গর্ভবতী মায়ের অতি প্রয়োজনীয় ফোলেট (ফলিক অ্যাসিড) সমৃদ্ধ খাবার।

আমার “মা” যদি সুস্থ্য না হয় তাহলে আমরা সুস্থ্য সন্তান পাব না। একজন সুস্থ্য “মা’ একটি সুস্থ্য শিশুর জন্ম দিতে পারে। আর এ জন্যই গর্ভবতী মায়ের গর্ভকালীন সময়ে বেশি বেশি যত্ন নিতে হবে যা কেবল নিজেকেই পুষ্টি দেয় না, সাথে তার ভিতরের ছোট্ট জীবনকেও পুষ্ট করে।সঠিক পুষ্টি স্বাস্থ্যকর গর্ভাবস্থার মূল চাবিকাঠি।

ফলিক অ্যাসিড গর্ভের শিশুর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদান। এটি গর্ভবতী মহিলাদের জন্য বিশেষভাবে উপকারী। বিশেষত, এটি স্বাস্থ্যকর কোষ বিভাজনকে সমর্থন করে এবং শিশুর জন্মগত ত্রূটিগুলোর ঝুঁকি হ্রাস ও ভ্রূণের সঠিক বৃদ্ধি এবং বিকাশকে নিশ্চিত করে।

মহিলাদের গর্ভধারণের চেষ্টা করার সাহায্যের জন্য সাধারণত যে উপাদানগুলির জন্য সুপারিশ করা হয় তার মধ্যে একটি হল ফলিক অ্যাসিড। এটি লাল রক্তকণিকার পাশাপাশি ডিএনএ তৈরিতে সহায়তা করে। এজন্যই হয়তো ফলিক অ্যাসিডকে কেনো গর্ভাবস্থার শাহেনশা বলা হয়।

ফলিক অ্যাসিড কি?

ভিটামিন বি-9 নামে পরিচিত ফোলেট হল একটি জল-দ্রবণীয় ভিটামিন। ফোলেট এবং ফলিক অ্যাসিড জল দ্রবণীয় বি-ভিটামিনের রূপ। ফোলেট প্রাকৃতিকভাবে অনেক খাবারে পাওয়া যায়। Fortified খাবারগুলিতে এই ফোলেট (বি-৯) ফলিক অ্যাসিড আকারে পাওয়া যায়।ফলিক অ্যাসিড হল ভিটামিন বি৯–এর একটি কৃত্রিম রূপ।

ফলিক অ্যাসিড এবং গর্ভবতী মায়েরা:

গর্ভাবস্থায় শরীরের অতিরিক্ত রক্ত তৈরি করতে ফলিক অ্যাসিড প্রয়োজন হয়। ইউএস প্রতিরোধক টাস্ক ফোর্সের মতে, সন্তান প্রসবের বয়সী সকল মহিলার দিনে 400 – 800 মাইক্রোগ্রাম (0.4 – 0.8 মিলিগ্রাম) খাওয়া উচিত। ফোলিক অ্যাসিড বিশেষ করে প্রাথমিক গর্ভাবস্থায় সুপারিশ করা হয় কারণ এটি স্বাস্থ্যকর ভ্রূণের বিকাশের জন্য অপরিহার্য, বিশেষ করে যখন শিশুর মেরুদন্ডের বিকাশ ঘটে।

ফলিক অ্যাসিড না খাওয়ার ঝুঁকি কী কী?

এই গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টির অনুপস্থিতি নিউরাল টিউব ত্রুটি (মেরুদণ্ডের বিকাশের ত্রুটি) হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে তোলে। স্পিনা বিফিডা এমন একটি অবস্থা যেখানে মেরুদণ্ডের কর্ড উন্মুক্ত হয় অর্থাৎ গর্ভস্থ সন্তানের অঙ্গহানি রোধ করে। মাতৃগর্ভে ২৮-৩০ দিন বয়সে শিশুর স্নায়ুতন্ত্র সুসংগঠিত হয়ে থাকে। এ সময় মায়ের শরীরে ফলিক এসিডের ঘাটতি থাকলে শিশুর স্নায়ুতন্ত্র ও মস্তিষ্ক গঠনে বড় ধরনের ত্রুটি দেখা দিতে পারে।

মস্তিষ্কের দূর্বল গঠন যেটা হল Anencephaly (আনেন্সফালি) নামে পরিচিত। এ ছাড়াও, আরও জন্মগত ত্রুটি রয়েছে যার থেকে ফোলিক অ্যাসিড বাচ্চাকে রক্ষা করতে পারে: টাকরায় ফাটল, সময়ের পূর্বে জন্ম, কম ওজন, গর্ভে কম বৃদ্ধি।

ফলিক অ্যাসিড মায়ের জন্যও উপকারী, তার নিম্নোক্ত ঝুঁকি হ্রাস করে: গর্ভাবস্থায় জটিলতা, গর্ভস্রাব, হৃদরোগ, স্ট্রোক, নির্দিষ্ট ধরনের ক্যান্সার, আলঝেইমার রোগ। ভারী দেহের মহিলাদের স্নায়ু টিউবের ত্রুটিযুক্ত শিশুর জন্ম দেওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে এবং এই কারণে গর্ভধারণের সময় উল্লেখযোগ্যভাবে অতিরিক্ত ওজনযুক্ত মহিলাদের বেশি যত্ন (ফলিক অ্যাসিডের উচ্চ মাত্রা) নিতে হবে।

ফলিক অ্যাসিড কোনও মায়ের দেহে কী করে?

