“চা” তে যোগ করুন লবঙ্গ এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ান।

পানির অপর নাম জীবন এটা আমরা সকলে জানি। পানির অপর নাম জীবন হলে চায়ের অপর নাম কি? চায়ের অপর নাম সতেজতা। দিনভর তাজা ও চনমনে থাকতে চা- কে না ভালোবাসে? ঘুম থেকে ওঠার পর বা যে কোনো সময়ে শরীরকে চাঙ্গা করতে চা এর তুলনা হয় না। অফিসের মিটিং, অতিথি আপ্যায়ন, বন্ধু-বান্ধবদের সাথে আড্ডা, পড়ার ফাঁকে চা থাকবে না- এটা ভাবাই যাই না। শুধু কি শরীরটাকে তাজা বা সজীব করে? না, এর অনেক ঔষধি গুনও রয়েছে।

“চা” আমাদের জীবনের একটি অপরিহার্য অংশ এবং এক কাপ গরম চাতে ঠোঁটের আলতো স্পর্শে চুমুক দিতে না পারলে দিনটা যেনো ভালোভাবে শুরু হয়না। এই চায়ের সাথে যদি যুক্ত হয় লবঙ্গ, আদা বা তুলসী পাতা তাহলে তো একেবারে সোনায় সোহাগা। প্রতিটি রান্নাঘরেই ক্লোভ পাওয়া যায় এবং এর অনেক লুকানো স্বাস্থ্য সুবিধা রয়েছে।

আপনি যদি সাধারণ গ্রিন টি বা ব্ল্যাক টি নিয়ে বিরক্ত হন তবে আপনি ক্লোভ চা ব্যবহার করে দেখতে পারেন। প্রাকৃতিক স্যানিটাইজার হিসাবে কাজ করার ক্ষেত্রে আপনার ইন্দ্রিয়কে পুনরুজ্জীবিত করা থেকে শুরু করে লবঙ্গ চায়ের অনেকগুলি স্বাস্থ্য সুবিধা রয়েছে।

মাসালা চা উৎপত্তি স্থান ভারতে এবং এটি ঐতিহ্যগত পানীয়। পানির পরেই চা বিশ্বের সর্বাধিক উপভোগ্য পানীয়। চায়ের উৎপত্তিস্থল চীন। চীন দেশে চা বা টি কে ‘চি’ বলে উচ্চারন করে। ‘চি’ থেকে হয় ‘চা’।

আমরা কি প্রতিদিন লাল চা পান করতে পারি?

হ্যাঁ, আমরা প্রতিদিন চা পান করতে পারি। তবে অবশ্যই পরিমাণ মত পান করতে হবে। প্রতিদিন চার বা পাঁচ কাপের বেশি পান করলে অতিরিক্ত ক্যাফিনের কারণে উদ্বিগ্নতা ও ঘুমের সমস্যা হতে পারে।

লবঙ্গ চায়ের উপকারিতা:

লবঙ্গ চায়ের স্বাস্থ্য উপকারিতা নিচে আলোচনা করা হলো –

দাঁত ও মাড়ির ব্যাথা:

লবঙ্গতে এন্টিব্যাকটেরিয়াল গুণাবলী রয়েছে। লবঙ্গ চা আপনার মুখ থেকে ব্যাকটেরিয়া সরিয়ে দিয়ে দাঁত এবং মাড়ির ব্যথা থেকে দ্রুত মুক্তি দেয়।

সাইনাস সংক্রমণ দূর করে :

লবঙ্গতে রয়েছে ইউজেনল নামের একটি যৌগ। এটি লবঙ্গ থেকে প্রাপ্ত তেলের মূল উপাদান। এই তেলের প্রায় ৭২-৯০ অংশ জুড়ে ইউজেনল বিদ্যমান। ইউজেনল জীবাণুনাশক ও বেদনানাশক। এটি আমাদের সাইনাস পরিষ্কার করে।

জ্বর কমায়:

ক্লোভ চাতে ম্যাগনেসিয়াম বেশি এবং ভিটামিন “ই” এবং ভিটামিন কে-এর একটি সমৃদ্ধ উৎস। এটি একটি পুষ্টি-সমৃদ্ধ পানীয় তৈরি করে।, ক্লোভ চা ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ বন্ধ করে দেয়। এটি প্রকৃতির অ্যান্টিপাইরেটিক, অনাক্রম্যতার মাত্রা বাড়িয়ে আপনার শরীরের তাপমাত্রা কমিয়ে দেয়।

