার্চি জাতীয় খাবার হজম থেকে আপনার অন্ত্রে তৈরি হয়।যদি পিনোরসিনল আপনার মল্টোজ হজমে বাধা দেয়, এর ফলে রক্তে শর্করার মাত্রা কমতে পারে।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ:

তিল সেবন গ্রহণ করলে রক্তে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ক্রিয়াকলাপের পরিমাণ বাড়িয়ে তুলতে পারে। তিলের বীজের লিগানান অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট হিসাবে কাজ করে যা জারণ চাপের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে।

তিলের বীজে ভিটামিন “ই” থাকে যা গামা-টোকোফেরল (gamma-tocopherol) নামক একটি অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট। এই অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট হার্টের রোগের বিরুদ্ধে বিশেষত প্রতিরক্ষামূলক হতে পারে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে:

তিলের বীজ আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করার জন্য বিভিন্ন পুষ্টির এক গুরুত্বপূর্ণ উৎস। এতে জিঙ্ক, সেলেনিয়াম, কপার, আয়রন, ভিটামিন বি-6, এবং ভিটামিন “ই” রয়েছে। আয়রন ও জিঙ্ক আমাদের শরীরে নির্দিষ্ট শ্বেত রক্তকণিকা বিকাশ এবং সক্রিয়করণের জন্য জিঙ্ক দরকার।

হাঁটুর ব্যথা প্রশমিত করে:

অস্টিওআর্থারাইটিস হল জয়েন্টে ব্যথার সর্বাধিক সাধারণ কারণ এবং প্রায়শই হাঁটুতে প্রভাবিত করে। তিলের বীজের সেসামিনে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রভাব রয়েছে যা আপনার হাঁটুর ব্যথা থেকে রক্ষা করতে পারে।

মেনোপজের সময় হরমোন ভারসাম্য রক্ষা করতে পারে:

তিলের বীজে ফাইটোয়েস্ট্রোজেন, উদ্ভিদ যৌগ যা হরমোন ইস্ট্রোজেনের মতো থাকে। মেনোপজের সময় এস্ট্রোজেনের মাত্রা কমে গেলে তিলের বীজ মহিলাদের জন্য উপকারী হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, ফাইটোয়েস্ট্রোজেন হট ফ্ল্যাশ এবং লো ইস্ট্রোজেনের অন্যান্য লক্ষণগুলি প্রতিরোধ করতে সহায়তা করতে পারে।

সতর্কতা

আপনি যদি জটিল কোনো রোগে আক্রান্ত হন বা অন্য কোনো কারণে রেগুলার কোনো মেডিকেল কোর্স-এর মধ্য দিয়ে যান তাহলে অবশ্যই খাওয়ার আগে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন।

রেফারেন্স:

Share