ফলিক অ্যাসিড শরীরের নতুন কোষ উৎপাদন এবং বজায় রাখতে সহায়তা করে। বিশেষত, লাল রক্ত কোষ গঠন এই ভিটামিনের পর্যাপ্ত মাত্রার উপর নির্ভরশীল। ফলিক অ্যাসিডের ঘাটতি প্রাপ্তবয়স্ক এবং শিশু উভয়েরই রক্তাল্পতার একটি পরিচিত কারণ। গর্ভবতী হতে পারে এমন মহিলাদের জন্যও নিয়মিত ফলিক অ্যাসিড সরবরাহ করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ অর্থাৎ পুরুষ এবং মহিলা উভয়ের উর্বরতা বৃদ্ধির জন্য ফলিক অ্যাসিড দরকার।

সকালে না রাতে কখন ফলিক অ্যাসিড গ্রহণ করা উচিত?

আপনি যদি প্রতিদিন ফলিক অ্যাসিড গ্রহণ করে থাকেন তবে এটি প্রতিদিন সকালে বা সন্ধ্যায় গ্রহণ করুন। এক গ্লাস জলে আপনার ফলিক অ্যাসিড ট্যাবলেট নিন। আপনি খাবারের সাথে বা ছাড়াই ফলিক অ্যাসিড গ্রহণ করতে পারেন।

আমি কীভাবে ফলিক অ্যাসিড শোষণ বাড়িয়ে তুলতে পারি?

সবুজ শাকসবজি যেমনঃ পালংশাক, Beans বা শিমজাতীয় সবজি, সাইট্রাস ফল যেমনঃ কমলালেবু ও আস্ত শস্যদানা খান। নিশ্চিন্তে থাকুন। আপনি শাকসব্জী, মটরশুটি, সাইট্রাস ফল বা পুরো শস্যের মতো পর্যাপ্ত খাবার খাচ্ছেন না। আপনি প্রচুর অ্যালকোহল পান করেন। সময়ের সাথে সাথে, এটি আপনার অন্ত্রের ফোলেট শোষণ করা আরও শক্ত করে তোলে।

ফলিক অ্যাসিডের কি পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে?

যদিও প্রতিদিনের ৫ মিলিগ্রাম পর্যন্ত ডোজগুলি কিছু গবেষণায় নিরাপদে ব্যবহার করা হয়েছে, ফলিক অ্যাসিডের প্রতিদিন ১ মিলিগ্রামের বেশি ডোজ পেটের ব্যথা, ডায়রিয়া, ফুসকুড়ি, ঘুমের ব্যাধি, বিরক্তি, বিভ্রান্তি, বমি বমি ভাব, পেট খারাপ, আচরণের পরিবর্তন, ত্বকের প্রতিক্রিয়া হতে পারে, খিঁচুনি, গ্যাস, উত্তেজকতা এবং অন্যান্য পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া।

যেসব খাবার ফলিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ সেগুলো সম্পর্কে জেনে নিন :

সমস্ত গর্ভাবস্থার প্রায় অর্ধেকই অপরিকল্পিত, তাই সকল দেশের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন নির্দিষ্ট খাবারগুলিকে মজবুত করার পদক্ষেপ নিয়েছে যাতে প্রসবের বয়সের সমস্ত নারীরা প্রতিদিনের ফলিক অ্যাসিড পান।

নিম্নলিখিত খাবারগুলি আপনাকে প্রস্তাবিত পরিমাণ পেতে সহায়তা করতে পারে:

  • সবুজ পাতাওয়ালা শাকসব্জী যেমন: পালংশাক, পাটশাক, সরিষা শাক ইত্যাদি।
  • পাকা পেঁপে এবং সাইট্রাস ফল যেমন: কমলা লেবু।
  • মটরশুটি, ডাল ও শিম জাতীয় সবজি।
  • তিল, তিসি, সূর্যমুখীর বীজ।
  • Cereals,লাল চাল বা লাল আটা,পাস্তা
  • ঢেঁড়স, ফুলকপি, ক্যাপসিকাম, বীটরুট ইত্যাদি।

অর্থাৎ সংক্ষেপে: গাঢ় রঙের পাতাযুক্ত সবজি, গোটা শস্য, ব্রোকলি, বরবটি, ডিম, ডাল, মটরশুটি, বাদাম, মাশরুম, মাংস (যেমন গরুর মাংসের লিভার এবং কিডনি), কলা, পেঁপে,বাঙ্গি এবং কমলালেবুর মতো কিছু খাবারের মধ্যে ফোলেট উপস্থিত।

সূত্রঃ webmd ,healthline , medicinenet.com, healthnavigator.org

Share