হজম শক্তি বাড়িয়ে দেয়:

লাঞ্চ বা ডিনারের আগে এক কাপ লবঙ্গ চা রক্ত ​​প্রবাহকে উদ্দীপিত করতে পারে এবং খাদ্যের হজমের জন্য লালা উৎপাদন করতে পারে। এ ছাড়াও, লবঙ্গ চা  গ্যাস্ট্রিক স্রোতগুলিকে বাড়িয়ে তোলে এবং এনালিজিক বৈশিষ্ট্যগুলি ভোগ করে যা অস্থিরতা বা পেটের ব্যথা বা দীর্ঘক্ষণ না খেয়ে থাকার কারণে সৃষ্ট হয়। এই ছাড়াও, এই চা বমি বমি ভাব দূর করে।

হাড়ের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে পারে:

লবঙ্গ ম্যাঙ্গানিজ সমৃদ্ধ, ১ চা চামচ লবঙ্গ এর মধ্যে ৩০% (DV) ম্যাঙ্গানিজ রয়েছে। ম্যাঙ্গানিজ হল একটি খনিজ যা হাড় গঠনে জড়িত এবং হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্য অবিশ্বাস্যভাবে গুরুত্বপূর্ণ।

বমি বমি ভাব দূর করে:

কয়েকটি লবঙ্গ মুখে নিয়ে দীর্ঘক্ষণ রাখুন। লবঙ্গের গন্ধ এবং স্বাদ বমি বমি ভাব দূর করার জন্য খুব কার্যকরী। বমিভাব এড়াতে লবঙ্গ চা পান করুন। এক চা চামচ লবঙ্গের গুঁড়া এক কাপ পানিতে কিছুক্ষন গরম করুন। ঠাণ্ডা হয়ে গেলে আস্তে আস্তে এটি পান করুন। যদি এর স্বাদ কটু লাগে তবে এর সঙ্গে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে নিন।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়:

চায়ে পাওয়া পলিফেনলগুলি পরিপাকতন্ত্রে ভাল ব্যাকটিরিয়ার বিকাশ ঘটাতে এবং খারাপ ব্যাকটেরিয়াগুলির বৃদ্ধিকে বাধা দিয়ে স্বাস্থ্যকর পরিপাকতন্ত্র বজায় রাখতে সহায়তা করে। এছাড়াও, ব্ল্যাক টিতে অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ক্ষতিকারক পদার্থগুলিকে মেরে ফেলে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করে।

কাজে মনোযোগ বৃদ্ধি করতে পারে:

চাতে রয়েছে ক্যাফিন এবং এল-থানাইন (L-theanine) নামে একটি অ্যামিনো অ্যাসিড যা কাজে মনোযোগ বৃদ্ধি করতে পারে। এল-থানাইন মস্তিষ্কে আলফা ক্রিয়াকলাপ বৃদ্ধি করে, শিথিলকরণ এবং আরও ভালো মনোযোগ বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। গবেষণায় দেখা গেছে যে, এল-থানাইন এবং ক্যাফিনযুক্ত পানীয় মস্তিষ্কে মনোযোগের ক্ষেত্রে বেশি প্রভাব ফেলে।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের উৎস:

অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট বেশ কয়েকটি স্বাস্থ্য সুবিধা প্রদান করে। এটি ফ্রি র‌্যাডিক্যাল অপসারণ এবং শরীরে কোষের ক্ষতি হ্রাস করতে সহায়তা করতে পারে। এছাড়া অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট দীর্ঘস্থায়ী রোগের ঝুঁকি হ্রাস করতে সহায়তা করতে পারে। পলিফেনলগুলি এক ধরণের অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট। ক্যালিচিনস, থাফ্লাভিনস এবং থেরুবিগিনস সহ পলিফেনলগুলির প্রধান উৎস চা।

সতর্কতা:

আপনি যদি জটিল কোনো রোগে আক্রান্ত হন বা অন্য কোনো কারণে রেগুলার কোনো মেডিকেল কোর্স-এর মধ্য দিয়ে যান তাহলে অবশ্যই খাওয়ার আগে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন।

সূত্রঃ thehealthsite.com

Share